Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / মেহেরপুরে বোর্ডের নির্দেশ উপক্ষো করে এসএসসি ফরম পুরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায় ।। এখনো ফেরত দেওয়া হয়নি

মেহেরপুরে বোর্ডের নির্দেশ উপক্ষো করে এসএসসি ফরম পুরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায় ।। এখনো ফেরত দেওয়া হয়নি

মেহেরপুর নিউজ, ২৩ নভেম্বর:
মেহেরপুরে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণে বোর্ডের নির্দেশ উপেক্ষা করে কোচিং ফি, সেশন চার্জ ও আগামী তিন মাসের বেতনের নামে জন প্রতি ৯শ থেকে দেড় হাজার টাকা অতিরিক্ত আদায় করা হয়েছে। শুধু তাই নয় অতিরিক্ত ফিস আদায় করা হলেও কোনো রশিদ দেয়া হয়নি। গত ১৪ নভেম্বর ফরম পূরণের শেষ সময় চলে গেলেও । এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত গতকাল মঙ্গলবার ( ২২ নভেম্বর) পর্যন্ত কোনো রশিদ অথবা অতিরিক্ত অর্থ ফেরত দেওয়া হয়নি পরীক্ষার্থীদের। তবে জেলা প্রশাসন ও শিক্ষা কর্মকর্তা বলছেন লিখিত অভিযোগ পেলে তবেই ব্যবস্থা। এ নিয়ে সাধারণ পরীক্ষার্থীরা হুমকির ভয়ে লিখিত অভিযোগ করতে সাহস পাচ্ছে না। তবে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকরা সকলেই এক জোট হয়ে এখন অস্বীকার করেছেন।
যশোর শিক্ষা বোর্ড থেকে ইস্যুকৃত চিঠিতে স্পষ্ট করে উল্লেখ করা হয়েছে পরীক্ষার ফরম পূরণের সাথে শুধুমাত্র পরীক্ষা সংক্রান্ত বোর্ড নির্ধারিত ফিসের বিপরীতে একটি টাকাও নেয়া যাবেনা। নেয়া হলে ওই সকল বিদ্যালয় বা প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে এমপিও ভুক্ত বাতিলের সিদ্ধান্তও নেয়া গতে পারে।
গত ১০ নভেম্বর যশোর শিক্ষা বোর্ড পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক পনি/পিএ/১১৪/ ১৩৩ স্মারকের মাধ্যমে এ ধরণের এ্কটি সতর্কবাতা দিয়ে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সচিব, জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রতিটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককের কাছে সতর্কবার্তা পাঠানো হয়েছে।
এনিয়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের মাধ্যমে স্কুলে গুলোকে অতিরিক্ত অর্থ না নেওয়ার আহবান জানিয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষকদের কাছে চিঠি পাঠান জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা। এরপরও শিক্ষা কর্মকর্তা বা প্রশাসনের কাউকে তোয়াক্কা করছে না বরং পরীক্ষার্থী টাকা জমা দেয়ার রশিদ বা অতিরিক্ত টাকা ফেরত চাইলে তাদের নানাভাবে হুমকি দিচ্ছে বলে পরীক্ষার্থী অভিযোগ করেছে।
সদর উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, মেহেরপুর সদর উপজেলায় মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসা মিলে ৫০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে। যেগুলো থেকে প্রায় ৩ হাজার পরীক্ষার্থী এসএসপি পরীক্ষার জন্য ফরম পুরণ করেছেন।
সদরের আমঝুপি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এসএসপি পরীক্ষার্থীরা নামপ্রকাশ না করার শর্তে জানায়, তাদের স্কুল থেকে মানবিক বিভাগে ২ হাজার ৬শ, বিজ্ঞান বিভাগে ২ হাজার ৭শ টাকা করে নেয়া হয়েছে এবং রশিদ দেয়া হয়নি।
আমঝুপি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হাসান সামসুজ্জোদাজা পরাগ বলেন, পরীক্ষার্থীদের কাছে থেকে মানবিক বিভাগের জন্য ১হাজার ৭শ, এবং বিজ্ঞান বিভাগের জন্য ১ হাজার ৮শ টাকা নেওয়া হয়েছে। এর কোনো রশিদ দেয়া হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পরে দেয়া হবে। তবে পরীক্ষার্থীরা না আপনি কে সঠিক কথা বলছেন এ বিষয়ে তিনি কথা বলেননি।
আমঝুপি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের এক পরীক্ষার্থী জানায়, তাদের কাছে থেকে ২হাজার ৭শ টাকা আদায় করা হয়েছে। আমরা বেশি নেয়া হচ্ছে জানার পর স্কুলে জানালে প্রধান শিক্ষক বলেন, টাকা ফেরত দেয়া হবে না। তোমাদের কোচিং করানো হবে। তবে কোনো রশিদও দেয়া হয়নি।
ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহিদুল ইসলাম বলেন বোর্ড নির্ধারিত ফিস নেয়া হয়েছে। এর বেশি নেয়া হয়নি।
আমঝুপি আলিম ম্রাদাসায় পরীক্ষার্থী প্রতি নেয়া হয়েছে তিন হাজার টাকা। এক অভিভাবক জানান, তার মেয়ের পরীক্ষার ফরম পূরণ বাবদ তিন হাজার টাকা নেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে প্রতিবাদ করলে মাদ্রাসার শিক্ষকরা মেয়েকে হুমকি দিয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। এ ব্যপারে মাদ্রাসার সুপার মাহবুব আলম বলেন তারা দুই হাজার টাকা করে নিয়েছেন। সেটাও বোর্ড নির্ধারিত ফিসের থেকে বেশি।
তবে উজুলপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, হরিরামাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও শালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা পরীক্ষার্থীদের কাছে থেকে অতিরিক্ত ৯শ টাকা নেওয়া কথা সাংবাদিকদের কাছে স্বীকার করেছেন।
যাদুখালী স্কুল এন্ড কলেজের ব্যবসায় শিক্ষা শাখার এক ছাত্র বলেন, ফরম পূরণের জন্য সে তিন হাজার ২৫০ টাকা দিয়েছে। তার স্কুলে মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় তিন হাজার ২৫০ এবং বিজ্ঞান শাখায় তিন হাজার ৩০০ টাকা করে নেয়া হয়েছে। ওই পরীক্ষার্থী জানায়, এর মধ্যে সেশন চার্জ, কোচিং ফিও নেওয়া হয়েছে। অথচ ফরম পূরনে অন্য কোনো ফিস আদায়ের বিধান নাই। সে আরো জানায় ওই স্কুল থেকে ১০৩ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। সে হিসেবে প্রায় দেড় লাখ টাকা অতিরিক্ত আদায় করা হয়েছে।
তবে এ ব্যাপারে অভিযোগ অস্বীকার করেন যাদুখালী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান টিপু। তিনি বলেন, বোর্ড নির্ধারিত ফিস নিয়েই তার প্রতিষ্ঠানে এসএসসির ফরম পূরণ করা হয়েছে। তবে তিনি রশিদ দিয়েছেন বলে দাবি করেছেন।
অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল খায়ের ও সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা হোসনে মোবারক সম্প্রতি মোমিনপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন করে অভিযোগের সত্যাতা পেয়ে অতিরিক্ত অর্থ ফেরত এবং বোর্ড নির্ধারিত অর্থ নিয়ে ফরম পূরনের দির্দেশ দেন ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মাহবুবুর রহমানকে ।
এসময় ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক সাংবাদিকদের বলেন, সদর উপজেলার প্রতিটি বিদ্যলয়ে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হয়েছে। যাদুখালী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান টিপুর নেতৃত্বে সদর উপজেলার প্রায় ২৫ জন প্রধান শিক্ষক একত্রিত হয়ে মানবিক বিভাগের জন্য দুই হাজার ৬শ এবং বিজ্ঞান বিভাগের জন্য দুই হাজার ৭শ টাকা নির্ধারণ করা হয়। সে অনুযায়ী বেশি নেয়া হয়েছিল। তবে যেহেতু উর্ধতন কতৃপক্ষ নির্ধারিত ফিস নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন । সে মতে আমরা বোর্ড নির্ধারিত ফিসে ফরম পূরন করছি। তবে তিনি বলেন, সকল স্কুলে যেনো অতিরিক্ত ফিস ফেরত দেয় সে দাবিও তিনি করেছেন।
এ প্রেক্ষিতে কথা বললে মোস্তাফিজুর রহমান টিপু বলেন, প্রধান শিক্ষকরা ভুল বুঝেছেন। তিনি বলেন, কোনো প্রধান শিক্ষক যদি ফরম পূরণের সময় পরীক্ষার্থীদের কাছে থেকে বেশি টাকা আদায় করেন তার দায়ভার তাকেই নিতে হবে। আর বকেয়া বেতন, আগামী বছরের তিন মাসের বেতন যদি কেউ নিয়ে থাকেন তবে আলাদা নিতে হবে।
সদর উপজেলার সহকারী মাধ্যমিক কর্মকর্তা হোসনে মোবারক জানান, স্কুল গুলোকে চিঠি দেয়ার পর মৌাখিকভাবে মাত্র ৪টি স্কুল জানিয়েছে তারা বেশি টাকা নেয়নি। তবে বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। বোর্ড নির্ধারিত ফিসের বেশি কোনো অযুহাতে বেশি নিতে পারবেন না।
তবে জেলা শিক্ষা অফিসার সুভাষ চন্দ্র গোলদার বলেন, এ ধরণের বিভিন্ন অভিযোগ মৌখিকভাবে শুনেছি। তবে লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) পরিমল সিংহ বলেন, এসএসপি পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ নেয়ার কোনো সুযোগ নাই। যে সকল স্কুলগুলো বেশি টাকা নিয়েছে তাদের অর্থ ফেরত দিতে হবে। অভিযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.