Templates by BIGtheme NET
Home / নির্বাচন / মেহেরপুর পৌর নির্বাচন :: ৪ নম্বর ওয়ার্ডে রহিম-ইভানের হাড্ডাহাড্ডি ভোটযুদ্ধ

মেহেরপুর পৌর নির্বাচন :: ৪ নম্বর ওয়ার্ডে রহিম-ইভানের হাড্ডাহাড্ডি ভোটযুদ্ধ

মেহেরপুর নিউজ,১৩ এপ্রিল:
আগামী ২৫ এপ্রিল অনুষ্ঠেয় মেহেরপুর পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে সাধারণকাউন্সিলর প্রার্থীরা প্রচার প্রচারণা নিয়ে ব্যাস্ত সময় পার করছে। নির্বাচনী প্রতীক পাওয়ার পর কাক ডাকা ভোর থেকে শুরু করে গভির রাত পর্যন্ত নিজ নির্বাচনী এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা। এনিয়ে মেহেরপুর নিউজে তুলে ধরা হচ্ছে সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীদের নির্বাচনের খবর। আমাদের প্রধান প্রতিবেদক মিজানুর রহমানের ধারাবাহিক প্রতিবেদনের পঞ্চম পর্বে আজ তুলে ধরা হচ্ছে পৌরসভার ৪ নম্বরর ওয়ার্ডের সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীদের ভোট যুদ্ধের খবর।
এ ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে লড়ছেন ৯ জন প্রার্থী। তারা হলেন মীর মাসুদ রানা (পানির বোতল), আব্দুস সালাম (পাঞ্জাবি), সাবেক কাউন্সিলর আব্দুর রহিম (স্কুরু ড্রাইভার), বর্তমান কাউন্সিলর রিয়াজ উদ্দিন (ব্লাক বোড), শাকিল রাব্বি ইভান (ফাইল টেবিল), মহিবুল ইসলাম (ডালিম), সিরাজুল ইসলাম (ব্রিজ), আব্দুল হাদী (উট পাখি), জিয়ারুল ইসলাম (টেবিল ল্যাপ)।
মেহেরপুর শহরের খাঁ পাড়া উত্তর, তাঁতি পাড়া উত্তর, নতুন পাড়া, ফুল বাগানপাড়া, বেড় পাড়া, মাঠপাড়া, শেখপাড়া, হটাৎ পাড়া এবং কাঁলাচাদপুরের ৪ হাজার ৫শ ৮৯ জন ভোটার নিয়ে পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ড। এ ওয়ার্ড থেকে এবছর সর্ব্বোচ ৯ জন প্রার্থী কাউন্সিলর পদে প্রতিন্দীতা করলেও সাবেক কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা আব্দুর রহিম ও শাকিল রাব্বি ইভানের মধ্যেই একজন কাউন্সিলর নির্বাচিত হবেন এমনটাই মনে করেন ভোটাররা।
আব্দুর রহিম:

শহরের কাঁলাচাদপুুরের একরামুল হকের ৩ সন্তানের বড় সন্তান আব্দুর রহিম এবার স্কুরু ড্রাইভার প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন । তিনি এ নির্বাচনে বিএনপির সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন। এ নিয়ে ৪ বার কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করে ২ বার কাউন্সির হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। রাজনৈতিক জীবনে তিনি বিএনপির রাজনীতি করেন। জেলা বিএনপির দপ্তর সম্পদকের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি দাবি করেন এর আগে দুইবার এ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হিসেবে ব্যাপক উন্নয়ন করছেন। কিন্তু বর্তমান কাউন্সিলর রিয়াজ উদ্দিন ৬ বছরে এলাকার কোন উন্নয়ন করতে পারেনি । তাই ভোটরা তার থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন বলে তিনি দাবি করেন। তিনি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে বরেছেন শাকিল রাব্বি ইভানের সাথে তার মুল ভোট যুদ্ধ হবে।
আব্দুল হাদি:

শহরের ফুল বাগান পাড়ার আজিম উদ্দিন মাষ্টারের ২ পুত্র ও ৬ কন্যার বড় সন্তান আব্দুল হাদি জাতীয় পার্টির সমর্থন নিয়ে উঁপাখি প্রতীকে এবার প্রথম বারের মত নির্বাচনে অংশ গ্রহন করছেন। তিনি সদর উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বলেন নির্বাচিত হতে পারলে এলাকার ড্রেনেজ ব্যাবস্থা জোরদার, মশা নিধন ও মাদক বিরোধী আন্দোলন করে সুন্দর ও পরিচ্ছন ওয়ার্ড গঠন করবো। তিনি মনে করেন আব্দুর রহিম ও ইভানের সাথে তার ভোট যুদ্ধ হবে।
শাকিল রাব্বি ইভান:

শহরের শেখ পাড়ার ফজলে রাব্বির ৬ সন্তানের ছোট সন্তান শাকিল রাব্বি ইভান গত নির্বাচনে অংশ গ্রহন করে অল্প ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। এবারের নির্বাচনে তিনি ফাইল টেবিল প্রতীক নিয়ে কোমর বেধে মাঠে নেমেছেন। তিনি জয়ের ব্যাপাওে শতভাগ আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। তিনি মনে করেন তার জয়ের পেছনে সব চেয়ে বড় বাধা আব্দুর রহিম। তবে তিনি ভোটারদের প্রতি আস্থা রেখে বলেছেন নির্বাচিত হলে এলাকার উন্নয়নে নিজেকে বিলিয়ে দিবেন।
মহিবুল ইসলাম:

শহরের শেখ পাড়ার মনিরুল ইসলামের ৩ ছেলে ৩ মেয়ের মধ্যে ২য় সন্তান মহিবুল ইসলাম এবার প্রথম বারের মত ডালিম প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। তিনি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন তার সাথে আব্দুর রহিমের ভোট যুদ্ধ হবে। নির্বাচিত হলে তিনি এলাকার সার্বিক উন্নয়ন করবেন বলে জানান।
মীর মাসুদ রানা:

শহরের শেখ পাড়ার আশরাফ হোসেনের ২ পুত্র ও ২ কন্যা সন্তানের ছোট মীর মাসুদ রানা পানির বোতল প্রতীক নিয়ে এবার প্রথম বারের মত নির্বাচন করছেন। তিনি নির্বাচিত হলে এলাকার মাদক ও বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ সহ ওয়ার্ডের উন্নয়নে নিজেকে বিলিয়ে দিতে চান। তিনি মনে করেন আব্দুর রহিমের সাথে তার মূল ভোট যুদ্ধ হবে।
আব্দুস সালাম:

শহরের নতুন পাড়ার আব্দু সামাদের একমাত্র পুত্র আব্দুস সালাম। তিনি ওয়ার্ড যুবলীগের আহবায়কের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি এলাকার উন্নয়নে ব্রত নিয়ে এবারের নির্বাচনে পাঞ্জাবি প্রতীক নিয়ে অংশ গ্রহন করছেন। তিনিও মনে করেন আব্দুর রহিমের সাথে তার মূল ভোট যুদ্ধ হবে।
রিয়াজ উদ্দিন:

বর্তমান কাউন্সির হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন রিয়াজ উদ্দিন। এবারের নির্বাচনে ব্লাক বোড প্রতীক নিয়ে লড়ছেন। গত নির্বাচনে প্রথম বারের মত নির্বাচন করে হেভিওয়েট প্রার্থী ত্বকালিন কাউন্সিলর আব্দুর রহিম ও শাকিল রাব্বি ইভানকে পিছনে ফেলে চমক সৃষ্টি করে কাউন্সিলর নির্বাচিত হন তিনি। তবে নির্বাচনী প্রতিশ্রæতি অনুয়ায়ী তেম কোন উন্নয়ন করতে না পারায় এবারের নির্বাচনে পিছিয়ে পড়েছেন। তবে তিনি মনে করেন পৌরসভার জটিলতার কারনে শহরের কোন এলাকাতেই তেমন কোন উন্নয়ন হয়নি। তবে তিনি এ ওয়ার্ডের বেশকিছু উন্নয়ন কাজ করেছেন বলে দাবি করে এবার অসামাপ্তকাজ সমাপ্ত করার জন্য ভোটারদের তার পাশে থাকার অনুরোধ করেছেন।
জিয়ারুল ইসলাম:

শহরের কাঁলাচাদপুরের আব্দুল লতিব বিশ্বাসের ৮ সন্তানের ৫ম সন্তান ব্যবসায়ী জিয়ারুল ইসলাম। অনেকটা ক্ষোভের বহি প্রকাশ ঘটাতে এবারের নির্বাচনে টেবিল ল্যাপ ব্রিজ প্রতীক নিয়ে অংশ গ্রহন করেছেন। ক্ষোভের কারন গত নির্বাচনে আলোচনা সাপেক্ষে আব্দুর রহিম প্রার্থী করা হয়েছিল। কথা ছিল এবার তাকে এলাকার পক্ষ থেকে প্রার্থী করা হবে। কিন্তু কথা রাখেনি বলে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তবে তিনি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদি। তিনি মনে করেন ইভানের সাথে তার ভোট যুদ্ধ হবে।
সিরাজুল ইসলাম:

শহরের কাঁলাচাদপুরের তাফিল উদ্দিনের ৭ সন্তানের ৫ম সন্তান সিরাজুল ইসলাম। এবার ব্রিজ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। তিনি দিনমজুরের কাজ করেন। গত নির্বাচনে তিনি অংশ নিয়ে জামাতন ফিরে পেয়েছিলেন। তবে এবারের নির্বাচনে তিনি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদি। তিনি বলেন জামাতন ফিরে পাওয়ার কারনে এবারের নির্বাচনে আরো বেশি আগ্রহ নিয়ে কাজ করছি। তিনি নির্বাচিত হলে এলাকায় নতুন কিছু করে দেখাতে চান।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.