Templates by BIGtheme NET
Home / নির্বাচন / মেহেরপুর পৌর নির্বাচন :: ২ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে লড়াই হবে ত্রিমুখী

মেহেরপুর পৌর নির্বাচন :: ২ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে লড়াই হবে ত্রিমুখী

মেহেরপুর নিউজ, ১০ এপ্রিল:

আগামী ২৫ এপ্রিল মেহেরপুর পৌরসভা নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা প্রচার প্রচারণা নিয়ে ব্যাস্ত সময় পার করছে। নির্বাচনী প্রতীক পাওয়ার পর কাক ডাকা ভোর থেকে শুরু করে গভির রাত পর্যন্ত নিজ নির্বাচনী এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা। এনিয়ে মেহেরপুর নিউজ তুলে ধরে প্রতিটি ওয়ার্ডের সাধারণ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের নির্বাচনের খবর। প্রথম ধাপে আজ তুলে ধরা হচ্ছে পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীদের ভোট যুদ্ধের খবর। মেহেরপুর নিউজের প্রধান প্রতিবেদক মিজানুর রহমানের ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজ ২য় পর্ব।

২ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে লড়ছেন ৬ জন প্রার্থী। তারা হলেন, বিএনপির সমর্থিত প্রার্থী পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক কাউন্সিলর আবু ওবাইদুল্লাহ সেন্টু ( ব্ল্যাক বোর্ড) বর্তমান কাউন্সিলর সদর উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আল মামুন (টেবিল ল্যাম্প), গত নির্বাচনে সামান্য ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হওয়া ইয়াসিন আলী শামিম (পানির বোতল) , নতুন মুখ হিসেবে জেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য মিজানুর রহমান জনি( পাঞ্জাবি), যুবদল নেতা ইমন বিশ্বাস (উট পাখি) ও আব্দুস সালাম (ডালিম) । অপেক্ষিত নিম্ম শ্রেণী ও সংখ্যা লঘু ভোটারদের বাস হচ্ছে শহরের ২ নম্বর ওয়ার্ডে। থানাপাড়া, মুখার্জিপাড়া, বোস পাড়ার উত্তর অংশ, শাহাজী পাড়া, বড়বাজার পাড়া, সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পাড়া, হালদার পাড়া ও মালো পাড়ার ৩ হাজার ১শ ৮৯ জন ভোটার নিয়ে ২ নম্বর ওয়ার্ড গঠিত। এদের মধ্যে ৫ শতাধিক রয়েছে সংখ্যালঘু ভোটার। বর্তমান কাউন্সিলর আল মামুন ৬ বছর দায়িত্ব পালন করলেও এলাকার উন্নয়নে তেমন কোন ভুমিকা রাখতে পারেননি বলে দাবি করছেন ভোটারা। তাই এবারের নির্বাচনে বিএনপির সমর্থিত প্রার্থী পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক কাউন্সিলর আবু ওবাইদুল্লাহ সেন্টু, গত নির্বাচনে সামন্য ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হওয়া ইয়াসিন আলী শামিম ও যুবলীগ নেতা মিজানুর রহমানের মধ্যে ত্রিমূখী লড়াই হতে পারে বলে সাধারণ ভোটাদের ধারনা। তবে আল মামুনও লাড়াইয়ে ফিরতে পারেন বলে ধারনা করা হচ্ছে।
আল মামুন:

শহরের ঘাটপাড়ার আব্দুল খালেকের ৭ পুত্র ও ৪ কন্যা সন্তানের ২য় সন্তান আল মামুন। ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগের রাজনীতি করে ওঠে আসেন তিনি। পরে সদর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হন। গত নির্বাচনে প্রথম বারের মত প্রার্থী হয়ে হেভিওয়েট প্রার্থী তৎকালীন কাউন্সিলর আবু ওবাইদুল্লাহ সেন্টু ও ইয়াসিন আলী শামিমকে পিছনে ফেলে কাউন্সিলর নির্বাচিত হন তিনি। তাকে নির্বাচিত করে এলাকার ভোটার যে উন্নয়নের স্বপ্ন দেখেছিলেন তার পূরণে তিনি ব্যার্থ হযেছেন বলে ভোটারদের দাবি। তবে তিনি দাবি করেন তার সময়ে ওয়ার্ডের ৭০ ভাগ কাজ সমাপ্ত হয়েছে। এবারের নির্বাচনে অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করার জন্য প্রার্থী হয়েছেন। তিনি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন বিএনপির সমর্থিত প্রার্থী আবু ওবাইদুল্লাহ সেন্টুর সাথে তার লড়াই হবে।
আবু ওবাইদুল্লাহ সেন্টু:

