Templates by BIGtheme NET
Home / শিক্ষা ও সংস্কৃতি / মেহেরপুরে ফেল করায় এসএসসি পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা

মেহেরপুরে ফেল করায় এসএসসি পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা

1233142মেহেরপুর নিউজ, ১২ মে:
মেহেরপুরে এসসসি পরীক্ষায় ফেল করায় গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে দিপালী দাস (১৭) নামের এক ছাত্রী। অভিমানী দিপালী দাস জেলার সদর উপজেলার শোলমারী গ্রামের স্বজন দাসের মেয়ে। সে শোলমারী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় থেকে এবছর এসএসপি গণিত বিষয়ের (রেফার্ড) পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টার দিকে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।
জানা গেছে, গত বছর (২০১৫ সালে) পরীক্ষা দিয়ে সে গণিত বিষয়ে ফেল করেছিল। পর পর দুবছরেও পাশ করতে না পেরে অভিমানে সে তার বাবার বাড়িতে গলায় রশি দিয়ে আত্ম হত্যা করে। একই সাথে ধারণা করা হচ্ছে বাল্যবিয়ের কারণে সংসারের বোঝা সামলিয়ে লোখাপড়ায় মনোযোগ দিতে না পারয় অকালে হারালো দিপালীর প্রাণ।
এদিকে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট সংগ্রহ করেছে। পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ না থাকায় ময়নাতদন্ত করা হয়নি।
স্থানীয়রা জানান, গতবছর এসএসসি পরীক্ষার আগে সদর উপজেলার পাটকেল পোত গ্রামের তাপস দাস নামের এক যুবকের সাথে দিপালীর বিয়ে দেয় তার পরিবার। বিয়ের পরপরই এসএসসি পরীক্ষা শুরু হলে সে গণিত বিষয়ে ফেল করে। চলতি বছরে আবারও সে ওই বিষয়ে পরীক্ষা দেয়। গত বুধবার এসএসসি পরীক্ষা ফল প্রকাশ হলে সে এবারও ফেল করে। সেই অভিমানে বৃহস্পতিবার সকালে পরিবারের লোকজনের অগোচরে তার দাদির শোবার ঘরের চালায় গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করে।
অভিমানী ছাত্রীর বাবা স্বজন দাস বলেন, পরীক্ষার রেজাল্ট দেয়ার পর থেকে সকলেই তার খেয়াল রাখছিল। বৃহস্পতিবার সকালে একটি সুযোগ পেয়েই তার মেয়ে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।
শোলমারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহবুবুর রহমান বলেন, চলতি বছরে তার বিদ্যালয় থেকে ৩১ জন ছাত্রী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে শুধমাত্র দিপালী ফেল করেছে। সেই অভিমানেই সে আত্মহত্যা করেছে। তিনি বলেন, দিপালী মোটামুটি মানের ছাত্রী ছিল। সে জেএসসি পরীক্ষায় একবারেই ভালো রেজাল্ট করে পাশ করেছিল। কিন্তু গত বছর পরীক্ষার আগে তার বিয়ে দেয়ায় সে আর লোখাপড়ায় মনোযোগী হতে না পারার কারণে পরপর দুবার ফেল করতে পারে বলে তিনি ধারণা করছেন।
এ ব্যাপারে মেহেরপুর সদর থানার উপপরিদর্শক (এস আই) রফিকুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট নেয়া হয়েছে। ওই ছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ না থাকায় ময়নাদন্ত ছাড়াই লাশ সৎকারের (দাফনের) অনুমতি দেয়া হয়েছে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.