Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / মেহেরপুরে শ্রমিককে বেধড়ক পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠালেন মেয়রের চালক

মেহেরপুরে শ্রমিককে বেধড়ক পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠালেন মেয়রের চালক

মেহেরপুর নিউজ, ২৯ অক্টোবর:
হর্ণ চেপে সাইড অপরাধে বকুল হোসেন নামের এক পিকআপের (মিনিট্রাক) চালকের সহকারিকে পিটিয়ে জখম করেছে এমন অভিযোগ মেহেরপুরের গাংনী পৌরসভার মেয়র আশরাফুল ইসলামের এক চালকের বিরুদ্ধে।
তবে সাইড দেওয়ার পর মেয়রের গাড়িকে ডান পেশে চেপে দুর্ঘটনার কবলে ফেলার চেষ্টার কারণে চালকরা তাকে পিটিয়েছে দাবি করেছে মেয়র আশরাফুল ইসলাম।
গতকাল রবিবার দুপুর ১টার দিকে মেহেরপুর কলেজ সড়কে এ ঘটনা ঘটে। আহত বকুল হোসেন বর্তমানে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের পুরুষ ওয়াডের্র বিছানায় যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে। আহত বকুল হোসেন মেহেরপুর শহরের শিশুবাগান পাড়ার সানোয়ার হোসেনের ছেলে।
এদিকে এ ঘটনার পরপরই মেহেরপুর জেলা মটর শ্রমিক ইউনিয়ন জরুরী সভা ডেকেছে। সভায় মেয়র আশরাফুলের উপযুক্ত শাস্তির দাবি করেছে তারা।
খবর পেয়ে মেহেরপুর পৌর মেয়র মাহফুজুর রহমান রিটন, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল ইসলাম, জেলা মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আহসান হাবিব সোনা, সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান হাসপাতালে গিয়ে বকুলের খোজ খবর নিয়েছেন।
আহত বকুল হোসেন জানান, তিনি আমঝুপি গ্রামের খোকন মিয়ার মিনি ট্রাকে চালকের সহকারি হিসেবে কাজ করেন। ঘটনার সময় শহরের পার্শ্ববর্তি একটি গ্রাম থেকে সব্জি বোঝাই করে চালকের বাড়ি নিয়ে যাচ্ছিলাম। এসময় মেহেরপুর পৌরসভার কাছে গাংনী মেয়রের গাড়ি থেকে সাইড নেওয়ার জন্য হর্ণ দিয়েছিলাম কয়েকবার। সেখান থেকে সাইড নিয়ে ওয়াপদা মোড় হয়ে কলেজ সড়কের ফায়ার সার্ভিস অফিসের সামনে পৌছালে বিপরীত দিক মেয়র তার গাড়ি নিয়ে ছুটে গিয়ে তার গতিরোধ করে পিকআপন থামান। এর পর মেয়র পিস্তল বের করে বুকলের মাথায় ধরেন। এসময় তার দুই সহযোগী একজন বেতের লাঠি দিয়ে অপরজন অপর একটি শর্টগানের বাট দিয়ে হাতে পিঠেসহ কয়েক স্থানে বেধড়ক পেটাতে থাকে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।
আহত বকুল আরো বলেন, আর কোন শ্রমিক বা অন্য কাউকে যেন এভাবে কারো হামলার শিকার না হন সে রকম বিচার চাই।
আহত বকুলের মা বকিলা খাতুন জানান, আমার ছেলেকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছে। আর একটু হলেই আমার ছেলেকে মেরে ফেলতো ওরা। আমি এর সঠিক বিচার চাই।
তবে গাংনী পৌর মেয়র আশরাফুল ইসলাম বলেন, সে একই ভাবে হর্ণ চেপে ধরেছিল। তাকে প্রথম সাইড দিয়ে বের করে দিলেও পরবর্তিতে কলেজ মোড়ের সামনে গিয়ে আবারও হর্ন চেপে ধরে আমার গাড়ি চালককে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। তাহের ক্লিনিকে কাছে গেলে সে পিকঅপটিকে ডান দিক ঘেষে ধরলে আমাদের প্রায় দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এসময় আমার গাড়ির চালক বের হয়ে তাদের মারপিট করে। ওই পিকআপটিতে থাকা ১৩/১৪ জন শ্রমিক হাঁসুয়া হাতে করে তাদের উপর হামলা চালাতে গেলে তিনি তখন আত্মরক্ষার্থে পিস্তল বের করে তাদের নিবারণ করেন।
জেলা মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আহসান হাবিব সোনা জানান, এ ঘটনার প্রেক্ষিতে জরুরী মিটিং ডাকা হয়েছে। সভায় সকলের মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
মেহেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল ইসলাম বলেন, ঘটনা শুনে হাসপাতালে গিয়েছিলাম। তবে এ ঘটনায় কোন অভিযোগ কেউ করেননি।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.