Templates by BIGtheme NET
Home / শিক্ষা ও সংস্কৃতি / মেহেরপুরে বইয়ের দোকানগুলোতে দেদারছে বিক্রি হচ্ছে সরকার ঘোষিত নিষিদ্ধ গাইড ও নোট বই

মেহেরপুরে বইয়ের দোকানগুলোতে দেদারছে বিক্রি হচ্ছে সরকার ঘোষিত নিষিদ্ধ গাইড ও নোট বই

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,১৬ ফেব্রয়ারী:

মেহেরপুরে বইয়ের দোকানগুলোতে দেদারছে বিক্রি হচ্ছে সরকার ঘোষিত নিষিদ্ধ গাইড ও নোট বই। গাইড ও নোট বই নিষিদ্ধ হলেও শিক্ষার্থীরা বোর্ড বই পড়ে প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পায়না বলে নোট বইয়ের প্রতি ঝুকে পড়ে বলে জানায়  বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বেশ কয়েকজন ছাত্র- ছাত্রী । এ ছাড়া ক্লাসে শিক্ষকরা ঠিকমত এর সমাধান দিতে পারেন না।  অভিভাবকেরাও সন্তানের জন্য বিষয়টি বোর্ড বই থেকে ঠিকমত খুঁজে পেতে নাজেহাল হন। কিন্তু একটি গাইড বা নোট বই থাকলে সহজেই প্রশ্নের উত্তর বের করা যায়। তাই ছাত্র, শিক্ষক ও অভিভাবক সবাই এসব বই কিনতে বইয়ের দোকানগুলোতে ধর্না দিচ্ছে। প্রশাসন এক-দুই দিন দায়সারা গোছের অভিযান চালিয়ে নাম মাত্র জরিমানা আদায় করে তাদের দায়িত্ব শেষ করে। তার পর আর কোন খবর থাকে না।
এদিকে কমিশন বানিজ্যের কাছে হার মানছে শিশুদের মেধা। প্রতিনিয়তই বেড়েই চলেছে তাদের বইয়ের ভার। প্রতিবছর বিদ্যালয় মানউন্নয়নের পাশাপাশি ভর্তি কার্যক্রম শুরু হলে একটি চক্র সক্রিয় হয়ে ওঠে কমিশন বানিজ্যে। তারা বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে হাত করে বিভিন্ন নিম্ন মানের বই কিনতে বাধ্য করে মেধা বিকাশে বাধাগ্রস্ত করছে শিক্ষার্থীদের। স্কুলের  উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে হাত করে বিভিন্ন প্রকাশনীর নিম্ন মানের বই নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে অধিক দামের বই গুলোর তালিকা ধরিয়ে দেন অভিভাবকদের এবং যে প্রকাশনির বই লেখা হয়েছে তা কিনতে বাধ্য করা হয়। ভর্তি কার্যক্রম শুরু হওয়ার পরপরই বিভিন্ন প্রকাশনির বই মার্কেট গুলোতে অবাধে বিক্রি শুরু হয়। এছাড়া বিভিন্ন বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ এবং শহরেরে বিভিন্ন লাইব্রেরীকে নগদ নারায়নের মাধ্যমে হাত করে সেই সব নিম্ন মানের বই বাজারজাত এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কিনতে বাধ্য করে। নিম্ন মানের প্রকাশনি এবং লাইব্রেরীর কিছু অসাধু ব্যবসায়ী এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে বইয়ের গায়ে লাগানো নির্ধারিত মূল্যের উপর নতুন করে কাগজ লাগিয়ে দেয় এবং বইয়ের নির্ধারিত মূল্যের থেকে দ্বিগুন হয়। তাদের এই সিন্ডিকেটে ছাত্র-ছাত্রী সহ অবিভাবকরা জিম্মি হয়ে পড়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষার্থী জানায়, নৈর্বক্তিক আর সৃজনশীল প্রশ্ন হওয়ায় ক্লাসে ঠিকমত স্যারেরা বোঝাতে সক্ষম হয় না।
এ দিকে মেহেরপুর বই বিক্রেতারা বলেন, মশা মারতে কামান দাগা লাগে না। সব ধরণের বই ঢাকা ও যশোর থেকে ছাপা হয়। কাজেই সেখানে বন্ধ করলেই নোট বই বন্ধ হয়ে যায়।
মেহেরপুর সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক নুর জাহান বেগম জানান, গাইড বইগুলো ভুলে ভরা থাকে। তাই মূল বই থেকে পড়লেই ভাল ফলাফল করা সম্ভব। মূল বই থেকেই প্রশ্ন করা হয়।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.