Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুর মুজিবনগরে ছাড়পত্র পাওয়া গরুর মাংস খেয়ে অ্যানথ্রাক্স আক্রান্ত এক মহিলা।। এলাকায় আতংক।। জরুরীভাবে গরুর প্রতিশোধক টিকা প্রদান শুরু

মেহেরপুর মুজিবনগরে ছাড়পত্র পাওয়া গরুর মাংস খেয়ে অ্যানথ্রাক্স আক্রান্ত এক মহিলা।। এলাকায় আতংক।। জরুরীভাবে গরুর প্রতিশোধক টিকা প্রদান শুরু

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,১৪সেপ্টেম্বর:

মেহেরপুর মুজিবনগরের গ্রামে পরীক্ষা করে ছাড়পত্র পাওয়া জবাই করা গরুর মাংস খেয়ে অ্যানথ্রাক্স আক্রান্ত হয়েছে এক মহিলা। আক্রান্ত রোগির রক্ত পরীক্ষা করার উদ্যোগ নিয়েছে মুজিবনগর উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। এ নিয়ে মুজিবনগরে তোলপাড় শুরু হয়েছে। অ্যানথ্রাক্স প্রতিকারের জন্য উপজেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগ ইতোমধ্যে গরুর প্রতিশোধক টিকা দেয়া শুরু করেছে।  ঘটনার পর থেকে মুজিবনগর জুড়ে আতংক বিরাজ করছে।

আজ মঙ্গলবার মেহেরপুর মুজিবনগর উপজেলার মোনাখালী ইউনিয়নের বিশ্বনাথপুর গ্রামের ইদ্রিস আলীর স্ত্রী উলফাতন (৫০) মুজিবনগর উপজেলা কমপ্লেক্সে রোগ চিকিৎসার জন্য যান। এসময় হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার ও স্থানীয় লোকজন প্রাথমিকভাবে তাকে অ্যানথ্রাক্স রোগি হিসেবে চিহ্নিত করেন।

মুজিবনগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আব্দুল লতিফ বলেন, বিষয়টি সিভিল সার্জন অফিসকে অবগত করা হয়েছে।

উলফাতন মেহেরপুর নিউজ কে বলেন, ঈদের দিনে তিনি গরুর মাংস খেয়েছেন। একই গ্রামের মাসুদ কসাইয়ের নিকট থেকে গরুর মাংস কিনেছিলেন।

মাসুদ কসাই জানিয়েছে, পশু সম্পদ বিভাগে গরু পরীক্ষা করায়ে সার্টিফিকেট নেয়ার পরে গরু জবাই করেছি।

এদিকে ‌ঘটনার পর  মঙ্গলবার থেকে মুজিবনগর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে উপজেলা পশুসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রাশেদুল হক উপস্থিত থেকে গরুর প্রতিশোধক টিকা দিচ্ছেন।

দেশের বিভিন্ন জেলার ন্যায় মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে অ্যানথ্রাক্স রোগী চিহ্নিত হওয়ার পর মেহেরপুর স্বাস্থ্য বিভাগ ও প্রাণী সম্পদ অফিস নড়ে-চড়ে বসে। প্রশাসনের তদারকিতে তারা রোগ প্রতিরোধ ও গন সচেতনতা সৃষ্টির জন্য প্রচার প্রচরনা চালাতে থাকেন। অ্যানথ্রাক্স রোগ যাতে না ছড়াতে পারে তার জন্য গরুর মাংস খাওয়া থেকে বিরত থাকতে বলা হয়। পরবর্তীতে পরীক্ষা করে সার্টিফিকেট প্রাপ্ত জবাই করা গরুর মাংস খাওয়ার অনুমতি মেলে। মেহেরপুরের মানুষের মধ্যে অ্যানথ্রাক্স ভীতির কারনে প্রাণী সম্পদ বিভাগ থেকে পরীক্ষা করে  সার্টিফিকেট নিয়ে গরু জবাই করলেও গত ঈদে মেহেরপুরে গরুর মাংস বিক্রি কম হতে দেখা যায়। ঈদের এক সপ্তা আগে থেকে মেহেরপুরে মুরগীর দাম কেজি প্রতি ৫০ টাকা থেকে ৬০ টাকা বেড়ে যায় এবং ঈদের পরদিন পর্যনৱ ওই ধারা বজায় থাকে।

এদিকে প্রাণী সম্পদ বিভাগের ছাড়পত্র অনুযায়ী সুস্থ্য গরু জবাই করার পরও মাংস খেয়ে অ্যানথ্রাক্স রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় আতংকিত হয়ে পড়েছে মেহেরপুরের গরুর মাংস খাওয়া হাজার হাজার মানুষ।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.