শহরের বড় বাজার পাড়ার রহমান বিশ্বাসের ৮ সন্তানের ৫ম সেন্টু। পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগে দুইবার পৌর সভার কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন। ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন দীর্ঘদিন। গত নির্বাচনে সামান্য ভোটের ব্যবধানে আল মামুনের কাজে পরাজিত হলেও এবার তিনি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদি। তিনি বলেন দীর্ঘদিন এই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হিসেবে ও ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে এ ওয়ার্ডের প্রচুর উন্নয়ন করেছি। কিন্তু গত ৬ বছরে আমার অবর্তমানে এখানে তেমন কোন উন্নয়ন হয়নি। তিনি নির্বাচিত হলে তার অসমাপ্ত কাজ শেষ করার প্রত্যায় ব্যক্ত করেন। তবে তিনি বলেন এবারও মামুন ও শামিমের সাথেই তার মূল লড়াই হবে।
ইয়াসিন আলী শামীম:

শহরের বড় বাজার এলাকার গোলাম সোলাইমানের ৪র্থ সন্তানের মধ্যে ২য় সন্তান । এলাকার  সমাজ সেবক  হিসেবে পরিচিত ইয়াসিন আলী শামিম। তিনি বিগত তিনি তিনবার নির্বাচনে অংশ নিয়ে ২ বার দ্বিতীয় ও একবার তৃতীয় হলেও হাল ছাড়ার পাত্র নন তিনি। তিনি বলেন সারা বছর সমাজ সেবা করলেও ভোটের সময় তিনি টাকার কাছে হেরে যান। তবে এবার তিনি সাধারণ ভোটারদের কাছে দারুণ সাড়া পাচ্ছেন বলে জানান। বর্তমান কাউন্সির শেষ সময়ে এসে কিছুটা কাজ করেছেন বলে তিনি মন্তব্য করে বলেন এবারও সেন্টু ও মামুনের সাথে তার মূল লড়াই হবে।
মিজানুর রহমান জনি:

বোসপাড়ার মতিয়ার রহমান খোকনের একমাত্র পুত্র যুবলীগ কর্মী মিজানুর রহমান জনি এবার প্রথম বারের মত নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। এলাকার তরুণদের মধ্যে তার ব্যপক জনপ্রিয়তা থাকায় অন্য প্রার্থীদের কাছে তিনিও ফ্যক্ট হয়ে দাড়িয়েছেন। যে কোন অনিয়মে প্রতিবাদি কন্ঠ হিসেবে পরিচিত জনি তার কর্মীদের নির্বাচনে বাধা দেওয়ার অভিযোগ করে বলেন, তিনি নির্বাচিত হলে এলাকার ঝওড় পড়া শিশুদেও স্কুল মুখি করা, শিশুদের বিনদনের জন্য শিশু পার্ক তৈরি করা ও মসজিদ এবং মন্দিরের উন্নয়নে কাজ কারর অঙ্গিকার করেন। তিনি বলেন নির্বাচনে সেন্টুর সাথে তার মূল লড়াই হবে।
আব্দুস সালাম:

শহরের ঘাট পাড়ার জলিম উদ্দিন শেখের ৩ সন্তানের বড় আব্দুস সালাম। প্রথম বারের মত নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। তিনিও এলাকায় হেভিওয়েট প্রার্থী হিসেবে সাড়া ফেলেছেন। ব্যবসার পাশাপাশি তিনি সময় পেলেই সমাজসেবা করেন। ১ কন্য সন্তানের জনক আব্দুস সালাম নির্বাচিত হলে এলাকার উন্নয়ন করে মডেল ওয়ার্ড গঠন করতে চাই। তিনি মনে করেন শামিমের সাথে তার মূল লাড়াই হবে।
ইমন বিশ্বাস:

নীলমনি সীনামা হল পাড়ার আব্দুস সাত্তার বিশ্বাসের ৫ সন্তানের মধ্যে বড় ইমন বিশ্বাস। জাতীয়তাবাদী দলের কর্মী হিসেবে এলাকায় জনপ্রিয়তা রয়েছে তার। অনেক আগে থেকে প্রস্তুতি নিয়ে এবার প্রথম বারের মত নির্বাচন করছেন তিনি জয়ের ব্যাপারে সমান আশাবাদি। তিনি নির্বাচিত হলে মেডিক্যাল ক্যাম্প, নিরক্ষরকতা দূর করণ ও কারগরী শিক্ষার প্রসারে কাজ করার অঙ্গিকার করেন। তবে তিনি নির্বাচনে সিসি ক্যামেরা সবানোর দাবি করেছেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful