Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুর থেকে মংলায় বেড়াতে গিয়ে ট্রলার ডুবিতে নিহত ৩ জনের লাশ নিজ নিজ গ্রামে দাফন

মেহেরপুর থেকে মংলায় বেড়াতে গিয়ে ট্রলার ডুবিতে নিহত ৩ জনের লাশ নিজ নিজ গ্রামে দাফন

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,মহাসিন আলী,১৫ সেপ্টেম্বর:

মেহেরপুর জেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে বাগেরহাটের মংলা বন্দর হয়ে সুন্দরবন ভ্রমনে যেতে ট্রলার ডুবিতে নিহত ৩ জনের লাশ বুধবার নিজ নিজ গ্রামে দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

নিহতদের পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, ট্রলার ডুবিতে নিহত মেহেরপুর সদর উপজেলার খোকসা গ্রামের দিনমজুর রফিকুল ইসলামের ছেলে রাজমিস্ত্রি জোগালে মাসিদুল ইসলামের (১৬) লাশ মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে বারটার দিকে গ্রামে এসে পৌছে। ওই দিন রাত ২টার দিকে খোকসা প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে গ্রাম্য কবরস্থানে দাফন করা হয়। মেহেরপুর শহরের ওয়াপদা সড়কের আলহাজ্জ মুক্তার হোসেনের ছেলে মেহেরপুর সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র মুস্তাফিজুর রহমান ওরফে মোহনের (১৫) লাশ গতকাল বুধবার ভোরে গ্রামে এসে পৌছে। সকাল ৮টায় মেহেরপুর সরকারী কলেজ মাঠে জানাজা শেষে তার লাশ মেহেরপুর পৌর কবরস্থানে দাফন করা হয়। অপরদিকে সদর উপজেলার গোপালপুর গ্রামের দিনমজুর রফিকুল ইসলামের ছেলে রাজমিস্ত্রি জোগালে শামিম হোসেনের (১৫) লাশ রাত সাড়ে বারটার দিকে গ্রামে এসে পৌছে। গতকাল বুধবার সকালে জানাজা শেষে তার লাশ গ্রাম্য কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এদিকে রাতে একে একে লাশ গ্রামে এসে পৌছানোর পর এলাকার উৎসুক মানুষের ভিড় জমে। আগে থেকে নিহতের আত্মীয় ¯^R‡biv নিহতদের বাড়িতে এসে অবস্থান করেন। রাতেই নিহতদের পিতা-মাতা ও নিকটত্মায়ীদের কান্নায় মেহেরপুরের আকাশ ভারি হয়ে ওঠে। নিহত ৩ তরুণের গ্রামের বাড়ির দুরুত্ব একেক জনের বাড়ি থেকে বেশ দুরে হলেও এলাকায় অনেকেই ৩ জনের লাশ দেখতে এবং শোকার্তদের শান্তনা দিতে যান। কিছু সময়ের জন্য হলেও ওই গ্রামগুলোতে মানুষের কাজের স্থবিরতা আসে। তাদের এই অকাল মৃত্যু শুধু  তাদের পরিবারের লোকজনই নয় এলাকার মানুষেরও মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে।

নিহত জনের পারিবারিক পরিচয় :

গোপালপুর গ্রামের আলী হোসেনের ১ ছেলে ও ১মেয়ের মধ্যে নিহত শামীম হোসেন বড়। তার বোন জেসমিন বিবাহিত। দিনমজুর পিতার সংসারে স্বচ্ছলতা আনতেই লেখাপড়া বন্ধ করে শামীম অল্প বয়সেই রাজমিস্ত্রি জোগালের কাজ শুরু করে। তার মাতা মেহেজান বেগম জীবিত।

নিহত মাসিদুল ইসলামের পিতা রফিকুল ইসলামও দিনমজুর। মাসিদুলের বড় ভাই মাসুম বিবাহিত এবং একমাত্র বোন রোকেয়া (৭) প্রথম শ্রেণীতে লেখাপড়া করে। তার মা মোর্শেদা বেগম ও পিতার দুঃখ ঘুচাতেই মাসিদুল অল্প বয়সেই রাজমিস্ত্রি জোগালের কাজ করত।

মেহেরপুর শহরের ওয়াপদা সড়কের আলহাজ্জ মুক্তার হোসেনের ২ ছেলে ও ২ মেয়ের মধ্যে নিহত নিহত অপর তরুণ মুস্তাফিজুর রহমান ওরফে মোহন তৃতীয়। মোহন মেহেরপুর সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র। তার বড় ভাই মিলন রয়েছেন কোরিয়ায়। প্রায় ২০ বছর আগে মোহনের পিতা আলহাজ  মুক্তার হোসেন নিজ গ্রাম কদমতলা খোকসা ছেড়ে মেহেরপুর ওয়াপদা মোড় এলাকার এসে বসবাস করছেন।

উলে­খ্য, সোমবার মেহেরপুর জেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে ২টি বাস যোগে শতাধিক কিশোর ও যুবক মংলা বন্দর ও সুন্দরবন ভ্রমনে যায়। একটি ট্রলার যোগে অর্ধশতাধিক লোক সুন্দরবনের করমজলের উদ্দেশ্যে মংলা বন্দর থেকে রওনা দেয়। ট্রলার ছাড়ার কিছুক্ষন পরেই ট্রলারটি উল্টে যায়। এতে ট্র্র্রলারের যাত্রীরা সাঁতরে তীরে আসলেও  শামিম, মাসিদুল ও মোহন নিখোঁজ হয়। একদিন পর মঙ্গলবার সকাল ও রাতে তিন দফায় মংলা বন্দরের কোস্ট গার্ড কেন্দ্রের সামনের নদী থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.