Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / রাজসাক্ষী হওয়ায় খুন হয় মাসুদ॥ মেহেরপুরে চাঞ্চল্যকর মাসুদ হত্যার ১৪ মাস পর ৩ কিলার আটক

রাজসাক্ষী হওয়ায় খুন হয় মাসুদ॥ মেহেরপুরে চাঞ্চল্যকর মাসুদ হত্যার ১৪ মাস পর ৩ কিলার আটক

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম.১৩ মে,বিশেষ প্রতিনিধি:

মেহেরপুরের গোপালপুরের ভাড়াটে কিলার লালন চুয়াডাঙ্গার চাঞ্চল্যকর গাফফার হত্যা মামলার আসামীকে জবাই করার সময় জাপটিয়ে ধরে এবং আরিফ বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড জসীম জবাই করে আর আরেকজন ভাড়াটে কিলার আব্দুর রহমান পাশে দাঁড়িয়ে জবাই পর্যবেক্ষন করে। মেহেরপুর পুলিশের কাছে মাসুদ হত্যা মামলার ১৪ মাস পর আটক মেহেরপুর সদর উপজেলার গোপালপুর গ্রামের আবুল কালাম এর ছেলে ভাড়াটে খুনি লালন (২২) মেহেরপুর সদর থানায় পুলিশের কাছে  ১৬১ দেওয়া স্কীরোক্তিতে এ হত্যাকান্ডের জড়িত থাকার কথা এভাবে বর্ণনা করেন।

লালন স্বীকার করে, একই গ্রামের আব্দুর রহমানের মাধ্যমে জসিমের সাথে তার পরিচয় হয়। আব্দুর রহমান এবং লালন মাসুদকে হত্যার জন্য ৫০ হাজার টাকা চুক্তিতে আবদ্ধ হয়। চুক্তি অনুযায়ী সে এবং আব্দুর রহমান এ কিলিং এ অংশ নেয়। কিন্তু জসিম তাদের চুক্তির টাকা পরিশোধ করেনি।

আব্দুর রহমান হত্যাকান্ডের সময় তার অবস্থানের কথা স্বীকার করেছে এবং লালনের কথার সাথে একমত পোষন করেছে। তবে আব্দুর রহমান বলেছে,সে জবাই করেনি। কিন্তু পাশে দাড়িয়ে জসিমের জবাই করা রোমহর্ষক দৃশ্য সে দেখেছে।

জসিম বলেছে,সে এসব ব্যাপারে কিছু জানেনা। হত্যাকান্ডের ব্যাপারে জসিম মুখ খুলেনি।

পুলিশ জানায়,মেহেরপুরের পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেনর নির্দেশে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মেহেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার ইনচার্জ এস আই জিহাদের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল প্রথমে সদর উপজেলার গোপালপুর গ্রামের আবুল কালাম এর ছেলে ভাড়াটে কিলার লালন (২২) কে আটক করে। তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক একই গ্রামের সোহরাবের ছেলে আব্দুর রহমান (২৮) এবং চুয়াডাঙ্গা জেলার  আকন্দবাড়িয়া গ্রামের মাসুদ হত্যাকান্ডের মূল কিলার ও পরিকল্পনাকারী জসিমকে আটক করে। বর্তমানে তারা মেহেরপুর সদর থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।

ঘটনার বিবরনে জানা যায়,চুয়াডাঙ্গা জেলার আন্দলবাড়িয়া গ্রামের কবিরাজ গাফফার কে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গেয়ে আরিফ বাহিনীর লোকজন হত্যা করে। হত্যামামলার আসামী হয় চুয়াডাঙ্গার আকন্দবাড়িয়া গ্রামের  মাসুদ। মামলার অন্যতম আসামী হয় আরিফ বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড একই গ্রামের জসিম। মাসুদ রাজসাক্ষী হওয়ায় সে মামলায় জামিন পেয়ে চট্রগ্রামে চলে যায়।

মাসুদের আদালতের কাছে জবানবন্দীতে জসিম ফেসে যায়। জসিম নিজেকে বাঁচাতে মাসুদকে হত্যার পরিকল্পনা শুরু করে। জসিম তার স্ত্রী শাবানাকে লেলিয়ে দেয় মাসুদের দিকে। শাবানা মাসুদের সাথে শুরু করে প্রেম প্রেম খেলা। মাসুদ চট্রগ্রাম থেকে মেহেরপুরে সাক্ষি দিতে আসে। প্রেমের প্রলোভনে সাড়া দিয়ে ২০০৯ সালের ৩০ মে জসিমের পূর্বপরিকল্পনা মোতাবেক শাবানা মাসুদকে সাথে নিয়ে মেহেরপুরের গোপালপুর গ্রামের জনৈক এসকেন আলীর বাড়িতে ওঠে। এসকেনের বাড়িতে জসিম মাসুদকে রাতেই হত্যার পরিকল্পনা করে এবং ৫০ হাজার টাকা বিনিময়ে লালন ও আব্দুর রহমান কে কিলার হিসাবে ভাড়া করে। রাত ৯ টার দিকে গোপালপুর থেকে একটি ভ্যানযোগে কাজী অফিসে যাওয়ার অজুহাতে ময়ামারি মাঠের রাস্তায় রওয়ানা হয়। সাথে থাকে লালন ও আব্দুর রহমান। ভ্যানটি ভিড়ভিড়ি মাঠে পৌছানোর মাত্রই পূর্ব থেকে অপেক্ষারত জসিম ভ্যান থামিয়ে মাসুদ কে জড়িয়ে ধরে চোখ বেধে ফেলে এবং অন্যান্যরা হাত পা চেপে ধরে। মাঠেই জবাই করে জসিম। মৃত্যু নিশ্চিত করে লাশ টেনে হিচড়ে প্রায় ২শ গজ দুরে একটি জমিতে ফেলে রেখে যে যার মত চলে যায়। পরের দিন সকালে মেহেরপুর সদর থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

মেহেরপুরের পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন বলেন,জসিম হচ্ছে মাসুদ হত্যাকান্ডের মূল পরিকল্পনাকারী। সে চুয়াডাঙ্গার গাফফার হত্যা মামলার অন্যতম আসামী এবং আরিফ বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড। মেহেরপুরের লালন এবং আব্দুর রহমান হচ্ছে ভাড়াটে কিলার।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.