Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / মেহেরপুরে শত কোটি টাকার পশু বিক্রির টার্গেট খামারিদের
meherpur-cow-pic

মেহেরপুরে শত কোটি টাকার পশু বিক্রির টার্গেট খামারিদের

meherpur-cow-picমেহেরপুর নিউজ,০৯ সেপ্টেম্বর:
আসন্ন কোরবানীর ঈদ। কোরবাণীর ঈদকে উপলক্ষে করে প্রাকৃতিক স্বাস্থ্য সম্মত মেহেরপুরে ৩২ হাজার গরুসহ ৮৫ হাজার পশু মোটাতাজাকরণ করা হয়েছে। জেলার চাহিদা পূরণ করে দেশের বিভিন্ন স্থানে এ সকল গরু বিক্রি করা শুরু হয়েছে। জেলার দুটি পশু হাটসহ বিভিন্ন এলাকার গরু ব্যবসায়ীরা খামার থেকে গরু কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। খামারীদের দাবি ভারত থেকে গরু আমদানি না হলে প্রায় শত কোটি টাকার পশু বিক্রি হবে দাবি এলাকার খামারিদের। ফলে এলাকার পশু হাটগুলোতে এখন দেশী গরু ছাগলে ভরপুর। তবে ওষুদ দিয়ে মোটাতাজা করার খবর পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে কঠোর হুশিয়ারি জেলা প্রশাসনের।
প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে অনেক খামারি এবং ব্যক্তিগত ও পারিবারিকভাবে অনেকেই কোরবাণীর পশু মোটা-তাজা করেছে। এসব পশু ইতোমধ্যে বাজারজাত শুরু হয়েছে। মানুষের স্বাস্থ্যের কথা সামনে রেখে প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে গরু মোটা-তাজা করতে জেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগ তত্বাবধান করছে। এসব পশুর মধ্যে আছে গরু, মহিষ, ছাগল ও ভেড়া। প্রকৃতিক পদ্ধতিতে গবাদিপশু মোটাতাজা করণে কয়েক শত নারী পুরুষের কর্মসংস্থানেরও সুযোগ হয়েছে।
জেলা প্রাণী সম্পদ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জেলায় আসন্ন কোরবানীর ইদকে সামনে রেখে ছোট বড় মিলে ৩৮৬টি খামারে ৩১ হাজার ৪৪০টি গরু, ৮১১টি মহিষ, ৫১ হাজার ৪৪৪টি ছাগল ও ১ হাজার ৩৩২টি ভেড়া মিলে মোটা ৮৫ হাজার ২৭টি পশু মোটা তাজা করা হয়েছে। পাশাপাশি অনেক পরিবার একটি দুটি করে গরু মোটাতাজা প্রকল্প হাতে নিয়েছে।
সদর উপজেলার শালিকা গ্রামের জিল্লুর রহমান তিনি জেলা পরিষদের হিসাবরক্ষন কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। চাকরীর পাশে নিজ বাড়িতে গড়ে তুলেছেন গরু মোটাতাজা করণ খামার। তিনি জানান, তার খামারে এ বছর ৩৫টি গরু মোটাতাজা করা হয়েছে। সম্পূর্ন প্রাকৃতিক খাবার দিয়ে গরু গুলোকে মোটাতাজা করা হয়েছে। এ পর্যন্ত ১২টি গরু বিক্রি করেছেন। প্রতিটি রু গড়ে লাখ টাকায় বিক্রি করেছেন বলে জানান তিনি।
তবে জেলায় গরু মোটাতাজা করার বড় ফার্ম গাংনীর মালসাদহ গ্রামের ‘এ্যাপকম ক্যাটেল ফার্ম”। ফার্মের চারটি শেডে প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে গরু মোটাতাজা করা হয়েছে। একই সাথে মুরগি, ছাগল, ভেড়া ও ফার্মের মধ্যে একটি পুকুর নির্মাণ করে মাছ চাষ করা হচ্ছে।
