Templates by BIGtheme NET
Home / নির্বাচন / মেহেরপুর পৌর নির্বাচন :: ৯ নম্বর ওয়ার্ডে ত্রিমুখী লড়াই

মেহেরপুর পৌর নির্বাচন :: ৯ নম্বর ওয়ার্ডে ত্রিমুখী লড়াই

মেহেরপুর নিউজ,১৯ এপ্রিল:
আগামী ২৫ এপ্রিল অনুষ্ঠেয় মেহেরপুর পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে সাধারণ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা প্রচার প্রচারণা নিয়ে ব্যাস্ত সময় পার করছে। নির্বাচনী প্রতীক পাওয়ার পর কাক ডাকা ভোর থেকে শুরু করে গভির রাত পর্যন্ত নিজ নির্বাচনী এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা। এনিয়ে মেহেরপুর নিউজে তুলে ধরা হচ্ছে মেয়র পদের পাশাপাশি প্রতিটি ওয়ার্ডের সাধারণ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের নির্বাচনের খবর। ৮ম পর্বে আজ তুলে ধরা হচ্ছে পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীদের ভোট যুদ্ধের খবর।
মেহেরপুর শহরের স্টেডিয়াম পাড়া দক্ষিন, ডাকঘর পাড়া, পুরাতন মাঠপাড়া, গোরস্থান পাড়া, শিশু পাড়া, কোটৃ পাড়া, সার্কিট হাউস পাড়া, বামন পাড়ার ২ হাজার ৯শ ৬৯ জন ভোটার নিয়ে পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ড। এই ওয়ার্ডের অংশ বিশেষ নিয়ে একাধিকবার নিবৃাচন বন্ধ হয়েছে। শেষ পর্যন্ত প্রায় ৮শ ভোটার পাশ্ববর্তি আমদহ ইনিয়নের অন্তভ’ক্ত হওয়ার পর শেষ পর্যন্ত নির্বাচন হওয়া না হওয়া নিয়ে শঙ্কা কেটে গেছে।
এ ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১জন মহিলা প্রার্থী সহ লড়ছেন ৪ জন প্রার্থী। তারা হলেন, রেহেনা মান্নান (উটপাখি) যিনি ইতিহাস সৃষ্টির লক্ষে সরাসরি সাধারণ কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হয়েছেন। বাকিরা হলেন, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি হামিদুল ইসলাম, বিএনপির সমর্থিত প্রার্থী সোহেল রানা ডলার (পানির বোতল) এবং নাজমুল হাসান বাবু। এই ওয়ার্ডের বতৃমান কাউন্সিলর আব্দুল্লাহ বিন হাসেম ভোটার হিসেবে আমদহ ইউনিয়নে চলে যাওয়া তার প্রর্থিতা বাতিল হয়ে যায়। তবে এবারের নির্বাচনে ডলার, হামিদুল ও একমাত্র মহিলা প্রার্থী রেহেনা মান্নানের সাথে ত্রিমূখী লাড়াই হবে। এমনটাই মনে করছেন ভোটাররা।
হামিদুল ইসলাম:

শহরের ডাকঘর পাড়ার গোলাম পালুতন মিয়ার ৮ সন্তানের ২য় সন্তান হামিদুল ইসলাম ২ সন্তানের জনক। এর আগে তিনি ২ বার কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হলেও জয়ের মালা পরতে পারেননি। তবে এবারের নির্বাচনে তিনি জযের ব্যাপারে বেশ আশাবাদি। স্বশিক্ষিত ও পেশায় ব্যবসায়ী হামিদুল ইসলাম অনেক ছোট থেকেই রাজনীতি করেন। বর্তমানে তিনি ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বলেন, সব সময় অবহেলিত ৯ নম্বর ওয়ার্ড। এখান থেকে নির্বাচিতদেও কারনেই পিছিয়ে থাকে। তবে তিনি নির্বাচিত হলে এলাকার দূরদশা লাঘব করবেন বলে জানান। তিনি মনে করেন ডলারের সাথে তার ভোট যুদ্ধ হবে।
সোহেলা রানা ডলার:

স্টেডিয়াম পাড়ার সামসুর মীরের ৩ সন্তানের ছোট সন্তান ডলার। অর্থনীতিতে মাষ্টার্স ও এলএলবি পাশ করেছেন। অপেক্ষাকৃত তরণ ডলার এবার বিএনপির সমর্থন নিয়ে পানির বোতল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। তিনি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদি। তবে তিনি প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থীদের প্রতিদ্বন্ধী বলতে নারাজ তিনি বলেন, আমরা প্রতিযোগিতায় নেমেছি। তিনি বলেন বর্তমান কাউন্সিরর ৬ বছরে কি করেছেন সে বিষয় ভাববে তার এলাকার জনগন। তবে তিনি নির্বাচিত হলে এলাকার শিক্ষা ব্যবস্থা, ড্রেনেজ ব্যবস্থা, মশা নিধন, মাদক বিরোধী কাজে নিজেকে নিয়োজিত রাখবেন। সেই সাথে ঝওে পড়া শিশুদেও স্কুলমুখী করবেন।
রেহেনা মান্নান:

জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মান্নানের স্ত্রী রেহেনা মান্নান শহর মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এবারের নির্বাচনে তিনি উটপাখি প্রতীক নিয়ে সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে পুরুষ প্রার্থীদের সাথে পাল্লা দিয়ে মানুষের দারে দারে ঘুরছেন। মহিলা আওয়ামীলীলীগের নেতৃত্বর সাথে নারী উন্নয়ন ফোরামের নেতৃত্ব দেওয়ায় এলাকার নারী ভোটারদেও সাথে রয়েছে তার সু-সম্পর্ক। ১টি কন্যা সন্তানের জননী, বিএসএস পাশ করা রেহেনা মান্নান বলেন, নির্বাচনে জয়ী হলে নারীদের াদিকার আদায়সহ ৯ নম্বর ওয়ার্ডের পরিবর্তন ঘটাবেন। এবং নারী নেতৃত্বে বিকাশ ঘটাবেন। শতবঅগ জয়ের আশা নিয়ে রেহেনা মান্নান তার ব্যক্তি ইমেজেকে কাজে লাগিয়ে নির্বাচনী বৈরিতাপার করতে চান। রেহেনা মান্নানের ধারনা হামিদুলের সাথে তার প্রতিদ্বন্দীতা হবে।
নাজমুল হাসান বাবু:

ডাকঘর পাড়ার শহিদুল ইসলাম খোকনের ৪ সন্তানের ২য় সন্তান বাবু ১ সন্তানের জনক। এবার প্রথম বারের মত নির্বাচন করছেন। নির্বাচিত হলে এলাকার সাধ্য মত উন্নয়নের চেষ্টা করবেন। এসএসসি পাশ করা বে-সরকারী প্রতিষ্ঠানে কর্মরত বাবু কোন প্রার্থীকেই খাটো কওে দেখবেন না। তিনি সকলের দোয়া ও সমর্থন চেয়েছেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful