Templates by BIGtheme NET
Home / মিডিয়া / রোকেয়া বেগম ছিলেন অত্যন্ত পরিশ্রমী, সাহসী ও দায়িত্বশীল ব্যক্তিত্বের অধীকারিনী — এমপি ফরহাদ হোসেন

রোকেয়া বেগম ছিলেন অত্যন্ত পরিশ্রমী, সাহসী ও দায়িত্বশীল ব্যক্তিত্বের অধীকারিনী — এমপি ফরহাদ হোসেন

fggfমেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,১৩ জুন:
মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ফরহাদ হোসেন বলেন, মরহুমা রোকেয়া বেগম ছিলেন অত্যন্ত পরিশ্রমী, সাহসী ও দায়িত্বশীল ব্যক্তিত্বের অধীকারিনী।
আজ শুক্রবার বিকাল জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে অনুষ্ঠিত এক শোকসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য এ কথা বলেন।
মেহেরপুর সাংবাদিক ফোরামের সহ-সভাপতি ও  দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ-এর যুগ্ম-বার্তা সম্পাদক তারিক-উল ইসলামের সভাপতিত্বে শোকসভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব সৈকত রুশদী, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব জার্নালিজম অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া (বিজেম)- এর নির্বাহী পরিচালক মির্জা তারেকুল কাদের ,কুষ্টিয়া সরকারী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আতাউর রহমান,মরহুমার ভাই মোঃ মনিরুজ্জামান ,দৈনিক আজকের ভোলার সম্পাদক অধ্যক্ষ মুহাম্মদ শওকাত হোসেন, মুক্তিবাণীর নির্বাহী সম্পাদক মুহম্মদ রবীউল আলম, দৈনিক কালেরকণ্ঠ -এর বিশেষ প্রতিনিধি কাজী হাফিজ. চেঞ্জ মেকারস’র প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট তানভীর সিদ্দিকী,শিল্পপতি ও প্রকৌশলী শহিদুল্লাহ,বাংলাদেশ রিডিং এসোসিয়েশনের প্রকল্প পরিচালক নাফিজ উদ্দিন খান, রহিমআফরোজ-এর সিনিয়র কর্মকর্তা আযম খান দীপু ,মেহেরপুর ছাত্র উন্নয়ন সংঘ-এর সংগঠক নিজাম আহমদ সেন্টু প্রমুখ ।
মরহুমার সন্তান সৈকত রুশদী তাঁর বক্তব্যে বলেন, তার আম্মা ছিলেন অত্যন্ত  ধর্মপ্রাণ। তিনি বনানী, মেহেরপুর ও চুয়াডাঙ্গায় বিভিন্ন সমাজসেবামূলক কর্মকান্ডে জড়িত ছিলেন।
এক নজরে আলহাজ্ব রোকেয়া বেগমের সংক্ষিপ্ত জীবনী জানতে বিস্তারিত সংবাদে ক্লিক করুন:

10347491_863944840300168_7817758970998882495_nমেহেরপুরের বিশিষ্ট সমাজসেবিকা আলহাজ্ব রোকেয়া বেগম  ১৯৩১ সালে চুয়াডাঙ্গায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকায় বনানীর মরহুম ওয়াজেদ আলী বিশ্বাসের কন্যা। রোকেয়া বেগমের শৈশব ১৯৩১ সাল থেকে ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত কেটেছে চুয়াডাঙ্গার বেলগাছি, কলকাতা শহর ও চুয়াডাঙ্গার কলাবাড়িতে। তাঁর দাদার বাবারা জমিদার ছিলেন। দাদার সময়ে তা হাত ছাড়া হয়ে যায়। বাবা  কোলকাতায় সরকারী চাকরি করেছেন।  কলকাতা শহরে থাকাকালীন সময়ে তাঁর বড় বোন আয়শা খাতুন বেলী ও মেজ বোন সুফিয়া খাতুন ইতিহাসখ্যাত বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত মেমোরিয়াল স্কুলে পড়তেন।
বিশ্বযুদ্ধ বেধে যাওয়ার কারণে রোকেয়া বেগম মা-বাবা ৪ বোনসহ ১৯৪২ সালে কোলকাতা থেকে  চুয়াডাঙ্গার বেলগাছিতে চলে আসলেন। বাবা যথারীতি কোলকাতায় সরকারী চাকরি করেতে লাগলেন। তিনি শিশুকালে  চুয়াডাঙ্গা বালিকা বিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেছেন।
পরে ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পর বাবা ঢাকায় বদলি হয়ে আসলেন। ফলে তারা সবাই মিলে ঢাকার জয়দেবপুরে চলে আসলেন। ১৯৪৭ সাল থেকে ১৯৫৪ সাল পর্যন্ত তাঁর কেটেছে জয়দেবপুরে। জয়দেবপুরে তিনি স্থানীয় বালিকা বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছিলেন।
১৯৫৪ সালে মেহেরপুরের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আ.ক.ম. মনিরুল হকের সাথে তার বিয়ে হয়। তাঁর পরবর্তী সময়গুলো কেটেছে মেহেরপুর, ঢাকার বনানী, কানাডা, ব্রিটেন, ভারতের মাদ্রাজ সহ বিভিন্ন স্থানে। অল্পবয়সে বাবা মারা যাওয়ার কারণে তাকে স্বামীর সংসারের পাশাপাশি বাবার সংসার দেখাশুনা করতে হয়েছে।তিনি ছিলেন অত্যন্ত পরিশ্রমী, সাহসী ও দায়িত্বশীল ব্যক্তিত্ব।
শেষ জীবনে তিনি হজ্বব্রত পালন করেন। অত্যন্ত  ধর্মপ্রাণ মরহুমা বনানী, মেহেরপুর ও চুয়াডাঙ্গায় বিভিন্ন সমাজসেবামূলক কর্মকান্ডে জড়িত ছিলেন।
তিনি ১৭ এপ্রিল স্কায়ার হাসপাতালে আপারেশনের জন্য ভর্তি হন।  কিন্তু আপারেশন ভালভাবে হলেও তিনি আর পুরাপুরি সুস্থ হয়ে উঠেননি। ডেল্টা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ৬ জুন শুক্রবার সকালে ৯.০৫ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্বামী আ.ক.ম. মনিরুল হক, এক পুত্র ও তিন কন্যা, দুই বোন, এক ভাই, আত্মীয় ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
তিনি শেষ জীবনে  তাঁর জীবনের বিভিন্ন ঘটনা নিয়ে আত্মজীবনী লেখে গেছেন। সেটি এখন মূদ্রণের অপেক্ষায় রয়েছে।
তিনি কানাডা প্রবাসী সাংবাদিক, রাজনৈতিক বিশ্লেষক, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক যুগ্ম- সাধারণ সম্পাদক সৈকত রুশদী ও ব্রিটেন প্রবাসী আবৃত্তি শিল্পী পেরী ফেরদৌসের মাতা।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful