Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / মেহেরপুরে সিমেন্ট ছাড়া ঢালাই :: দুসপ্তাহের মাথায় ভেঙ্গে পড়ল স্কুল ভবনের সিঁড়ি

মেহেরপুরে সিমেন্ট ছাড়া ঢালাই :: দুসপ্তাহের মাথায় ভেঙ্গে পড়ল স্কুল ভবনের সিঁড়ি

33মেহেরপুর নিউজ,০৭ জানুয়ারি:
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কাথুলী ইউনিয়নের নবীনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নির্মাণাধীন ভবনের ২য় তলার সিঁড়ি ভেঙ্গে মাটিতে নিচে পড়েছে। এ ঘটনায় মোক্তার আলী নামের এক রাজমিস্ত্রি শ্রমিক আহত হয়েছে। আহত মোক্তার আলী কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার পান্টি গ্রামের শরিফুল ইসলামের ছেলে।
শনিবার দুপুর ২ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। গত ২২ ডিসেম্বর ২য় তলার ওই সিঁড়ি ঢালাই করা হয়েছিল।
এঘটনায় ওই ভবন নির্মানের ঠিকাদার জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন স্থাণীয় ও অভিভাবকরা।
স্কুলের শিক্ষক ও স্থানীয়রা জানান, পিইডিপি-৩ প্রকপ্লের আওতায় ৬৩লাখ ৫২ হাজার ৫শ টাকা বরাদ্ধে গত বছরের মে মাস কাজ শুরু করে তামান্না এন্টার প্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাথে এই ভবনের কাজ ভাগ করে নেন মেহেরপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেক তার ব্যবসায়িক পার্টনার মোনায়ামে হোসেন মুলাক। কাজের প্রথম থেকে সিমেন্ট কম দেওয়া, দুর্বল ইট ব্যবহার করাসহ নানা অনিয়ম করলেও ঠিকাদার প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে স্থানীয়রা কথা বলার সাহস পায় না।
স্থানীয় কয়েকজন শ্রমিক ও শিক্ষকরা এ অনিয়মের প্রতিবাদ করলে কয়েকজন শ্রমিক কাজ থেকে বাদ দেওয়া হয়। এমনকি তাদের কয়েকদিন পারিশ্রমিকও পরিশোধ করা হয়নি। শিক্ষকরাও প্রতিবাদ করতে গেলে তাদের সাথে ঠিকাদার পক্ষের লোকজনের হাতাাহাতির ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন।
22ঘটনার সময় নির্মানাধীন ২য় তলা ভবনের ছাদ ঢালাইয়ের জন্য সাটারিংএর কাজ শেষে সিঁড়ি দিয়ে নামতে গিয়ে দুই সপ্তাহ পূর্বে ঢালাই করা সিড়ি ভেঙ্গে নিচে পড়ে যায়। এসময় বিদ্যালয়ের পুরাতন টিনশেডে ক্লাস চলছিল। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা আতঙ্কে এদিক ওদিক পালাতে থাকে।
এদিকে খবর পেয়ে গাংনী উপজেলা প্রকৌশলী মাহবুবুল হক ঘটনাস্থলে গেলে এলাকাবাসীর তোপের মুখে পড়েন। তখন তিনি ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রæতি দিলে স্থানীয়রা শান্ত হন।
বিদ্যালয়ের ৫শ শ্রেণীর ছাত্র রাব্বি হোসেন জানায়, আমরা ক্লাসে ছিলাম। হঠাত বিশাল শব্দ হয়। আমরা খুব ভয় পেয়েছিলাম। মনে হচ্ছিল যেন ভুমিকম্প হয়ে সব ভেঙে যাচ্ছে।
মো: সাইফ হোসেন নামের ৫ম শ্রেণীর অপর এক ছাত্র জানায়, এই স্কুলেই আমাদের নিরাপত্তাই নাই। এই স্কুলে আর কাল থেকে আসবো না। বিল্ডিং হওয়ার আগেই সিড়ি ভেঙ্গে গেল। পরে কি হবে?
জাহিদুর রহমান নামের এক অভিভাবক জানান, দুর্নীতি করে টাকা পয়সা খেয়ে ইঞ্জিনিয়াররা না দেখে এই বিল্ডিং বানাচ্ছে। নিস্পাপ শিশুরা কোন পাপ করেনি তাই বিল্ডিংয়ে চালু হওয়ার আগেই হয়ত এটা ভেঙ্গে গেল। এই স্কুলের বিল্ডিং নতুন করে ভালো ভাবে তৈরি করা না হলে আমাদের ছেলেমেয়েদের আর স্কুলে পাঠাব না।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা নুরুন নাহার শেলী বলেন, ঠিকাদার ঠিকমত সিমেন্ট, রড ও ভালো ইট না দেওয়ায় ঢালাইয়ের দুসপ্তাহ পরেই সিঁড়িটি ভেঙ্গে গেল। এসকল অনিয়মের প্রতিবাদ করতে গেলে ঠিকাদার এম এ খালেকের লোকজন শিক্ষকদের নানারকম হুমকি দিত। গত ২২ ডিসে¤^র ২য় তলার সিঁড়ি ঢালাইয়ের কাজ করা হয়।
বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি জাবের আলী বলেন, তিনি এই স্কুলের জমি দান করেছিলেন। স্কুলের ভবন তৈরি করার সময় দরপত্রের সিডিউল অনুযায়ী কাজ না করায় আমি প্রতিবাদ করেছিলাম এবং কাজ ঠিকমত দেখে নেওয়ার জন্য ব্যাক্তিগত খরচে দুজন শ্রমিক রেখেছিলাম। তারপরও আমার কথা না মেনে তারা উল্টো নানারকম ভয়ভীতি দেখাতে শুরু করে। এক পর্যায়ে তাদের চাপে পড়ে আমি সভাপতির পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছি।
বিদ্যালয়ের নতুন সভাপতি সুমন আলী বলেন, অনিয়ম করে বিল্ডিং করা হয়েছে। এই ভবন নতুন করে পুনরায় করার দাবি করেন তিনি। তা না করা হলে স্থানীয় অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের এখানে লেখাপড়া করতে পাঠাবে না।
55এলজিইডির গাংনী উপজেলা প্রকৌশলী মাহবুবুল হক বলেন, সিডিউল অনুযায়ী যে পরিমান সিমেন্ট দেওয়ার কথা ছিল তার থেকে অনেক কম দেওয়া হয়েছে। যে কারণে বালু, সিমেন্ট ও খোয়া কংকিটটা জমাট বাধতে পারেনি। একারণে ধসে পড়েছে। তিনি আরো জানান, ২য় তলার এই সিঁড়িটি ঢালাইয়ের সময় তাদের কাউকে না ডেকেই ঢালাই করা হয়েছে। ফলে ওই কাজে সিমেন্টে যথেষ্ট ফাঁকি দেওয়া হয়েছে। এ ধরনের অনিয়মের ফলে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
ওই ভবন নির্মান কাজের ঠিকাদার ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেক ওই ভবনের কাজ তিনি করেননিা বলে অ¯^ীকার করেছেন। তিনি বলেন, তামান্না এন্টার প্রাইজের চারটি কাজের মধ্যে নবিনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন সহ দুটি কাজ ঠিকাদার মোনায়েম হোসেন মুলাক করছেন বলে তিনি জানান।
এম এ খালেকের অভিযোগ অ¯^ীকার করার প্রেক্ষিতে বিদ্যালয়ের বর্তমান ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি সুমন আলী বলেন, ঠিকাদার মোনায়েম হোসেন মুলাক তার ব্যবসায়িক পার্টনার । এম এ খালেক এটা অস্বীকার করতে পারেননা।
এ বিষয়ে ঠিকাদার মোনায়েম হোসেন মুলাক বলেন, রাজমিস্ত্রিদের (শ্রমিকদের) ভুলে সিঁড়ি ভেঙ্গে গেছে। সিমেন্ট কম দিয়েছেন কেন এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, শ্রমিকরা সিমেন্ট বিক্রি করে খেয়েছেন। প্রকৌশলী ছাড়া ঢালাই করার কথা বললে তিনি বলেন, প্রকৌশলীসহ তিনি ওই দিন অন্য কাজে ছিলেন।
এ ব্যাপারে মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) পরিমল সিংহ বলেন, তিনি এখন পর্যন্ত জানতে পারেননি। বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful