Templates by BIGtheme NET
Home / জাতীয় ও আন্তর্জাতিক / মেহেরপুরে লোডশেডিংয়ের তীব্রতায় মানুষ দিশেহারা

মেহেরপুরে লোডশেডিংয়ের তীব্রতায় মানুষ দিশেহারা

222মুজাহিদ মুন্না, ২৮ জুন:
মেহেরপুর জেলা শহরসহ গ্রামগঞ্জে রমজানের শুরু থেকে দুঃসহ লোডশেডিং শুরু হয়েছে। বিদ্যুৎ না থাকাই এখন স্বাভাবিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। আবার বিদ্যুৎ আসলেও এক ঘণ্টা বা তার চেয়ে কম সময় থেকে আবার চলে যায়। লোডশেডিংয়ের তীব্রতায় মানুষ এখন দিশেহারা। দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া না হলে এ অবস্থা সহ্য করা জনগণের জন্য কঠিন হয়ে পড়বে বলে জানিয়েছেন তারা। বিশেষ করে রমজান মাস হওয়ার কারনে অনন্ত সেহেরি, ইফতার ও তারাবির নামজের সময় নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ চাই তারা।

এদিকে লোডশেডিং দিন দিন তীব্র আকার ধারণ করলেও সমস্যার সমাধানে কর্তৃপক্ষের কার্যকর কোনো পদক্ষেপই চোখে পড়ছে না। শুধু দিনে নয়, গভীর রাতেও লোডশেডিং হচ্ছে। এ কারণে সারাদিন সিয়াম সাধনা করে রাতে শান্তিমতো ঘুমাতে পারছে না মানুষ। দুর্বিষহ এ অবস্থায় সাধারণ মানুষের ক্ষোভ যে কোনো মুহূর্তে বিস্ফোরিত হতে পারে।
এদিকে গতকাল গাংনী উপজেলার বাশবাড়িয়া গ্রামে বিদ্যুতের দাবিতে গ্রামের শত শত লোকজন জড় হয়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচির জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। কিন্তু মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জিএম আব্দুল মতিন তাদের আশস্ত করলে তারা কর্মসূচি প্রত্যাহার করেন। কিন্তু এভাবে চলতে থাকলে তারা আবার কর্মসুচির ঘোষান দেওয়ার হুমকি দেন।

333বিভিন্ন তথ্য মতে বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার  দু’দিন আগে ২০০৯ সালের ৩ জানুয়ারি সান্ধ্যকালীন পিক আওয়ারে বিদ্যুৎ উৎপাদন ছিল ৩ হাজার ৮৬০ মেগাওয়াট। পরে বিদ্যুতের সফলতার কারণে দেশে লোডশোডিং অনেকটাই কমে যায় কিন্তু বর্তমানে তা আবারও বেড়েছে। একন বস্তুত বিদ্যুৎ উৎপাদনের চিত্র হচ্ছে বানরের তৈলাক্ত বাঁশে ওঠার মতো বলে মনে হচ্ছে। একদিকে নতুন বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে সীমিত বিদ্যুৎ যোগ হলেও অন্যদিকে পুরনো কেন্দ্র বন্ধ হয়ে সার্বিক উৎপাদন আগের জায়গায়ই থেকে যাচ্ছে। কখনো কখনো দু’বছর আগের চেয়েও কম বিদ্যুৎ উৎপাদিত হচ্ছে।

মেহেরপুর শহরের জন্য বিদ্যুতের চাহিদা এখন ৬ মেগাওয়াটের একটু বেশি। কিন্তু প্রতিদিন চুয়াডাঙ্গা অফিস থেকে বিদ্যুৎ পাওয়া যায় আড়াই থেকে সর্ব্বোচ ৩ মেগাওয়াট মত। বিদ্যুৎ ঘাটতি থাকে আড়াই থেকে ৩ মেগাওয়াট । এদিকে মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি অফিস সুত্রে জানাযায়, মেহেরপুর সদর, গাংনী ও মুজিবনগর উপজেলার গ্রাম গুলিতে মোট বিদ্যুতের চাহিদা ৫৭ গোওয়াট ও কিন্তু সেখানে বিদ্যুৎ পাওয়া যায় ২৬ থেকে ২৭ মেগাওয়াট মত। ফলে মেহেরপুর শহরে ও পল্লী গুলোতে লোডশেডিং ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। দিন-রাতে বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে খুব অল্প সময়ের জন্য।

111মেহেরপুর শহরের হোটেল বাজার জামে মসজিদের সভাপতি আলহাজ গোলাম রসুল বলেন, মানুষ রজমান মাসে অনন্ত সেহেরি, ইফতার ও তারাবির সময় নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ চাই। লোডশেডিং এর কারণে তারাবির নামাজ পড়তে মানুষ নার্ভিসাস হয়ে পড়ছে। গতকাল রাতে তারাবির সময় বিদ্যুৎ চলে গেলে আমি মসজিদে বসেই কর্তৃপক্ষকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করছি। এভাবে চলতে পারেনা। বিদ্যুৎ এর কারনে জনগন যদি ক্ষেপে যায় তবে এর দায়ভার কেও নিবে না। তিনি অনন্ত রমজান মাসে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ দাবি করেন।

মেহেরপুর সদর উপজেলার আমঝুপি গ্রামের শহিদুল ইসলাম প্রশ্ন রেখে বলেন, জিএম সাহেব আপনি কি মুসুলমান না অন্য ধর্মের মানুষ, যে ধর্মের মানুষই হননা কেন সকল ধর্মের প্রতি সম্মান রাখা কি আপনার দায়িত্বে মধ্যে পড়ে না। আপনি কি করে? সেহেরি, ইফতারি ও তারাবির সময় বিদ্যুৎ বন্ধ করেন। গতকাল সন্ধায় ইফতার করতে বসলাম আজাদের দুমিনিট বাকি থাকতে আপনি বিদ্যুৎ বন্ধ করে দিলেন। তিনি প্রশ্ন রেখে আরো বলেন আপনি কি ইফতারি না করে বিদ্যুৎ অফ করতে গিয়েছিলেন?
জামান শপিং কমপ্লেক্সের টেইলার্স ব্যাবসায়ী শফিকুল ইসলাম বলেন, দিনের বেশির ভাগ সময় বিদ্যুৎ না থাকার কারনে ঠিকমত কাজ করতে পারছিনা। এবাভে চলতে থাকলে ঈদের আগে যে সমস্থ পোশাকের অর্ডার নেওয়া আছে তা ডেলিভারি দিব কি করে সেটা নিয়ে ভাবছি।

মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জিএম আব্দুল মতিন বলেন, এটা শুধু মেহেরপুরের সমস্য নই সারা দেশের সমস্য। মেহেরপুরে বিদ্যুতের যে পরিমান চাহিদা পাচ্ছি তার অর্ধেকেরও কম। তাই বাধ্য হয়ে লোডশেডিং দিতে হচ্ছে।

মেহেরপুর ওজোপাডিকো লি. এর আবাসিক প্রকৌশলী আসাদুর রহমান এ বিষয়ে বলেন, এতে আমাদের কিছুই করার নাই! আর এটা শুধু মেহেরপুরের সমস্য না এটা এ অঞ্চলের সমস্যা। আমরা বারবার মেহেরপুর বিদ্যুৎ বাড়াতে বলছি কিন্তু কোন কাজ হচ্ছেনা। তাই বাধ্য হয়ে এভাবে বিদ্যুতের লোডশোডিং দিতে হচ্ছে।

জানতে চাইলে মেহেরপুর জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহ মেহেরপুর নিউজকে বলেন, বিদ্যুতের সাব স্টেশন চুয়াডাঙ্গা থেকে পরিচালিত হয়। এখানে মেহেরপুর অফিসের কোন হাত নাই। তারপরও আমরা চেষ্টা করছি রমজানে বাকিদিন গুলোতে বিশেষ করে সেহেরি, ইফতারি ও তারাবির সময় মানুষ যেন বিদ্যুৎ পাই।

মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ফরহাদ হোসেন বলেন, মেহেরপুরে বিদ্যুৎ বাড়াতে বারবার বিদ্যুৎ মন্ত্রীকে অনুরোধ করছি। আশা করি খুব অল্প সময়ের মধ্যে মেহেরপুরের বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান হবে।

বিদ্যুতের এই যখন অবস্থা তখন সাধারণ মানুষের প্রশ্ন বিড়ালের গলাই শেষ ঘন্টাটা বাধবেকে? বিদ্যুতের এই সমস্যার কোন সমাধান কি মানুষ পাবে না আরো বাড়বে এই প্রশ্ন সাধারণ জনতার মুখেমুখে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.