Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / রাজিবের ছবি সংগ্রহশালা

রাজিবের ছবি সংগ্রহশালা

মাহবুবুল হক পোলেন/সাঈদ হোসেন,মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,২৩ মার্চ:
১ম বিশ্ব সুন্দরী কিকি হ্যাকসন,আব্রাহাম লিংকন,হিটলার,মাদার তেরেসা,কাঙাল হরিনাথ, রবি ঠাকুর, কবি নজরুল, মহাত্মা গান্ধি, বঙ্গবন্দ্ধু শেখ মুজিব,শহীদ জিয়া,বাঘা যতীন কার ছবি স্থান পায়নি সেখানে? সারা বিশ্বের প্রাচিন,মধ্য ও আধুনিক যুগের বিভিন্ন স্মরনীয় ও বরনীয় ব্যক্তিদের আলোক চিত্রের সমাহারে ব্যক্তি উদ্যোগে ছবির জাদুঘর গড়ে তুলেছেন জাহিদ হাসান রাজিব।
মেহেরপুর মুজিবনগর উপজেলার দারিয়াপুর গ্রামের মৃত আব্দুল বারির এক মাত্র ছেলে জাহিদ হাসান রাজিব। মনের খেয়ালকে প্রাধান্য দিয়ে আজ ইতিহাসে নাম লেখাতে যাচ্ছে এ যুবক। ৪ টি টিন সেডের কাঠের ঘরে ১০ বাই ১২ সাইজের কাঠের ফ্রেমে থরে থরে সাজানো জগৎখ্যাত রাজা-বাদশা, ভাস্কর, ভাষা সৈনিক, যোদ্ধা, কবিসাহিত্যিক সঙ্গীত শিল্পী, ব­গার সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাদের অবদান রয়েছে এমন ব্যক্তিদের সহস্রাধীক আলোক চিত্র সেখানে স্থান পেয়েছে।
মেহেরপুর থেকে ঐতিহাসিক মুজিবনগর যাওয়ার পথে মোনাখালি ব্রিজ পার হয়ে কয়েক’শ মিটার পর দারিয়াপুর বাজারের প্রবেশ মুখে হাতের বামে ফিরোজা বারি কমপে­ক্সে।কমপ্লে­ক্সের ভিতরে স’মিল ব্যবসায়ী জাহিদ হাসান রাজিব গড়ে তুলেছেন তার এই অনন্য সংগ্রহ শালা।
সংগ্রহ শালায় ঢুকতেই চোখে পড়বে আলোক চিত্রে সুসজ্জিত একটি  সুবিশাল প্রবেশদ্বার।  ভিতরে যেতেই ছায়ঘন পরিবেশে বিশাল বৃক্ষাদির সমাহারে গড়ে উঠা ফিরোজা বারি কমপ্লেক্স । এই কপে­ক্সে এর মধ্যেই কাঠের বেড়া আর টিন সেডের ছাওনি দিয়ে গড়ে উঠেছে শতশত নামিদামি মনীষীদের ছবি সম্বলিত ছবির যাদু ঘর।
কিভাবে তার এ সংগ্রহ শুরু তার জবাবে রাজিব হাসান বলেন, আমার দাদু আমার জন্মের পূর্বেই মারা যাওয়ায় তাকে দেখার সৌভাগ্য আমার হয়নি। বছর তিনেক পূর্বে আমার প্রোপিতামহের ট্রাংকের মধ্যে আমি দাদুর একটি ছবি পাই। ছবিটি সংরক্ষণ করে দেওয়ালে টাঙ্গিয়ে দিই। এর কিছুদিন পরে আমার দাদু ছবির পাশে বাবা,চাচার ছবিগুলো পাশা পাশি টাঙ্গিয়ে দিয়। এরপর যোগকরি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর  ছবি।বঙ্গবন্ধুর ছবি রাখার পর বিখ্যাত ব্যক্তিদের ছবি সংরক্ষণ এর ইচ্ছাটা প্রবল হয়ে উঠে । সেই ইচ্ছা দিনে দিনে রূপ নেয় নেশায়। তারপর আর থেমে থাকা নয়, শুরু হয় ছবি সংগ্রহের অভিযান। বিভিন্ন ব্যক্তির কাছথেকে ও ইন্টারনেট ঘেটে গত তিন বছরে তিনি এসব ছবি সংগ্রহ করেছি।

তাকে এ কাজে যারা বেশি সহযোগিতা করেন তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন মুজিবনগর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম চান্দু  ও সাংস্কৃতি কর্মী নিশান সাবের। এছাড়া স্থানীয় নটরাজ গ্রুপ থিয়েটারের সবাই তাকে সার্বিক সহযোগিতা করেন। রাজিব নটরাজ গ্রুপ থিয়েটারের সভাপতি। দুই সহস্রাধিক ছবি বাইন্ডিং করে টানানোর পাশাপাশি আরও পাঁচ শতাধিক ছবি তার সংগ্রহে আছে। ঘরে জায়গা সংকটের কারণেই সেসব ছবি বাইন্ডিং  করে রেখেদেয়া হয়েছে।রাজিবের স্বপ্ন আগামী বছর  তার মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত ফিরোজা বারি কমপে­ক্স  ৬ একর জমির উপর তিনি তৈরি করবেন আধুনিক যাদুঘর সহ ছবির শিক্ষালয় । যে জাদুঘরটি হবে বাংলাদেশের মধ্যে সর্ববৃহৎ ছবির জাদুঘর। আর শিক্ষালয়ে থাকবে নতুন প্রজন্মেরর জন্য বিখ্যাত ব্যক্তিদের ছবির পাশা পাশি তাঁদের ব্যক্তি ও কর্মময়  জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে প্রামান্য চিত্র ও আলোকচিত্র।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.