Templates by BIGtheme NET
Home / শিক্ষা ও সংস্কৃতি / মেহেরপুর সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় ।। দেড় হাজার ছাত্রীকে বাধ্য করা হচ্ছে মডার্ণ এ প্লাস ব্যাকরণ কিনতে

মেহেরপুর সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় ।। দেড় হাজার ছাত্রীকে বাধ্য করা হচ্ছে মডার্ণ এ প্লাস ব্যাকরণ কিনতে

41773062মেহেরপুর নিউজ, ১৫ মে:
মেহেরপুর সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম শ্রেণীর দেড় হাজার ছাত্রীর উপর মডার্ণ এ প্লাস নামক একটি নিম্মমানের ব্যাকরণ বই চাপিয়ে দিয়েছেন স্কুলে প্রধান শিক্ষক সুভাষ চন্দ্র ওঝা। ফলে শ্রেণী শিক্ষকরা প্রধান শিক্ষকের নির্দেশ মানতে শ্রেণীতে ছাত্রীদের উপর চালাচ্ছেন নির্যাতন। ওই বই না কিনলে বা ওই বই থেকে পড়ে না আসলে তাদের নানা রকম শাস্তি দেয়া হচ্ছে এমন অভিযোগ করেছে স্কুলের ছাত্রীরা। এমনকি ওই বই থেকেই প্রশ্ন করা সাময়িক পরীক্ষা প্রশ্ন করা হবে বলে হুশিয়ারিও দিচ্ছেন শিক্ষকরা। এনিয়ে আতঙ্কিত হয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে স্কুলের ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকরা।
বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর কয়েকজন ছাত্রী নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানায়, তাদের শ্রেণী শিক্ষক প্রতিদিনই ওই বইটি কেনার জন্য চাপ দিচ্ছে। এমনকি ক্লাসে দাড় করিয়ে রাখছে এবং নানারকম অপমানজনক ব্যবহার করছেন। তারা বলে, বছরের শুরুর দিকে তারা বিভিন্ন জন বিভিন্ন প্রকাশণীর ব্যাকরণ বই কিনেছে। ফলে নতুন করে ওই বইটি কেনা তাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না।
রফিকুল ইসলাম নামের একজন অভিভাবক বলেন, বছরের শুরুতে তার মেয়েকে তিনি একটি ব্যকরণ বই কিনে দিয়েছেন। আবারও তাদের মডার্ণ এ প্লাস নামের একটি বই কেনার জন্য চাপ দিচ্ছে। এভাবে শিক্ষকরা তাদের পছন্দের প্রকাশনির সাথে কমিশন নিয়ে নতুন করে আবার বই কিনতে বলছেন। না হলে তাদের সন্তানদের নানারকমভাবে লাঞ্চিত করছেন। এভাবে চলতে থাকলে শিক্ষা ব্যবস্থার চরমক্ষতি হবে তিনি জানান।
অভিভাবকরা জানান, ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম শ্রেণী পর্যন্ত দুই শিফটে প্রায় দেড় হাজার ছাত্রী এখানো লেখাপড়া করছে। দেড়হাজার ছাত্রীর প্রত্যোককে একটি করে বই কিনলে দেড় হাজার বই বিক্রি হবে ওই প্রকাশনির। ফলে প্রকাশনির কর্মকর্তারা প্রধান শিক্ষকে মোটা অংকের কমিশন দিয়ে ওই সুবিধা গ্রহণ করার চেষ্টা লিপ্ত রয়েছেন বলে অভিভাবকরা অভিযোগ করেন।
এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে একজন শ্রেণী শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে কথা বলতে রাজী হন । তিনি বলেন, বর্তমান প্রধান শিক্ষক ফুল ফেজের প্রধান শিক্ষক। তিনি কোনো বই চাপিয়ে দিলে আমাদের কিছু করার থাকেনা। আমরা বাধ্য হয়ে ছাত্রীদের ওই বই কিনতে চাপ দিয়ে থাকি। মডার্ণ এ প্লাস বইয়ের মান নিয়ে তিনি বলেন, একটি অনুন্নত মানের বই চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে। তারা চাকরি হারানোর ভয়ে প্রধান শিক্ষকের ওই নির্দেশ মেনে চলতে বাধ্য হচ্ছেন।
তবে এ ব্যাপারে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক সুভাষ চন্দ্র ওঝাঁ শিক্ষকদের উপর দোষ চাপিয়ে দিলে বলেন, প্রকাশনির লোকজন তার কাছে এসেছিলেন। তিনি দুই জন শিক্ষককে বই দেখার জন্য দেন এবং ভালো হলে ছাত্রীদের কেনার পরামর্শ দেন। এছাড়া তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তোলা হয়েছে তা ঠিক নয়।
সদর উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) হোসনে মোবারক বলেন, শিক্ষা বোর্ডের বাইরে যে কোনো বই চাপিয়ে দেয়া সম্পূর্ণ বেইআইনী। তদন্ত সাপেক্ষে ওই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এ ব্যাপারে বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ও জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহ বলেন, এ ধরণের কোনো বই চাপিয়ে দেওয়ার প্রশ্নই আসেনা। এ ব্যাপারে ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.