Templates by BIGtheme NET
Home / কৃষি সমাচার / মেহেরপুরে শীতকালীন সবজি:: কৃষকরা পাচ্ছেন না দাম, খুচরা বাজারে দ্বিগুন

মেহেরপুরে শীতকালীন সবজি:: কৃষকরা পাচ্ছেন না দাম, খুচরা বাজারে দ্বিগুন

মেহেরপুর নিউজ, ২৬ নভেম্বর:
শীতকালীন সবজির অন্যতম উৎপাদনকারী জেলা মেহেরপুর। জেলার পুরো মাঠ জুড়ে নানা ধরণের সবজির চাষ হলেও চাষের খরচ তুলতে পারছেন না কৃষকরা। ফলে শীতকালীন সবজি উৎপাদন করে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন কৃষকরা। এদিকে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ হলেও তার তেমন কোন প্রভাব পড়েনি খুচরা বাজারে।
মেহেরপুর সবজির পাইকারি বাজার এবং খুচরা বাজার একই স্থানে। কয়েক হাত এর ব্যবধানে কৃষকরা যে দামে পাইকারি বাজারে সবজি বিক্রি করছেন তার থেকে খুচরা বাজার দ্বিগুনেরো বেশী দামে কিনতে হচ্ছে ক্রেতাদের। ফলে বাজারে সমš^য়হীনতার দারুণ প্রভাব পড়েছে। তবে গেল এক সপ্তাহে সবজির দাম কিছুটা কম থাকলেও চলতি সপ্তাহে প্রতিটি সবজির দাম বেড়েছে।
রবিবার সকালে মেহেরপুর বড়বাজারের খুচরা সবজি বাজার ও পাইকারি আড়তে গিয়ে দেখা যায় প্রতি কেজি সিম বিক্রি হচ্ছে খুচরা বাজারে ২০ থেকে ২৪ টাকায়। পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১২ টাকায়। পাতাকপি প্রতি পিস বিক্রি হচ্ছে ৮ থেকে ১০ টাকায়, পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৩ থেকে ৪ টাকায়। করলা বিক্রি হচ্ছে প্রতিকেজি ২৫ থেকে ৩০ টাকায় পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১০ থেকে ১২ টাকায়। পটল বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকায় পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৭থেকে ৮ টাকায়, গাজর বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকায়, পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকায়। বরবটি খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা কেজি, পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১৬ থেকে ২০ টাকায়, লাই প্রতি পিস ১৫ থেকে ২০ টাকায়, পাইকারি বাজারে ৪ তেকে ৬ টাকায়, পেপে বিক্রি হচ্ছে ৮ থেকে ১০ টাকায়, পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৪ থকে ৫ টাকায়। কাচা মরিচ খুচরা বাজারে ২০ টাকা বিক্রি হলেও পাইকারি বাজারে ৮ থেকে ১২ টাকা দাম পাচ্ছেন কৃষকরা।
খুচরা সবজি ব্যবসায়ী আব্দুস সোবহান জানান, গত সপ্তাহের তুলনায় এ সপ্তাহে প্রতিটি সবজির দাম বেড়ে যাওয়ায় বেশি দামে বিক্রি করা হচ্ছে।
কিন্তু পাইকারি আড়তে খেয়া সবজি ভান্ডারের মালিক আবুল খয়ের জানান, গত সপ্তাহের তুলনায় সবজির দাম কিছুটা বাড়লেও চাষীরা ব্যপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। তবে খুচরা ব্যবসায়ীরা দ্বিগুন দামে সবজি বিক্রি করছেন।
তিনি আরো জানান, প্রতিদিন মেহেরপুর থেকে গড়ে ৭ থেকে ৮ ট্রাক সবজি ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন মোকামে নিয়ে যান ব্যবসায়ীরা।
সদর উপজেলা শালিকা গ্রামের পাতাকপি চাষী মহর আলী জানান, এক বিঘা জমিতে ২০ হাজার টাকা খরচ করে চাষ করেছি। কিন্তু ১৪ থেকে ১৫ হাজার টাকার বেশি দাম উঠছে না। ফলে বিঘাপ্রতি ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা ক্ষতি হচ্ছে। এভাবে সবজি চাষে ক্ষতি হলে কৃষকরা চাষ করতে আগ্রহ হারাবে।
একই ভাবে বেশ কয়েকজন কৃষক জানান, চলতি শীতকালীন প্রায় সবজিতেই চাষীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন তারা। কোন সবজিতেই খরচ উঠছে না।
বড়বাজের সবজি কিনতে আসা পিয়াল নামের এক যুবক জানান, পাইকারি বাজার থেকে খুচরা বাজারের দামের পার্থক্য দ্বিগুন। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।
মেহেরপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ড. আখতারুজ্জামান বলেন, বাজার মনিটরিংয়ের দায়িত্বে যারা আছেন তারা সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করছেন না। ফলে প্রথম দিকে কৃষকরা ভালো দাম পেলেও এখন পাচ্ছেন না।
জেলা বাজার অনুসন্ধানকারী জিব্রাইল হোসেন বলেন, আমরা চেষ্টা করেও খুচরা বাজারের সাথে পাইকারি বাজারের দামের সমš^য় করতে পারছি না।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.