Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / শোকের মাসে বাদ্য যন্ত্র নিয়ে মিছিলের প্রতিবাদ করায় এমপি সমর্থকদের হামলার শিকার যুবলীগের নেতাকর্মীরা

শোকের মাসে বাদ্য যন্ত্র নিয়ে মিছিলের প্রতিবাদ করায় এমপি সমর্থকদের হামলার শিকার যুবলীগের নেতাকর্মীরা

মেহেরপুর নিউজ, ১১ আগষ্ট:
মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ফরহাদ হোসেনের কর্মী সমর্থকদের কাছে যুবলীগের নেতাকর্মীরা হামলার শিকার হয়েছেন। শোকের মাসে বাদ্যযন্ত্র নিয়ে মিছিল করার প্রতিবাদ করলে তারা এ হামলার শিকার হন। অখচ এ নিয়ে সংসদ সদস্যর কোন ভ্রæক্ষেপন নেই। তিনি নিজেও তাদের উস্কানি ও মদদ দিয়ে চলেছেন। আওয়ামীলীগ, ছাত্রলীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের দিয়ে তাদের নির্যাতন করা হচ্ছে।
শুক্রবার রাতে মেহেরপুর জেলা প্রেসক্লাব কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এসকল অভিযোগ করেন মুজিবগর উপজেলার মহাজনপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল হক মিঠু।
সাংবাদিক সম্মেলন অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মহাজনপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল বারী, কোহিনুর হোসেন, সদর থানা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক মিজানুর রহমান অপু, যুবলীগ নেতা রাহিনুর জামান পোলেন, খালিদ রানা প্রমুখ।
সংবাদ সম্মেলনে যুবলীগ নেতা অভিযোগ করে বলেন, ঘটনার সূত্রপাত হয় মহাজনপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন নিয়ে। গত ৪ আগষ্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে মহাজনপুর ইউনিয়ন যুবলীগের একটি প্যানেল ও আওয়ামী লীগের সভাপতি ফরহাদ হোসেন দোদুলের একটি প্যানেল প্রতিদ্ব›দ্বীতা করে। নির্বাচনের প্রথম থেকেই আমাদের বিভিন্ন হুমকি ধামকি দিয়ে নির্বাচন করতে না দেওয়ার চেষ্টা করে। তবুও আমরা নির্বাচনে অংশ গ্রহন করি। আমাদের প্যানেল থেকে ৩ জন আর এমপির প্যানেল থেকে ২ জন নির্বাচিত হয়। নির্বাচিত প্রতিনিধির ভোটে সভাপতি নির্বাচিত হবার কথা থাকলেও নির্বাচিত প্রতিনিধি ও অভিভাবকদের পাশ কাটিয়ে গত ৮ আগষ্ট বুধবার এমপি ফরহাদ হোসেন দোদুলকে সভাপতি নির্বাচন করা হয়।
পরদিন বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এমপির সমর্থকরা বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে এলাকায় আনন্দ মিছিল। করে এসময় যুবলীগের নেতাকর্মীরা শোকের মাসের বাদ্যযন্ত্র বাজানোর প্রতিবাদ করলে মিছিল শেষে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি নেতাকর্মীরা যুবলীগ নেতাকর্মীদের খুঁজে খুঁজে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করা হয়েছে। এতে তিনিসহ যুবলীগের আরো পাচ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। তারা হলেন মহাজনপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সহসভাপতি ফিদু শেখ, ৫ ন¤^র ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন রেজা, ৬ ন¤^র ওয়ার্ড যুবলীগের সদস্য মোহাম্মদ জসিম, মো: ফরিদ ও পঁচা খান। আহতদের মধ্যে তাঁর আরিফুল হক মিঠুর অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসা শেষে শুক্রবার বিকালে ফিরে এসে তিনি সংবাদ সম্মেলনে যোগ দেন। বাকিদের মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।
তিনি বলেন যারা হামলা করেছেন তারা হলেন- মুজিবনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী সাইফুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হেলাল উদ্দীন, আওয়ামীলীগ নেতা সাহাবদ্দিন, আব্দুস সাত্তার বাটুল, গনি, ইউপি সদস্য স্বপন উদ্দীন, ছাত্রলীগ নেতা ইমন, গোলাম মোস্তফা, ৫ন¤^র ওয়ার্ড বিএনপি সভাপতি ও ইউপি সদস্য সোহরাভ গোসেন কালু, বিএনপি নেতা দবিরুল ইসলাম।
মিঠু অভিযোগ করে বলেন, যারা শোকের মাসে বাদ্যযন্ত্র নিয়ে নাচ গান করতে পারে তারা কি করে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিতে পারে। অথচ বর্তমান মেহেরপুর আওয়ামী লীগের দায়িত্ব আজ তাদের হাতে। তাই আজ আমার মতো হাজার হাজার কর্মীরা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির লোকজনের কাছে নির্যাতিত। এখনও আমরা এলাকায় নিরাপত্তা হীনতায় দিনযাপন করছি। সংবাদ সম্মেলন করা জন্য আমার জীবনও চরম হুমকীর সম্মুখিন।
এদিকে এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান সদর উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক মিজানুর রহমান অপু।
জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শহিদুল ইসরাম পেরেশান জানান, সংসদ সদস্য সভাপতি নির্বাচিত হওয়াতে আমরা তাঁকে স্বাগত জানিয়েছি। শোকের মাসে বাদ্যযন্ত্র নিয়ে উৎসব মিছিল করার আপত্তি জানালে তারা যুবলীগের নেতাকর্মীদের উপর হামলা চালিয়েছে যার তিব্র নিন্দা জানাচ্ছি একই সাথে হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানাচ্ছি।
এ প্রসঙ্গে সংসদ সদস্য ফরহাদ হোসেন জানান- তার সমর্থকরা বাদ্যযন্ত্র নিয়ে উৎসব মিছিলে তিনিও মর্মাহত। এতে তার কোন নির্দেশ ছিলনা। অতি ভালবাসায় তারা বাদ্যযন্ত্র ব্যবহার করেছে। তবে এ ঘটনার পরও তিনি কারো বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেননি বলেও জানা গেছে।
প্রসঙ্গত, ৪ আগষ্ট মহাজনপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচন নিয়ে এলাকায় এমপি সমর্থক ও যুবলীগের সমর্থিত দুটি প্যানেল প্রতিদ্বন্দীতা করায় বিশৃক্সখলা ঘটার আশংকা থেকে নির্বাচনে অতিরিক্ত পুলিশও মোতায়েন করা হয়। নির্বাচনে ৫টি পদের মধ্যে যুবলীগ থেকে ৩টি এবং এমপি সমর্থিত প্যানেল থেকে ২টি পদে বিজয়ী হন। পরবর্তিতে যুবলীগ সমর্থতিত বিজয়ীদের না জানিয়ে সভাপতি নির্বাচন করা হয় এমপি ফরহাদ হোসেনকে। এমপি নির্বাচিত করেও ক্ষান্ত হননি তারা। পরদিন বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শোকের মাসকে বৃদ্ধাঙ্গলী দেখিয়ে বাদ্য যন্ত্র নিয়ে এলাকায় আনন্দ মিছিল করে এমপি সমর্থিতরা। এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে যুবলীগ নেতাদের কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করা হয়।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.