Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুরে প্রাথমিক বৃত্তি বঞ্চিত ছাত্র-ছাত্রীদের খাতা পূন:মূল্যায়ন ও জড়িতদের বিচারের দাবিতে মাঠে নেমেছে অভিবাবকরা

মেহেরপুরে প্রাথমিক বৃত্তি বঞ্চিত ছাত্র-ছাত্রীদের খাতা পূন:মূল্যায়ন ও জড়িতদের বিচারের দাবিতে মাঠে নেমেছে অভিবাবকরা

এক্সক্লুসিভ
মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,২৭ ফেব্রুয়ারী:

মেহেরপুরে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার খাতা পূণ:মূল্যায়ন করা সহ মূল্যায়নকারী শিক্ষকদের স্বেচ্ছাচারিতা,স্বজনপ্রীতি এবং প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে খাতায় নম্বর কম দেয়ার সাথে জড়িতদের বিচারের দাবিতে অবশেষে জেলা প্রশাসকের শরনাপন্ন হয়েছেন বিক্ষুদ্ধ অভিভাবকরা।

মেহেরপুর জেলা প্রশাসক দেলওয়ার হোসেনের কাছে আবেদন জানিয়েছেন প্রাথমিক বৃত্তি বঞ্চিত ২২ ছাত্রছাত্রীর অভিভাবকগন।
আজ বুধবার সকালে প্রাথমিক বৃত্তি বঞ্চিত ২২ ছাত্র-ছাত্রী অভিভাবকরা তাদের সাক্ষর সম্বলিত আবেদনপত্রের একটি মেহেরপুর জেলা প্রশাসক দেলওয়ার হোসেনের হাতে তুলে দেন ।
আবেদনপত্রে অভিভাবকরা অভিযোগ করেন, মেহেরপুর সদর উপজেলার প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষার খাতা মূল্যায়ন করার জন্য গাংনী ও মুজিবনগর উপজেলায় পাঠানো হয়েছিলো।মূল্যায়নকারীরা জাতীয় শিক্ষা একাডেমী (ন্যাপ) এর নীতিমালা উপেক্ষা করে মনগড়াভাবে খাতা মূল্যায়ন করেছে। খাতা মূল্যায়নের সময়সীমা ৬দিন থাকলেও তারা ৪ দিনের মধ্যে মূল্যায়ন কাজ শেষ করে। তারা আরো অভিযোগ করেন,মূল্যায়নকারীরা কোনো এক পক্ষের নির্দেশে মূল্যায়নের ক্ষেত্রে সঠিক দায়িত্ব পালন না করে তার অবমূল্যায়ন করেছে। স্বেচ্ছাচারিতা,স্বজনপ্রীতি,প্রতিহিংসা ও ষড়যন্ত্র করে তাদের ছেলে মেয়েদের পরীক্ষার খাতায় কম নম্বর দেয়ায় তারা মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন বলে অভিভাবকরা তাদের লিখিত আবেদন পত্রে উল্লেখ করেছেন।
আবেদন পত্রে তারা আরো উল্লেখ করেন,প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার পূর্বে অনুরুপ সমাপনী মডেল টেষ্ট নামে আরও একটি পরীক্ষা মেহেরপুর সদর উপজেলায় অনুষ্ঠিত হয়েছিলো।যার খাতা ও নম্বর সমূহ প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে সংরক্ষিত আছে। তারা দাবী করেন, এ সকল সংরক্ষিত খাতা ও নম্বর পত্র গুলো যাচাই করলে প্রকৃত মেধার মান যাচাই করা সম্ভব হবে ।
বিক্ষুদ্ধ অভিভাবকরা জানান,তারা সমাপনী পরীক্ষার রেজাল্ট নিয়ে ষড়যন্ত্র হচ্ছে এমন গোপন খবরের ভিত্তিতে ১হাজার ২’শ টাকা করে ব্যাংক ড্রাফট করে নিরীক্ষার জন্য আবেদন করেন। কিন্তু পূন:নিরীক্ষা পত্রে প্রাপ্ত নম্বরের থেকে কম নম্বর দেয়া হলেও তা বাড়ানো হয়নি বলে তারা অভিযোগ করেন এবং তার একটি উপযুক্ত প্রমান পত্রও তারা আবেদনের সাথে সংযুক্ত করেছেন।
আবেদনে তারা জানান,এর আগে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের নিকট তাদের ছেলে মেয়েদের খাতা পূন:মূল্যায়ন ও দায়ী ব্যাক্তিদের বিচার চেয়ে আবেদন করলেও তার কোনো প্রতিকার পাননি ।

এছাড়াও কিছু সাধারন গ্রেডে বৃত্তিপ্রাপ্ত ছেলে মেয়েদের অভিভাবক তাদের খাতা পূন:মূল্যায়ন না হওয়া পর্যন্ত সাধারন গ্রেডের বৃত্তির তালিকা থেকে তা প্রত্যাহারের দাবি জানান।
বৃত্তি বঞ্চিত ছাত্র অনিবুজ্জামানের মাতা সোহেলী শবনম জানান, তার ছেলে প্রাথমিক শিক্ষা অফিস আয়োজিত মডেল টেষ্টে ১ম স্থান অধিকার করে এবং জেলা প্রশাসনের তত্বাবধানে মেহেরপুর সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ভর্তি পরীক্ষায় ২য় স্থান অধিকার করেছে। তিনি মনে করেন খাতা পূন: মূল্যায়ন হলে তার ছেলে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পাবে।
তিনি ভাড়াকান্ত কন্ঠে বলেন,তার ছেলে অনিবুজ্জামান বলে; মা কিভাবে পড়লে বৃত্তি পাওয়া যায়? ছেলের এ প্রশ্নের জবাব তিনি দিতে পারেননি।
সোহেলী শবনমের মতো ২২ জন অভিভাবকের কাছে তাদের ছেলে মেয়েদের একই প্রশ্ন- “কিভাবে পড়লে আমরা বৃত্তি পাবো? এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজে ফিরছেন অভিভাবকরা।
কোমলমতী মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের মানসিক অবস্থা বুঝে তাদের খাতা পূন:মূল্যায়ন করে সঠিক ফলাফল প্রকাশ করা এবং দোষী ব্যাক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান অবিভাবকরা।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful