Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / মেহেরপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে আ.লীগের একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী মাঠে।। হাড্ডাহাড্ডি লড়ায়ের সম্ভবনা

মেহেরপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে আ.লীগের একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী মাঠে।। হাড্ডাহাড্ডি লড়ায়ের সম্ভবনা

001মুজাহিদ মুন্না, ২৩ ডিসেম্বর:
পৌরসভা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন দলীয়ভাবে হলেও জেলা পরিষদ নির্বাচন হবে নির্দলীয়ভাবে। আগামী ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে ভোট গ্রহন। ভোট আয়োজনের লক্ষে নির্বাচনবিধি ও আচরণবিধির খসড়া এবং ভোটার তালিকা তৈরির কাজ চুড়ান্ত করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

সংশোধিত অধ্যাদেশ জারির পরই জেলা পরিষদ নির্বাচন আয়োজনে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করে ইসি। যে কোনো নাগরিক জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারলেও ভোট দিতে পারবেন না। আইন অনুযায়ী প্রতিটি জেলায় ১ জন চেয়ারম্যান, ১৫ জন সাধারণ ও ৫ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নির্বাচিত হবেন। তবে নির্দলীয় বলা হলেও বাস্তবে বাংলাদেশের কোন নির্বাচনই দলীয় সমর্থন ছাড়া অনুষ্ঠিত হয় না। বিএনপি ও জাতীয় পার্টি জেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ গ্রহন না করলেও আওয়ামীলীগ এ নির্বাচনে অংশ গ্রহন করছে।

তারই ধারাবাহিকতায় মেহেরপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের সর্মথন পেয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক অ্যাড. মিয়াজান আলী। তিনি (কাপপিরিচ) প্রতীকে নিয়ে ভোট যুদ্ধ করছেন।

002এদিকে দলীয় সীধান্তের বাইরে গিয়ে চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি গোলাম রসুল (আনারস), গাংনী উপজেলা সভাপতি সাইদুজ্জামান খোকন (তালগাছ), মুজিবনগর সভাপতি জিয়া উদ্দিন বিশ্বাস (চসমা) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান (মোটরসাইকেল) প্রতীকে নির্বাচন করলেও তার প্রার্থীতা স্থগিত করা হয়েছে।

এদিকে জেলা পরিষদের নির্বাচনকে ঘিরে বেশ উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে মেহেরপুরে রাজনৈতিক অঙ্গণ। দলের বাইরে গিয়ে আওয়ামীলীগের তিন উপজেলা প্রধান বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় দলীয় নেতাকর্মীরা বিভক্ত হয়ে পড়েছে। আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী অ্যাড. মিয়াজানের সাথে আছে জেলা আওয়ামীলীগ। এছাড়াও মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মকবুল হোসেন ও শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি ইয়ারুল ইসলাম। আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সদর উপজেলা সভাপতি গোলাম রসুলের সাথে ভোট যুদ্ধে অংশ নিচ্ছেন জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক এমপি জয়নার আবেদীন, শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আক্কাস আলীসহ জেলা যুবলীগ।

দলের অপর দুই বিদ্রোহী প্রার্থী গাংনী উপজেলা সভাপতি সাইদুজ্জামান খোকন ও মুজিবনগর সভাপতি জিয়া উদ্দিন বিশ্বাস স্ব স্ব উপজেলায় একক প্রার্থী হওয়ার ফলে নির্বাচনে তাদের অবস্থাও অনেক শক্ত। তাই প্রথম জেলা পরিষদ নির্বাচনে কে নির্বাচিত হতে যাচ্ছে তা নিয়ে চলছে অনেক জল্পনা-কল্পনা। তবে সাধারণ ভোটাররা সরাসরি নির্বাচনে অংশ গ্রহন করতে না পারলেও তাদেও চাওয়া যেই নির্বাচিত হোক না কেন তারা যেন মেহেরপুরের উন্নয়নে ভ’মিকা রাখে।

003এদিকে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চলছে জোর প্রচার-প্রচারণা। তবে এ প্রচারণা নিজের গ্রহন যোগ্যতা ভোটারদেও কাছে বাড়ানোর জন্য প্রর্থীরা ভোটার ও ইউনিয়র পর্যায়ের নেতাদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন। আর তাই জেলা পরিষদ নির্বাচনকে মেহেরপুরের রাজনৈতিক মহলে ছড়াচ্ছে উত্তাপ।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামীলীগ সর্মথিত প্রার্থী অ্যাড. মিয়াজান আলী বলেন, দলীয় সর্মথন পেয়ে আমি জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছি। বিগত ৫ বছর জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসাবে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করছি। তাই নির্বাচনে তিনি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। তবে তিনি ভোট কেনাবেচা ঠেকাতে প্রশাসনের প্রতি আহবান জানিয়েছে।

আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সদর উপজেলা সভাপতি গোলাম রসুল বলেন, সাবেক এমপি জয়নাল আবেদীন, শহর সাধারণ সাধারণ সম্পাদক আক্কাস আলীসহ জেলা যুবলীগ ও তৃনমূল নেতাকর্মীরা আমার সাথে আছে। ভোটারদেও কাছে যাচ্ছি তারা আমাকে গ্রহন করছে। তিনি জয়ে ব্যাপারে আশাবাদী। তরব তিনি নির্বাচনে বিজিবি মোতায়েনের দাবি জানিয়েছেন।

জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের অপর দুই বিদ্রোহী প্রার্থী সাইদুজ্জামান খোকন ও জিয়া উদ্দিন বিশ্বাস জয়ের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যাক্ত করে ভোট কেনা বেচা ঠেকাতে প্রশাসনের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থীর বিষয়ে জানতে চাইলে মেহেরপুর-১ (সদর-মুজিবনগর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আ.লীগের সভাপতি ফরহাদ হোসেন বলেন, যেহেতেু এটা দলীয় কোন নির্বাচন নয়। নির্দলীয়ভাবে জেলা পরিষদের ভোট অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। দল থেকে একজনকে সর্মথন দিলেও বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে সাংগঠানিক ব্যাবস্থা নেওয়া যাচ্ছে না।

মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও জেলা পরিষদ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা পরিমল সিংহ বলেন, নির্বাচনে ভোট কেনাবেচা ঠেকানে প্রশাসক কাজ করছে। প্রমান ছাড়া আমরা কোন পদক্ষেপ গ্রহন করতে পারছি না। তবে লিখিত কোন অভিযোগ পাননি বলে তিনি জানান। তিনি আরো বলেন, অভিযোগ প্রমান পেলেই তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

প্রসঙ্গত, ২০১১ সালের ১৫ ডিসেম্বর তিন পার্বত্য জেলা বাদে দেশের ৬১টি জেলায় আওয়ামীলীগ নেতাদের জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ দেয় সরকার। জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনে মেহেরপুরের ২৬৯ জন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। তাদের মন জয় করতে মেহেরপুরে চেয়ারম্যান পদে ৫ জন, সাধারণ সদস্য পদে ৪৮ জন এবং সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ১৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করছেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.