Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুর জেলার দক্ষিন অঞ্চল উত্তপ্ত ॥ ২০১০ সালে জনপ্রতিনিধিসহ খুন-৬

মেহেরপুর জেলার দক্ষিন অঞ্চল উত্তপ্ত ॥ ২০১০ সালে জনপ্রতিনিধিসহ খুন-৬

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,মহাসিন আলী,১৭সেপ্টেম্বর:

মেহেরপুর জেলার দক্ষিণ অঞ্চল আবারও উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। খুন, ছিনতাই, চাঁদাবাজি, ডাকাতি নিত্য দিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। গ্রাম-গঞ্জের মানুষ জীবন হাতে করে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে। সন্ত্রাসীরা মানুষ খুন করে ফেলে রেখে যাবার পর লাশ নিয়ে রাজনীতির কারনে পুলিশ প্রশাসনও সুষ্ঠু তদনৱ করে রিপোর্ট প্রদান কিংবা আসামি ধরতে পারছে না। যে কারনে দিনের পর দিনের খুনের ঘটনায় পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো ছাড়া তেমন কোন ভূমিকা রাখতে পারছে না। চলতি বছরে মেহেরপুরে দক্ষিন অঞ্চলে চাঁদাবাজি, বিল-খাল দখল, ছিনতাই ও ডাকাতির ঘটনায় জন প্রতিনিধিসহ ৬ টি নৃশংস খুনের ঘটনা ঘটেছে। ওই ঘটনায় মামলা হলেও নানা কারনে পুলিশ হত্যার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল কিংবা আসামি আটক করতে ব্যর্থ হয়েছে। আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় এবং  আসামিদের হুমকীসহ নানা কারনে মামলার বাদিরা শংকিত ও অনেকে এলাকা ছেড়েছে। এসব কারনে গ্রাম-গঞ্জের মানুষ আইন নিজের হাতে তুলে নিতে শুরু করেছে।

২০১০ সালের ২৩ জানুয়ারী দিনগত রাত ১২ টার দিকে ৭/৮ জনের একদল মুখোশ ও অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী মেহেরপুর মুজিবনগর উপজেলার মহাজনপুর ইউপি’র ওয়ার্ড সদস্য মুজিবনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক শহিদুল ইসলাম ওরফে বাবলুকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে পার্শ্ববর্তী টুপলার বিলের ধারে কুপিয়ে ও জবাই করে লাশ ফেলে রেখে যায়। সম্ভাব্য বিল দখলকে কেন্দ্র করে তিনি খুন হন বলে এলাকাবাসী তাৎক্ষনিকভাবে ধারণা করে।

মুজিবনগর উপজেলার গোপালপুর গ্রামের আবু বক্কর মন্ডলের বড় ছেলে ২ কন্যার জনক বাবলু মেম্বার খুনের ঘটনায় পর দিন তার ভাই আহসান হাবিব ৭/৮ জনকে আসামি করে মুজিবনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় সন্দেহভাজন ৬ জনকে বিভিন্ন সময় আটক করে পুলিশ রিমান্ডে নিয়েছে। পুলিশ চার্জশীট দাখিলের প্রক্রিয়া করলেও রাজনৈতিক কারনে তা সম্ভব হয়নি। স্থানীয় রাজনীতিবীদরা সব সময় চাইছে তাদের বিরোধী দলের কতিপয় ব্যক্তিকে জড়িয়ে চার্জশীট প্রদান করা হোক।

এ বছর ২০ মার্চ দিনগত গভীর রাতে মেহেরপুর সদর উপজেলার আমঝুপি ইউনিয়নের হিজুলী গ্রামের নাজিমউদ্দিনের বড় ছেলে নূর ইসলাম বাড়ি থেকে প্রায় ৪শ’ গজ দূরে দীনদত্ত ব্রিজের উত্তর পাশে রাস্তা সংলগ্ন একটি বৈদুতিক মোটরের ঘরের পাশে খুন হন। ৩ সন্তানের জনক নূর ইসলামকে অস্ত্রধারীরা কুপিয়ে ও জবাই করে খুন করে লাশ ফেলে রেখে যায়। গ্রামের একটি ৯ একর সরকারি খাস জমি ও পুকুর নিয়ে গ্রামের হাজি গ্রুপ ও দেওয়ানবাগী গ্রুপের বিরোধের জের ধরে সে খুন হয়। ওই মামলায় নিহত নূর ইসলামের মা ছাদেকা খাতুনের  প্রতিপক্ষ ১৪/১৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলেও স্ত্রী অঙ্গুরা খাতুনের রয়েছে ভিন্ন মত। এদিকে পুলিশ একই গ্রামের দেওয়ানবাগী গ্রুপের সদস্য আলফাজ নামের এক যুবককে মেহেরপুর শহর থেকে আটক করে। সে নূর ইসলাম খুনের ঘটনায় ১৬৪ ধারায় জবান বন্দী দিয়ে ৫/৬ জনের নাম করে।

৬ জুলাই রাত ১০ টার দিকে মেহেরপুর জেলা সদরের পিরোজপুর ইউপি’র ওয়ার্ড সদস্য মেহেরপুর সদর উপজেলা বিএনপি’র সাংগাঠনিক সম্পাদক গ্রাম্য ডা. নজরুল ইসলামকে কৌশলে বাড়ি থেকে বের করে ১৪/১৫ জনের একদল সন্ত্রাসী জোর পূর্বক অস্ত্রের মুখে বাড়ি থেকে প্রায় ২ কিলো মিটার দূরে দামুড়হুদার কালিয়াবকরি খালপাড়ে নিয়ে কুপিয়ে ও  জবাই করে দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে হত্যা করে লাশ ফেলে রেখে যায়। মেহেরপুরের কাঁঠালপোতা গ্রামের আফতাবউদ্দিনের ছেলে ২ সন্তানের জনক নজরুল ইসলাম খুনের নেপথ্যে সুস্পষ্ট কোন কারন জানা না গেলেও প্রাথমিকভাবে জানা যায়- চাঁদা না দেওয়ায় সন্ত্রাসীরা তাকে খুন করেছে। ওই খুনের ঘটনায় তার পরিবারের পক্ষ থেকে কেউ বাদি না হওয়ায় মেহেরপুর সদর থানা পুলিশ অজ্ঞাত ১৫/১৬ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। ওই খুনের সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে মুজিবনগরের শিবপুর গ্রাম থেকে একজন পেশাদার খুনিকে আটক করে রিমান্ডে নিলেও পুলিশ তেমন কোন তথ্য উদঘাটন করতে পারেনি।

চলতি বছরের ২৯ জুলাই সকাল পৌনে ১০ টার দিকে মেহেরপুর সদর উপজেলার আমদহ ইউনিয়ন পরিষদের সামনে মুজিবনগর উপজেলার মহাজনপুর ইউনিয়নের সাবেক সদস্য মুজিবনগর উপজেলা বিএনপি’র সদস্য আফছাউদ্দিন ওরফে আফাজুদ্দিন মেম্বারকে ৩ জন চিহ্নিত সন্ত্রাসী কুপিয়ে খুন করে ঘটনা স্থল ত্যাগ করে। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তাকে খুন করে প্রতিপক্ষ। মুজিবনগর উপজেলার পরানপুর গ্রামের মরহুম দোহা বক্সের ছেলে ২ সনৱানের জনক আফাজুদ্দিন মেম্বার খুনের ঘটনায় তার মামাত ভাই খুনের ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী আহসান হাবিব ওরফে মিরাজ মেহেরপুর সদর থানায় চিহ্নিত ৩ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। রাজনৈতিক কারনে পুলিশ এ মামলার আসামিদের ধরছে না বলে এলাকায় গুঞ্জন রয়েছে।

গত ১ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ১১ টার দিকে মেহেরপুর সদর উপজেলার আমঝুপি কোলার মোড় থেকে দর্জির কাজ শেষে মোটর সাইকেল চড়ে নিজ গ্রাম ময়ামারী ফেরার পথে চাঁদবিল-ময়ামারী গ্রামের মাঝে ছিনতাইকারীদের হাতে খুন হয় সাইফুল ইসলাম ওরফে রকি নামের এক যুবক। একই সময় ছিনতাইকারীদের হাতে আহত হন রকির পিতা গোলাম মোস্তফা। ছিনতাইকারীরা রাস্তার দু’ধারে গাছের সাথে রশি বেঁধে মোটর সাইকেলের গতি রোধ করে এবং রকিকে শ্বাস রোধ ও গাছের ডাল দিয়ে মাথায় আঘাত করে খুন করে মোটর সাইকেলটি নিয়ে এলাকা ত্যাগ করে। এঘটনায় রকির পিতা গোলাম মোস্তফা বাদি হয়ে অজ্ঞাত ৪ জনকে আসামি করে মেহেরপুর সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। পুলিশ ওই মামলায় আমঝুপি গ্রামের এক মাদকাসাক্ত যুবককে আটক করেছে। দর্জি রকিকেও একটি রাজনৈতিক দল তাদের কর্মী বলে আখ্যায়িত করার চেষ্ঠা করে।

সর্বশেষ গত ৬ সেপ্টেম্বর মধ্য রাতে মুজিবনগর উপজেলার মহাজনপুর ইউপি’র গোপালপুর গ্রামে ১৫/১৬ জনের একদল ডাকাত হানা দেয়। ডাকাতদল আরশাদ আলীর ছেলে হাসিবুল ইসলাম ওরফে বাবুর বাড়িসহ ৩ বাড়িতে ডাকাতি করে। ওইসময় প্রতিবেশীদের সাথে নিয়ে বাবু প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করলে ডাকাতদলের ছোঁড়া একটি গুলি তার মাথা ভেদ করে। এতে ঘটনা স্থলেই তার মত্যু হয়। এক সনৱানের জনক কৃষক বাবু ডাকাতদলের গুলিতে খুন হলেও বাবুর দলীয় পরিচয় দিতে বিএনপি ও আওয়ামীলীগ দু’টি দলই ছিল সক্রিয়। ওই হত্যা ও ডাকাতির ঘটনায় নিহত বাবুর চাচা রফিকুল ইসলাম বাদি হয়ে মুজিবনগর থানায় অজ্ঞাত ১৫/১৬ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছে।

শুধু রাজনৈতিক পরিচয় নিয়ে টানাটানি ও প্রতিপক্ষ প্রধান দু’টি দলের প্রভাব কে পাশ কাটিয়ে পুলিশ ওই সব মামলার আসামিদের গ্রেফতার কিংবা আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জ শীট দাখিল করতে পারছে না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এমন ইঙ্গিত দিয়েছেন।

পুলিশের একাধিক সূত্র মন্তব্য করতে গিয়ে বলেছেন, রাজনৈতিক কোন পরিচয় না থাকায় মেহেরপুর সদর উপজেলার কালীগাংনীর পাট ক্ষেতে আন্না হত্যা এবং মেহেরপুর যাদবপুর গ্রামের মাঠে গমক্ষেতে রাশিদা ও রাখি খুন গুম মামলার আসামিদের আটক করা সম্ভব হয়েছে।

এদিকে মেহেরপুরের বিভিন্ন গ্রামে-গঞ্জে প্রায় প্রতি রাতে চুরি ডাকাতি হচ্ছে। মেহেরপুর-আশরাফপুর, মেহেরপুর-মহাজনপুর, মেহেরপুর-মুজিবনগর, মেহেরপুর-যাদবপুরসহ গুরুত্বপূর্ণ সড়কে প্রায় প্রতি রাতে ঘটছে ছিনতাইয়ের ঘটনা। আম ও লিচুর মরশুমে মেহেরপুরে দক্ষিণ অঞ্চলের বিভিন্ন বাগানে চলেছিল নিরব চাঁদাবাজি। ভয়ে অনেক বাগান মালিক ও বাগান ক্রেতারা পুষ্ট হওয়ার আগেই ফল পেড়ে বাগান থেকে সরে আসে। এখনও গ্রাম-গঞ্জের বিভিন্ন স্থানে চলছে নিরব চাঁদাবাজি। প্রাণের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না।

এলাকায় খুন ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও চুরি-ডাকাতির ঘটনা বৃদ্ধি পাওয়ার পরও তার প্রতিকার না পেয়ে  মেহেরপুরে গ্রাম গঞ্জের মানুষ ফুঁসে ওঠেছে। এর জের ধরে গত ১৩সেপ্টেম্বর বিকেলে মেহেরপুরের সীমানৱবর্তী গ্রাম কাঁঠালপোতার পার্শ্ববর্তী দামুড়হুদার কালিয়াবকরি গ্রামের খালপাড়ে সন্দেহভাজন ৪ জনকে বসে থাকতে দেখে মেহেরপুর জেলা সদরের মোমিনপুর গ্রামের মৃত রাফাতুল্লার ছেলে আরমানকে গ্রামবাসি পিটিয়ে পুলিশে দেয়। দামুড়হুদা পুলিশ তাকে চুযাডাঙ্গা হাসপাতালে ভর্তি করে। একই সময় ৪ সদস্যের অপর জন মেহেরপুর সদর উপজেলার নতুন দরবেশপুর গ্রামের আইজুদ্দিনের ছেলে জাফরকে কাঁঠালপোতা গ্রামবাসী পিটিয়ে মেরে ফেলে। এদিকে ৩ দিন হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে আরমার গত ১৫ সেপ্টেম্বর চুয়াডাঙ্গা হাসপাতালে মারা যায়।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.