Templates by BIGtheme NET
Home / ধর্ম / পেটে ক্ষুদা রেখেও প্রতিমার মুখে হাসি ফোটাতে হয়’

পেটে ক্ষুদা রেখেও প্রতিমার মুখে হাসি ফোটাতে হয়’

0011মেহেরপুর নিউজ, ২৬ সেপ্টেম্বর:
‘পেটে ক্ষুদা রেখেও প্রতিমার মুখে হাসি ফোটাতে হয়। তারপরও বাপ দাদার কাজ ধরে রাখতে এ কাজ করতে হচ্ছে।’ গত বৃহস্পতিবার দুপুরে মেহেরপুর জেলা শহরের নায়েববাড়ি মন্দিরে গিয়ে প্রতিমা তৈরির খোজ খবর নেয়ার সময় কার্তিক শর্মা নামের এক মালাকার (প্রতিমা শিল্পি) কষ্টের কথাগুলো বলেন। তিনি বলেন, যথাযথ পারিশ্রামিক না পেয়েও ঠাকুর যাতে সন্তুষ্ট হয় সে লক্ষ্যে কাজ করছি।
রাজবাড়ি থেকে ৫ সদস্যর একটি মালাকার দল নায়েববাড়ি মন্দিরে প্রতিমা তৈরি করছেন। কাজ শেষ করে আজ রাতেই তারা রাজধানীর একটি মন্দিরে যাবেন প্রতিমা তৈরির জন্য। এভাবেই আগামী ৭ অক্টোবরের মধ্যে তারা দেশের বিভিন্ন স্থানে ৮টি প্রতিমা তৈরি করবেন। তাই ব্যস্ততা তাদের বেশী। কাজের ফাঁকে ফাঁকে কথা তাদের সাথে।
মালাকার উজ্জল কুমার শর্মা বলেন, তারা বংশানুক্রমে প্রতিমা তৈরির কাজ করে আসছেন। প্রতিমা তৈরি করে নায্য পারিশ্রামিক তারা পাননা। তারপরও পারিবারিক ঔতিহ্য টিকিয়ে রাখতে এবং মার (দুর্গা) সন্তুষ্টির লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন বলে তারা জানান। এ বছর তারা দেশের বিভিণœ স্থানের ৮টি পুজা মন্ডপে কাজ পেয়েছেন।
প্রতিমা শিল্পি বলেন, মন্দিরে মন্দিরে প্রতিমা তৈরির করার সময় আতংকে থাকতে হয়। কখন কে হামলা চালায়। দেশে তো হিন্দু কমে যাচ্ছে। তাই আগামীতে হয়ত কাজও কমে যাবে। তাই দেশ ছেড়ে চলে যাওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় থাকবে না। এছাড়া তো আর কোনো কাজ শিখতে পারিনি।
জেলা পুজা উদযাপন পরিষদ কমিটি সূত্রে জানা গেছে, জেলার তিনটি উপজেলায় ৩৫টি মন্ডপে এবার শারদীয় দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে শহরে ৫টি সহ সদর উপজেলায় ১৩টি, গাংনী উপজেলায় ১৬টি এবং মুজিবনগর উপজেলায় ৬টি মন্ডপে পুজা হচ্ছে। গতবছর জেলায় ৩৯টি পূজা মন্ডপে দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছিল। প্রতিটি মন্দিরে প্রতিমা তৈরির জন্য সরকারীভাবে ৫২০ কেজি করে চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।
0022নায়েববাড়ি মন্দিরের পুজা উদযাপন কমিটির সদস্য মানষ সাহা বলেন, মা এবার ঘটকে (ঘোড়ায়) এসেছেন আবার ঘটকেই ফিরে যাবেন। আগামী ৭ অক্টোবর দেবীর বোধনের মধ্য দিয়ে ৪দিন ব্যাপী দুর্গোৎসব শুরু হবে। তিনি বলেন, উৎসবমুখর পরিবেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন উৎসব পালন করতে পারে প্রশাসনের কাছে সে নিরাপত্তার দাবি করেন তিনি।
প্রকাশ সাহা নামের এক ভক্ত বলেন, একটি প্রতিমা তৈরি করাসহ আনুসাঙ্গিক সবমিলিয়ে দুই থেকে আড়াই লক্ষ টাকা খরচ হচ্ছে। সেখানে সরকারী বরাদ্দ একবারেই অপ্রতুল। আবার হিন্দু পরিবারের সংখ্যাও খুব বেশী না। তাই বছরের একটি বড় পুজা উদযাপন করতে তাদের বেশ বেগ পোহাতে হয়।

জেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ডা. রমেশ চন্দ্র নাথ বলেন, এবছর জেলায় ৩৫টি পূজা মন্ডপে শারদীয় দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হবে। তিনি আরো বলেন, খরচের তুলনায় সরকারী বরাদ্দ খুবই সামান্য। গতবারের থেকে এবার ৪টি মন্ডপ কম হওয়ায় ৫০০ কেজির পরবির্তে ৫২০ কেজি করে চাল মন্দির প্রতি চাল যাওয়া যাবে। তিনি আরো বলেন, কিছুদিন পূর্বের থেকে বর্তমান সময়ের আইন শৃক্সখলা পরিস্থিতি ভালো রয়েছে। আশাকারি ভালো ভবে এবার দুর্গোৎসব উদযাপন করা সম্ভব হবে। জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকেও সার্বিক নিরাপত্তা দেয়ার আশ্বাস পেয়েছেন বলে তিনি জানান।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশ সুপার আনিছুর রহমান বলেন, শারদীয় দুর্গোৎসবে আইন শৃক্সখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে প্রতিটা মন্দিরে নিরাপত্তা ব্যাবস্থা যোরদার করা হয়েছে। মাঠে সাদা পোশাকে পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.