Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুর থেকে মংলায় বেড়াতে গিয়ে ট্রলার ডুবি।। নিখোঁজ ৩ জনের লাশ উদ্ধার ।। এলাকায় শোকের মাতম

মেহেরপুর থেকে মংলায় বেড়াতে গিয়ে ট্রলার ডুবি।। নিখোঁজ ৩ জনের লাশ উদ্ধার ।। এলাকায় শোকের মাতম

আপডেট

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,মহাসিন আলী,১৪ সেপ্টেম্বর:

ঈদ আনন্দ করতে মেহেরপুর জেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে বাগেরহাটের মংলা বন্দর হয়ে সুন্দরবন ভ্রমনে যেতে ট্রলার ডুবিতে নিখোঁজ ৩ জন পর্যটকের গলিত লাশ একদিন পর পশুর নদীর পর থেকে উদ্ধার করা হযেছে। এ ঘটনায় মংলা থানার এস আই শওকত হোসেন বাদি হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় ট্রলার চালক রুবেল এবং আল আমিনকে আসামি করা হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার মংলার কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনী সদস্যরা মংলা বন্দরের কোস্ট গার্ড কেন্দ্রের সামনের নদী থেকে ৩ জনের লাশ উদ্ধার করে মংলা থানায় হস্তান্তর করেন। নিহতের পরিবার মেহেরপুর সদর উপজেলার খোকসা গ্রামের মাসিদুল ইসলাম (১৬), গোপালপুর গ্রামের শামীম হোসেন (১৫) এবং মেহেরপুর শহরের ওয়াপদা সড়কের স্কুল ছাত্র মোহন (১৫) এর লাশ শনাক্ত করে লাশ গ্রহণ করেন। এদিকে নিখোঁজ ৩ জনের মৃত্যুর খবরে গোটা এলাকায় বইছে শোকের মাতম বইছে।

এদিকে আজ মঙ্গলবার সকালে নিহত ৩ জনের পরিবারের সদস্যরা মংলা বন্দর এলাকায় পৌছে। নিখোঁজ ৩ জনকে জীবিত পাওয়ার আশায় নদী পানে চেয়ে বসে থাকে। এক পর্যায়ে মংলা বন্দরের কোস্ট গার্ড কেন্দ্রের সামনের নদী থেকে সকাল সাতটায় মেহেরপুর সদর উপজেলার খোকসা শেখ পাড়ার দিনমজুর রফিকুল ইসলামের ছেলে রাজমিস্ত্রি জোগালে মাসিদুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করে। সকাল আটটার দিকে গোপালপুর গ্রামের দিনমজুর আলী হোসেনের ছেলে রাজমিস্ত্রি জোগালে শামীম হোসেনের লাশ এবং সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে মেহেরপুর শহরের ওয়াপদা সড়কের আলহাজ্জ মুক্তার হোসেনের ছেলে মুস্তাফিজুর রহমান ওরফে মোহনের লাশ উদ্ধার করা হয়। ৩ টি লাশই নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ড কর্তৃপক্ষ মংলা থানায় হস্তান্তর করেন। বাগেরহাট জেলা প্রশাসকের অনুমনিত নিয়ে মাসিদুল ও শামীমের লাশ তার পরিবার গ্রহণ করেন। আর রাত সাড়ে নয়টার দিকে মোহন ও শামীমের লাশ তার পরিবারের লোকজন মংলা থানা পুলিশের কাছ থেকে নিয়ে র বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। রাত পৌনে ১ টার দিকে সকালে উদ্ধার হওয়া দুটি লাশ মেহেরপুরেও নিজ নিজ বাড়ি এসে পৌছিয়েছে। সনদ্ধ্যায় উদ্ধার হওয়া মোহনের লাশ মংলা থানায় রয়েছে। বুধবার সকালে লাশ পরিবারের লোকজনের কাছে তুলে দেবে মংলা থানা পুলিশ। এ বিষয়ে মংলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জালাল উদ্দীন  রাতে বলেন, কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনী কর্তৃপক্ষ লাশ থানায় হস্তান্তর করার পর নিহতদের পরিবারের সদস্যরা লাশ শনাক্ত করেন। পরে তাদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়। নিহত ৩ জনের পারিবারিক সুত্র জানিয়েছে, রাতেই লাশগুলো নিজ নিজ গ্রামে দাফনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

উলে­খ্য, গত সোমবার মেহেরপুর জেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে ২টি বাস যোগে শতাধিক লোক মংলা বন্দর ও সুন্দরবন ভ্রমনে যায়। একটি ট্রলার যোগে অর্ধশতাধিক লোক সুন্দরবনের করমজলের উদ্দেশ্যে মংলা বন্দর থেকে রওনা দেয়। ট্রলার ছাড়ার কিছুক্ষন পরেই ট্রলার উল্টে যায়। এতে ট্র্র্রলারের যাত্রীরা তীরে আসলেও  শামিম, মাসিদুল ও মোহন নামের ৩ জন নিখোঁজ হয়।

সামবার দুপুরে ভ্রমনকারীরা বাসযোগে মেহেরপুর ফেরার পথে খুলনার খানজাহান আলী সেতুর অদুরে তাদের বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পার্শ্ববর্তী খাদে পড়ে যায়। এতে অন্ততঃ ৪০ জন আহত হয়। এদের মধ্যে ২৩ জনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.