Templates by BIGtheme NET
Home / সম্পাদকীয় ও উপ সম্পাদকীয় / শিশুদের ডায়রিয়া: আমাদের করনীয়

শিশুদের ডায়রিয়া: আমাদের করনীয়

Palash Drডা. মো: ওবাইদুল ইসলাম পলাশ
শিশুদের ডায়রিয়ার অক্রান্ত হবার সম্ভাবনা বড়দের চেয়ে অনেক বেশী। অবহাওয়া পরিবর্তন জনিত কারনে ডায়রিয়ার প্রকোপ একটু বেড়ে যায় এবং শিশুদের ভাইরাস জনিত কারনে শতকরা ৮০ ভাগ ডায়রিয়া হয়ে থাকে।  তবে ডায়রিয়ার বিভিন্ন কারনের মধ্যে রোটা ভাইরাস সবচেয়ে বেশী দায়ী। রোটা ভাইরাস ডাইরিয়ার কারণে পৃথিবীতে প্রতি বছর প্রায় ৬ লক্ষ শিশুর মৃত্যু হয়ে  থাকে। রোটাভাইরাস সর্বত্র বিরাজমান। শতকরা  শিশু তাদের বয়স ৫ বছর হওয়ার আগে কমপক্ষে একবার এ ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয়।  বাংলাদেশে প্রতিবছর রোটাভাইরাস ডায়রিয়ায় প্রায় ১৩ হাজার ১০৪ শিশুর মৃত্যু হয়।
কিভাবে শিশুরা আক্রান্ত হয় ?
রোটাভাইরাস প্রধানত মুখ গহব্বর দিয়ে খাদ্যনালীতে প্রবেশ করে। এই ভাইরাস আমাদের চারপাশে ছড়িয়ে আছে এবং একজনের কাছে থেকে অন্যজনের দেহে প্রবেশ করে। সাধারনত  সংক্রমিত পানি,খাবার, খেলনা ,এমনকি বিভিন্ন আসবাবপত্র থেকে ও এই রেগের জীবাণু ছড়াতে পারে।
কি হয় ?
রোটাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ২৪-৪৮ ঘন্টার মদ্যে লক্ষণগুলো প্রকাশ পায়। প্রথমে শুরু হয় বমি, এর পর ধীরে ধীরে পানির মত ডায়রিয়া বা পাতলা পায়খানা । খুব কম সময়ের মধ্যে ডায়রিয়া তীব্র আকার ধারন করে এবং পানি শূন্যতা এত বেশি হয় যে হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন হয় এমনকি শিশুর মৃত্যু হতে পারে। এছাড়া অনেকক্ষেত্রে আক্রান্ত শিশুর জ্বর ,ক্ষুধামন্দা,পেটব্যাথা ,দুর্বলতা,শ্বাসকষ্ট ইত্যঅদি দেঅ যায়। ডায়রিয়া সাধারনত ৭-১২ দিন পর্যন্ত স্থায়ী হয়।
চিকিৎসা :
পানিশূন্যতা পূরণ করার জন্য ঘন ঘন খাবার স্যালাইন খাওয়াতে হবে। শিশুর পানিশূন্যতা বেশি হলে এবং মুখে  স্যালাইন না খেতে পারলে হাসপাতালে বা ক্লিনিকে ভর্তি করে শিরাপথে স্যালাইন দিয়ে পানিশূন্যতা পূরণ করতে হবে।
প্রতিরোধক :
রোটা ভাইরাল ডায়রিয়া থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য দুইভাবে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারি । প্রথমত: টপরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা এবং আপনার শিশু যে সমস্ত জিনিসপত্র ব্যবহার করে সেগুলোকে সবসময় পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা। শিশু  যে সমস্ত খেলনা নিয়েখেলা করে তা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা এবং অপনার হাত এমনকি খাবার তৈরি করার স্থান সবসময় পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা । সর্বোপরি শিশুদের ৬ মাস পর্যন্ত শুম্মাত্র  মায়ের বুকের  দুধ খাওয়ানো। দ্বিতীয় : শিশুকে  রোটাভাইরাস টিকা খাওয়ানো।

লেখক: এমবিবিএস, ডিসিএইচ (শিশু) এম.ডি(কোর্স) কনস্যালটেন্ট (শিশু), নবজাতক ,শিশু ও কিশোর রোগ বিশেষজ্ঞ,  মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.