Templates by BIGtheme NET
Home / নির্বাচন / মেহেরপুর পৌর নির্বাচন :: ৫ নম্বর ওয়ার্ডে লড়াই হবে জাফর-হাসনাতের মধ্যে

মেহেরপুর পৌর নির্বাচন :: ৫ নম্বর ওয়ার্ডে লড়াই হবে জাফর-হাসনাতের মধ্যে

মেহেরপুর নিউজ,১৪ এপ্রিল:
আগামী ২৫ এপ্রিল অনুষ্ঠেয় মেহেরপুর পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে মেয়র প্রার্থীদের পাশাপাশি সাধারণ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা প্রচার প্রচারণা নিয়ে ব্যাস্ত সময় পার করছে। নির্বাচনী প্রতীক পাওয়ার পর কাক ডাকা ভোর থেকে শুরু করে গভির রাত পর্যন্ত নিজ নির্বাচনী এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা। এনিয়ে মেহেরপুর নিউজে তুলে ধরা হচ্ছে প্রতিটি ওয়ার্ডের সাধারণ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের নির্বাচনের খবর। আমার প্রধান প্রতিবেদক মিজানুর রহমানের ধারাবাহিক প্রতিবেদনের ৬ষ্ঠ পর্বে আজ তুলে ধরা হচ্ছে পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীদের ভোট যুদ্ধের খবর।
এ ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে লড়ছেন ৬ জন প্রার্থী। তারা হলেন রাজু আহামেদ, (টেবিল ল্যাম্প), জাফর ইকবাল (উট পাখি), এসএম আবুল হাসনাথ ( পানির বোতল), মোস্তফা আহামেদ (ব্রিজ), খাইরুল বাশার (ডালিম) এবং মনিরুল ইসলাম (পাঞ্জাবি)।
মেহেরপুর চল্ফপাড়া, বিএডিসি পাড়া, হটাৎ পাড়া, ক্যাশবপাড়া, কাথুলী সড়ক, দিঘিরপাড়া, ওয়াপদা পাড়ার ২ হাজার ৯শ ৮৭ জন ভোটার নিয়ে পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ড। বর্তমান কাউন্সিলর আব্দুর রফিক পরপর দুবার পৌরসভার কাউন্সিলর নির্বাচিত হলেও বর্তমানে তিনি জনবিচ্ছিন হয়ে পড়াই এবার নিশ্চত পরাজয় জেনে এ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন না। তবে এ ওয়ার্ড থেকে এবারের নির্বাচনে ৬ জন প্রার্থী কাউন্সিলর পদে প্রতিন্দীতা করছেন। তবে ভোটারদের ধারনো সদর উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি ও সাবেক ইউপি সদস্য জাফর ইকবাল ও বিএনপি নেতা এসএম আবুল হাসনাথ মধ্যে একজনই কাউন্সিলর নির্বাচিত হবেন।
জাফর ইকবাল:

শহরের দিঘির পাড়ার আব্দুল সাত্তারের ২ পুত্র ১ কন্যার মধ্যে ছোট সন্তান জাফর ইকবাল এর আগে আমঝুপি ইউপি সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তখন পৌরসভার নিজের ভোটার স্থানান্তর করে পৌরসভার দিঘিরপাড়ায় ভোটার হন। এবারের নির্বাচনে উট পাখি প্রতীক নিয়ে কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে প্রথম বারের মত নির্বাচন করছেন। তিনি সদর উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি হিসেবে তার সাংগঠানিক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়াও ওয়াপদা মোড় ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হিসেবেই মানুষের সুখে-দুখে সব সময় পাশে থাকার চেষ্টা করেছেন। তাই এবারের নির্বাচনে তিনি কাউন্সিলরের পদ বাগিয়ে নিবে এমনটাই মনে করেন সাধারণ ভোটারা। এবিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিগত দিনে যারা এ ওয়ার্ডের দায়িত্ব পালন করেছেন তারা এলাকবার কোন উন্নয়ন কাজ করেননি। তিনি নির্বাচিত হলে এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে পর্যায় ক্রমে উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনা করবেন বলে জানান।
এসএম আবুল হাসনাত:

