Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / শারদীয় দূগাপূজা শুরু।। মেহেরপুর জেলায় এবারে পূজা মন্ডপের সংখ্যা কমেছে

শারদীয় দূগাপূজা শুরু।। মেহেরপুর জেলায় এবারে পূজা মন্ডপের সংখ্যা কমেছে

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,০৩ অক্টোবর:
হিন্দু সম্প্রদায়ের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূগাপূজা শুরু হয়েছে। রোববার রাতে মেহেরপুর জেলার ৩৯ টি পূজা মন্দিরে এক যোগে ওই উৎসবের সূচনা হয়। গতবছরের তুলনায় মেহেরপুরে এবারে কমেছে পূজা মন্ডপের সংখ্যা। শুধুমাত্র সরকারি অনুদান দিয়ে গরীব হিন্দুদের পক্ষে ব্যাপকভাবে পূজা মন্ডপ তৈরী করা সম্ভব হয়নি। পূজা বাস্তবায়ন কমিটির নেতৃবৃন্দ এমনিটি জানিয়ে বললেন, সার্বজনিন দুর্গা উৎসবকে ঘিরে হিন্দু সম্প্রদায়ের দরিদ্র মানুষের মধ্যে তেমনটি উৎসাহ উদ্দিপনা নেই ।
জেলা পূজা বাস্তবায়ন কমিটি সুত্রে জানা যায়, গেল বছর মেহেরপুর জেলার ৩ উপজেলায় পূজা মন্ডপ তৈরী হয়েছিল ৫৪ টি। এবারে হচ্ছে ৩৯ টি। গেল বছরের আগের বছর পূজা মন্দির প্রতি সরকারি অনুদান ছিল ২/৩ মে. টন। গত বছর সরকারি অনুদান কম থাকায় অনেকেই ধার দেনা করে পূজা সম্পন্ন করেন। সেই দেনা এখনও অনেকেই পরিশোধ করতে পারেননি। তাই শুধুমাত্র সরকারি অনুদানের উপর নির্ভর করে পূজা মন্ডপ তৈরীতে সাহস করেননি দরিদ্র শ্রেনীর হিন্দু পরিবারের মানুষেরা। আবার অনেকেই ধার দেনা করে মন্ডপ তৈরী করার উদ্যোগ নিলেও মাঝ পথে এসে থেমে গেছেন।
গাংনী উপজেলা শহরের চৌগাছা দাসপাড়া পূজা বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি তারাপদ দাস জানালেন, প্রতিমা তৈরী ও আনুষঙ্গিক খরচসহ সব মিলিয়ে তাদের খরচ ৫২ হাজার টাকা। সরকারি অনুদান মিলেছে ৭৩০ কেজি চাল। যার বাজার মূল্য ১৮/১৯ হাজার টাকা। বাকি অর্থ জোগাড় করতে দুশ্চিন্তার শেষ নেই। ফলে পূজার খরচ জোগাতে শংকিত হয়ে পড়েছেন গোটা দাস পাড়ার মানুষেরা। গেল বছর গাংনী উপজেলায় ৩২টি পূজা মন্ডপে উৎযাপন করা হয়েছিল শারদীয় দুর্গা উৎসব। কিন্তু এবার সে সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে ১৮ টিতে। সরকারি অনুদান কম থাকায় দরিদ্র শ্রেনীর হিন্দুদের পক্ষে পূজা মন্ডপ তৈরী করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছেন গাংনী উপজেলা পূজা বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ধীরেন্দ্রনাথ দাস।
জেলা পূজা বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ডাঃ রমেশ চন্দ্র নাথ জানালেন, মেহেরপুর জেলাতে একেতো হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের বসবাস কম। তারপরে আবার বেশির ভাগ দরিদ্র শ্রেণীর মানুষ। সরকারি অনুদান কম হওয়ায় এত বড় উৎসব গরিব মানুষের পক্ষে উৎযাপন করা অসম্ভব হয়ে উঠেছে। স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ সরকারের কাছে অনুদান বৃদ্ধির দাবি জানিয়েছেন তিনি।
তবে জেলা প্রশাসক শাহান আরা বানু বললেন, সরকারি প্রাপ্ত অনুদান প্রতিটি পূজা মন্ডপে সুষ্টভাবে বন্টন করা হয়েছে। সুন্দর পরিবেশে দুর্গা উৎসব পালিত হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করলেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.