Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুর জেলায় নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে ২৬ মার্চ মহান সাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত

মেহেরপুর জেলায় নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে ২৬ মার্চ মহান সাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত

নিউজ ডেস্ক
মেহেরপুর জেলার তিন উপজেলায় সরকারি ও বেসরকারিভাবে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে ২৬ মার্চ জাতীয় দিবস পালিত হচ্ছে। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে স্থানীয় শহীদ সামসুজ্জোহা পার্কে ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে মেহেরপুরে সাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালনের কর্মসূচী শুরু হয়। সকাল সাড়ে ৬ টায় কলেজ মোড়স্থ শহীদ স্মৃতি সৌধে গনকবরে পুষ্পমাল্য অপর্ণ করা হয়। মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য জয়নাল আবেদীন,মেহেরপুর জেলা প্রশাসনের পক্ষে জেলা প্রশাসক জামালউর্দ্দীন আহমেদ,পুলিশ প্রশাসনের পক্ষে মেহেরপুরের পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন,মেহেরপুর এলজিইডি, মেহেরপুর জেলা আওয়ামীলীগ,শহর আওয়ামীলীগ,ছাত্রলীগ,যুবলীগ,বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি সহ বিভিন্ন সামাজিক ও পেশাজীবি সংগঠন শহীদ স্মৃতি সৌধে পুষ্প মাল্য অর্পণ করেন। সকাল ৮ টায় মেহেরপুর ষ্টেডিয়াম মাঠেজেলা প্রশাসক জামালউর্দ্দীন আহমেদ আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন এবং সালাম গ্রহণ করেন। এরপর বীর মুক্তিযোদ্ধা,পুলিশ বিএনসিসি,আনসার ও ভিডিপি,রোভার ও বয়স্কাউট,গার্লস গাইড,কাব এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী ও শিশু কিশোরদের সমাবেশ ,কুচকাওয়াজ এবং শরীর চর্চা প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। বেলা ১১ টায় মেহেরপুর শিশু একাডেমীর ব্যবস্থাপনায় শিশু একাডেমীতে শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বেলা সাড়ে ১১ টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে জেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। বিকেল ৪ টায় মেহেরপুর ষ্টেডিয়াম মাঠে সৌখিন ফুটবল প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়।
আমাদের মুজিবনগর প্রতিনিধি জানিয়েছেন,সকাল ৬ টায় তোপধবনির মধ্য দিয়ে মুজিবনগরে দিবসের কর্মসূচী শুরু হয়। সাড়ে ৬ টায় মুজিবনগর স্মৃতি সৌধে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন মুজিবনগর উপজেলা প্রশাসন,মুজিবনগর উপজেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠন,মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সহ বিভিন্ন সমাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। সকাল ৮ টায় মুজিবনগর উপজেলা প্রশাসন মাঠে কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়।
গাংনী প্রতিনিধি জানিয়েছে,রাতে তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে দিবসের কর্মসূচী শুরু হয়। সকাল সাড়ে ৬ টায় শহীদ স্মৃতি সৌধে পুষ্পমাল্য অর্পন এবং বেলা সাড়ে ৮ টায় কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়। সাড়ে ৯ টায় শেষ হয়। কিন্তু গতকালের সংঘর্ষের কারনে কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে ছিলো আতংকের ছোঁয়া বলে জানিয়েছেন গাংনীর বিশিষ্ট সাংবাদিক আবু হোসেন। তিনি বলেন,প্রতিবছর কুচকাওয়াজে ৪০ টির মতন প্রতিষ্ঠান অংশ নেয় এবার অংশ নিয়েছে হাতেগোনা কয়েকটা।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.