শহরের চক্রপাড়ার অ্যাড. আব্দুল হামিদের ৩ সন্তানের বড় সন্তান এসএম আবুল হাসনাত। এবার দ্বিতীয় বারের মত পানির বোতল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। গত নির্বাচনে সামান্য ভোটের ব্যবধানে বর্তমান কাউন্সিলর আব্দুর রফিকের কাছে পরাজিত হলেও এবার তিনি নির্বাচিত হবেন বলে জানান তিনি। পেশাগত জীবনে ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত হলেও বিএনপির রাজনীতি করে সকল সময় মানুষের পাশাপাশি থাকেন। তাই এবারের নির্বাচনে তিনি নির্বাচিত হতে পারেন বলে অনেকেই মনে করছেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, সব সময় মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। আগামীতে তিনি নির্বাচিত হলে এলাকার উন্নয়নে নিজেকে বিলিয়ে দিতে চান। তবে তিনি মনে করে জাফর ইকবালের সাথে তার ভোট যুদ্ধ হবে।
মনিরুল ইসলাম:

চক্রপাড়ার নুর মোহাম্মদের ৪ সন্তানের ছোট মনিরুল ইসলাম এবার প্রথমবারের মত পৌর নির্বাচনে পাঞ্জাবি প্রতীক নিয়ে কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন। পেশাগত জীবনে ইলেক্টশিয়ানের কাজ করেন। ওয়ার্ড যুবদলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি নির্বাচিত হলে এলাকার ড্রেনেজে ব্যবস্থা, মশা নিধন করা সঞ জাবতীয় উন্নয়ন কাজ করবেন বলে জানান। এছাড়াও তিনি কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে তার ভাতার একটা অংশ জনকল্যানে ব্যয় করবেন বলে জানান। তিনি মনের করে যে কেও এ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচিত হতে পারেন।
মোস্তাক আহামেদ:

শহরের দিঘিরপাড়ার আফজাল হোসেনের ৬ সন্তানের ৪র্থ সন্তান মোস্তাক আহামেদ এবারের নির্বাচনে ব্রিজ প্রতীক নিয়ে ২য় বারের মত কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন। ব্যবসার পাশাপাশি কৃষি কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করা মোস্তাক আহামেদ কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে প্রাপ্ত ভাতা গরীব দুখি মানুষের পিছনে ব্যয় করবে বলে জানান। তিনি জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদি বলে জানান। নির্বাচিত হলে নিজেকে ওয়ার্ডের উন্নয়নে নিয়োজিত রাখবেন তিনি।
রাজু আহামেদ মিন্টু:

দিঘিরপাড়া সাবেক মেম্বর আব্দুল গনীর ৮ সন্তানের ৭ম সন্তান রাজু আহামেদ মিন্টু তার বাবার জনপ্রিয়তা ও নিজের কাজ দিয়ে এলাকার মত জয় করেবেন বলে দাবি করেন। তিনি নির্বাচিত হলে ৫ নম্বর ওয়ার্ডকে মডেল ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তরবেন বলে জানান। টেবিল ল্যাম্প প্রতীক নিয়ে জয়ের ব্যাপারে তিনি আশাবাদি। এসএসসি পাশ করা রাজু আহামেদ সকলের কাজে দোয়া ও সমর্থন চেয়েছেন।
খাইরুল বাশার:

দিঘিরপাড়ার খেজতম আলীর ৭ সন্তানের বড় সন্তান খাইরুল বাশার আমঝুপি ইউনিয়নের সাবেক সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এবারের নির্বাচনে ডালিম প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। গত নির্বাচনে তিনি প্রার্থী হয়ে পরাজিত হন। তবে এবারের নির্বচনে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদি তিনি। নির্বাচিত হলে এলাকাবাসীর সুবিধামত কাজ করার অঙ্গিকার করেন। তার সাথে হাসনাতের ভোট যুদ্ধ হবে বলে তিনি মনে করেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.