Templates by BIGtheme NET
Home / কৃষি সমাচার / মেহেরপুরে লিচুর বেহাল দশা ॥ খরার কবলে ফেটে ও শুকিয়ে গেছে লিচু ॥ লিচু বাগান ব্যবসায়ী ও মালিকদের মাথায় হাত

মেহেরপুরে লিচুর বেহাল দশা ॥ খরার কবলে ফেটে ও শুকিয়ে গেছে লিচু ॥ লিচু বাগান ব্যবসায়ী ও মালিকদের মাথায় হাত

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,৮ মে,বিশেষ প্রতিনিধি :

মেহেরপুর জেলায় লিচু ভাংগা অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছর একটু আগেভাগে শুরু হয়েছে। তবে এবছর সুস্বাদু ফল লিচু নিয়ে মেহেরপুরের লিচু ব্যবসায়ী ও বাগান মালিকদের মুখে হাসি নেই। এ হাসি কেড়ে নিয়েছে অনাবৃষ্টি ও রোগবালাই। কারন প্রচন্ড তাপদহ,অনাবৃষ্টি এবং নানা রোগবালাইয়ের কবলে পড়ে গাছেই লিচু ফেটে ও শুকিয়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। গাছ থেকে ভাংগার পর একপন ভাল লিচু একজায়গায় করতে সময় লাগছে ২০ থেকে ৩০ মিনিটের মতন। এ যেন লিচু ভেংগে কম্বলের সূতা বাচার মতো অবস্থা।

আবার রোগাক্রান্ত এসব লিচু বাচতে গিয়ে ফলন বিপর্যয়ের মধ্যে পড়েছে অন্যদিকে এই লিচু বাজারজাত করে দাম না পেয়ে লোকসানের কবলে পড়ে পুজি হারাতে বসেছে জেলার অধিকাংশ লিচু বাগান ব্যবসায়ীরা।

বাগান মালিক আব্দুল মালেক বলেন, গতবছর একটি বাগানে ১০ লাখ টাকার লিচু বেচা-কেনা হয়েছে। কিন্তু এবার এক লাখ টাকা পুজছেনা। চাষী কি করে বাচঁবে আর বাগান মালিকিই বা কি করে বাঁচবে।

লিচু বাগান ব্যবসায়ী পিয়ারুল ইসলাম বলেন,এবার মেহেরপুর জেলায় লিচু হয়েছে প্রচুর। কিন্তু অনাবৃষ্টিব কারনে লিচু ফেটে যাচ্ছে এবং স্পট পড়ে যাচ্ছে। যার কারনে লস গুনতে হবে। এবছর যে টাকাতে বাগান কিনেছি সেই টাকা উঠবেনা।

মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়,মেহেরপুর জেলায় প্রায় ৬’শ হেক্টর জমিতে লিচু বাগান আছে। এর মধ্যে দেশী আটি জাতের লিচু বাগান অর্ধেকের চেয়েও বেশী। তবে দেশী আটি লিচু হলেও এখানকার মাটির গুনে এই লিচু খুব সুস্বাদু। কিন্তু এবার লিচু খরার এবং বিভিন্ন রোগবালাইয়ে কবলে পড়ে ফেটে যাচ্ছে এবং লিচুর গায়ে স্পট পড়ছে। ফলে এই লিচু খরিদ্দার ধরছেনা।

বাগান ব্যবসায়ী অসীম কুমার বলেন, ১ লাখ ২০ হাজার টাকা দিয়ে ১৬ টি গাছ কিনেছিলাম। ক্যারিং খরচ হবে ২০ হাজার টাকা। লিচুর যে অবস্থা বিক্রি করে ৩৫-৩৬ হাজার টাকা উঠতে পারে। তার পরেও লিচু দেখে বাজারে খরিদ্দার এসে লিচু না কিনে বেশির ভাগ সময় বাড়ি ফিরে যাচ্ছে। রোগাকান্ত লিচু নিতে চাচ্ছেনা ক্রেতারা। তার পরেও ভেংগে নিয়ে যাচ্ছি। বেচা-কেনা করে যা হয় এ প্রত্যাশায়।

ইতোমধ্যে লিচু ভাংগা শুরু করেছে বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীরা। লিচু ভেংগে আশানুরূপ ফল পাচ্ছেননা তারা। গতবছর বাগান থেকে লিচু ভেংগে বাজারজাত করে  যে দাম পেয়েছিল এবার তা অর্ধেকও হচ্ছেনা। এই পরিস্থিতির জন্য চাষীরা প্রাকৃতিক দুর্যোগকে দায়ী করলেও কৃষি কর্মকর্তারা তা মানতে রাজি নয়। তারা মনে করে চাষীরা সঠিক সার প্রয়োগ না করায় লিচুর এই পরিস্থিতি। তার পরেও কৃষি বিভাগ মনে করে লিচুর বাম্পার ফলন হবে।

বাগান ব্যবসায়ী মাজেদুল হক বলেন, গতবছর লিচু ১৯’শ টাকা কাউন দরে বিক্রি করেছিলাম। লিচু ভাল হয়েছিল ভাল ফলন হয়েছিল, লিচু মিষ্টি হয়েছিল। কিন্তু এবার বৃষ্টির কারনে লিচু ভাল হয়নি, ছোট হয়েছে, লিচু টেংগা হয়েছে। এই জন্য এবার লিচু ৮’শ ৯’শ টাকা কাউন বিক্রি করছি।

লিচু বাগান মালিক সামাদুল ইসলাম বলেন, রোদের কারনে আমাদের এখন মাথায় হাত। যে গাছে ১৫ কাউন লিচু টার্গেট করেছিলাম সেই গাছে এখন ৩ কাউন লিচু হচ্ছেনা। এভারেজ ২ কাউন করে লিছু হবে।

মেহেরপুর সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ জাহিদুল আমিন বলেন , এবছর লিচু বাগানে পর্যাপ্ত পরিমানে মুকুল দেখা দেয়। যার ফলে জেলার লিচু চাষীদের মনে আশার সঞ্চার হয় লাভের। আমরা চাষীদের বিভিন্ন রোগ-বালাই দমনের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি। এবছর কিছু কিছু ক্ষেত্রে লিচু ফেটে যাচ্ছে । কারণ চাষীরা বরন জাতীয় সার ব্যবহার না করা। আমরা এই সার ব্যবহার করতে চাষীদের পরামর্শ দিচ্ছি। চাষীরা যাতে এই ফল সংরক্ষন করতে পারে এবং বাজারজাত করতে পারে সে ব্যাপারেও পরামর্শ দিচ্ছি। আশা করছি এবার লিচু ও আমের বাম্পার ফলন হবে এবং চাষীরা লাভবান হবে।

বর্তমান এই পরিস্থিতিতে বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীদের কিছু করার না থাকলেও আগামীতে যেন এই পরিস্থিতি মোকাবেলায় এখন থেকেই কৃষি বিভাগ চাষীদের সঠিক পরামর্শ দিয়ে সার্বক্ষনিক সহযোগিতা করে চাষীদের এগিয়ে নিয়ে যাবে এমনটি আশা করছে বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীরা।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.