ওাই ফার্মের মালিক মঞ্জুরুল ইসলাম সহ জনা পনের নারি পুরুষ পশুর সার্বক্ষনিক দেখভাল করে। তিনি জোর দিয়ে বলেন- পশু মোটাতাজা করতে রাসায়ানিক দ্রব্যাদি ও স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ ব্যবহার করা হয়। যা মানব দেহের জন্য খুবই ক্ষতিকারক। ক্ষতি এড়াতে তার ফার্মে প্রাকৃৃতিক উপায়ে পশু মোটাতাজা করা ছাড়াও মাছ চাষ করা হচ্ছে। পাশাপাশি ১০ হাজার মুরগীও পালন করা হচ্ছে। গরু ও মুরগীর বিষ্ঠা মাছের খাদ্য হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। পশুকে প্রাকৃতিক ঘাস, ভুষি, খৈল, খড় সহ রাসায়নিক মুক্ত খাবার দেয়া হয়। কোন ধরনের রাসায়নিক দ্রব্য বা ট্যাবলেট গরুকে দেয়া হয় না। ক্ষতিকারক কোন ট্যাবলেট না দেবার কারনে অন্য প্রতিষ্ঠানের মতো এখানে রাতারাতি গরু মোটা হয় না। এজন্যই এই ফার্মের গরু স্বাস্থ্যসম্মত। তিনি আরও জানান তার ফার্মে বর্তমানে ২৭ মাস বয়সের ১৮০টি গরু রয়েছে। ১০ মাস আগে প্রতিটি গরু ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা করে কিনেছিলেন। এখন প্রতিটি গরু ৫০ হাজার থেকে ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত দামে বিক্রি হবে। ইতিমধ্যে তিনটি গরু বিক্রি করেছেন ১লাখ ৩৫ হাজার টাকায়। শুধু ওই ফার্মই নয়। মালসাদহ গ্রামের প্রায় প্রতিটি বাড়িতে একটি দুটি করে গরু পালন করছেন।
গ্রামের আবদুল করিম ও সালেহা বেগম অভিন্ন সুরে বলেন গত ১০-১২ বছর ধরে তারা একটি দুটি করে গরু মোটা তাজা করে নিজেরা স্বাবলম্বী হয়েছেন। তার মতো গ্রামের অধিকাংশ পরিবার গরু পালন করেই ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়েছেন। তারা বিদেশে শ্রম বিক্রির চেয়ে নিজদেশে পরিকল্পিতভাবে গরু পালন করলে কোন পরিবারে অভাব ঢুকতে পারবে না বলে তারা বিশ্বাস করেন।
জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা সুশান্ত হালদার জানান, প্রাণি সম্পদ বিভাগ স্থানীয় জন প্রতিনিধিগণদের সাথে নিয়ে জেলার খামারিদের প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে পশু পালনে উৎসাহিত করা হয়েছে। এরফলে খামারগুলোতে অনেক নারী পুরুষের কর্মসংস্থান হয়েছে।। এই উদ্যোগ সারাদেশে ছড়িয়ে দিতে পারলে দেশের মানুষের স্বাস্থ্যঝুঁকি কমে যাবে। প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা স্বীকার করে বলেন, কোন কোন খামারি অল্প দিনে অধিক লাভের আশায় নিষিদ্ধ ইনজেকশন প্রয়োগ ও পাম বড়ি খাওয়াচ্ছে পশুকে। মোটাতাজা করণে অনেকে ডেক্সামেথাসন গ্রæপের বিষাক্ত ট্যাবলেট বা ইনজেকশনসহ বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্য খাইয়ে থাকেন বলে মাঝে মাঝে অভিযোগ পাওয়া যায়। আমরা তাদের সাবধান করে দিয়েছে।
তবে ওষুধ ব্যবহার করে গরুসহ কোরবানীর পশু মোটাতাজা করলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে হুঁশিয়াড়ি দিয়েছেন জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহ। এ ধরণের প্রতারণা ঠেকাতে প্রাণি সম্পদ বিভাগকে নির্দেশ দেয় হয়েছে এবং একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। অভিযোগ পেলে ওই খামারিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful