Templates by BIGtheme NET
Home / জাতীয় ও আন্তর্জাতিক / সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় বাংলাদেশ বিদেশী সাহায্য নিতে পারে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় বাংলাদেশ বিদেশী সাহায্য নিতে পারে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

2016-07-13_6_927615ডেস্ক রিপোর্ট, ১৪ জুলাইঃ

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বলেছেন, জাতীয় স্বার্থে বিশেষ করে সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় বাংলাদেশ বন্ধুপ্রতিম দেশগুলোর সহায়তার প্রস্তাব গ্রহণ করতে পারে।
‘সন্ত্রাসবাদের মূল উৎপাটনে আমরা যুক্তরাষ্ট্রের মতো বন্ধুপ্রতিম দেশগুলোর কাছ থেকে সহায়তার প্রস্তাব গ্রহণ করতে পারি। যা আমাদের দেশ ও জাতির জন্য শুভ হবে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বুধবার একথা বলেন।’
গুলশানে রেস্তোরাঁয় ও কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানের কাছে সন্ত্রাসী হামলার পর সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ মোকাবেলায় বাংলাদেশকে যুক্তরাষ্ট্রে ‘প্রযুক্তি ও বিশেষজ্ঞ’ সহায়তা প্রদানের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী মঙ্গোলিয়ার রাজধানী উলানবাটরে একাদশ আসেম সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগদান উপলক্ষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ে একথা বলেন।
এক প্রশ্নের জবাবে মাহমুদ আলী বলেন, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের ভাবমূতি মোটেও ক্ষুণœ হয়নি বরং সাম্প্রতিক দু’টি সন্ত্রাসী হামলা আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো সফলভাবে মোকাবেলা করায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় থেকে বাংলাদেশের প্রশংসা করা হয়েছে।
তিনি বলেন, ‘সন্ত্রাসী হামলা একটি বৈশ্বিক সমস্যা। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এ ধরনের হামলা মোকাবেলা করছে। কাজেই এ হামলার পর আমরা কিভাবে বলতে পারি বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হয়েছে।’
বাংলাদেশের ইতিহাসে এ ধরনের হামলাকে দুঃখজনক আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, এ হামলার পর নিরাপত্তার অজুহাতে কোন বিদেশী এ দেশ ত্যাগ করেননি। ‘এমনকি আহত জাপানী নাগরিক ও গুলশান রেস্তোরাঁয় সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় নিহতদের পরিবার সরকারকে বলেছে তারা বাংলাদেশ সফর অব্যাহত রাখবে।’
প্রধানমন্ত্রীর আসন্ন মঙ্গোলিয়া সফর উপলক্ষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, একাদশ আসেম (এএসইএম) সম্মেলনে যোগদানের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী আগামীকাল সকালে উলানবাটরের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেন।

মাহমুদ আলী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সম্মেলনে যোগদানের পাশাপাশি সুইস প্রেসিডেন্ট জোহান সেইদার আম্মান, জার্মান চ্যাঞ্চেলর এ্যানজেলা মার্কেল, মঙ্গোলিয়ার প্রেসিডেন্ট তাসখিয়াজিন আলবেগডোর্জ, মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট তিন কায়েও, জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে, রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেব. ডাচ প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুট, ইউ কাউন্সিল প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্ক, ইউ কমিশনের প্রেসিডেন্ট জিন ক্লাউদ জুনকার এবং ভারতের ভাইস প্রেসিডেন্ট এম হামিদ আনসারির সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের কথা রয়েছে।
সফরকালে ইতালির পররাষ্ট্রমন্ত্রী পাওলো জেনতিলোনি সিলভারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাৎ করবেন।
এশিয়া এবং ইউরোপ ইস্যুতে উন্নয়ন হিসাবে এই শীর্ষ সম্মেলন বাংলাদেশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ হবে। সম্মেলনে বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান, মাইগ্রেশন, কানেক্টিভিটি এবং আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ইস্যু আলোচনা হবে।
অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিশ্বনেতৃবৃন্দের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে বাংলাদেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতি এবং সন্ত্রাস নির্মূলে সরকারের অঙ্গিকার আলোচনায় স্থান পাবে।বাসস
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুক্রবার সকালে সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে শীর্ষ সম্মেলনে বৃহত্তর কানেক্টিভিটির বিষয়ে আসেম অংশীদারিত্ব বৃদ্ধি বিষয়ের ওপর ভাষণ দেবেন।
শুক্রবার সকালে মঙ্গোলিয়ার প্রেসিডেন্টের এবং সম্মেলন স্বাগতিক তাসখিয়াজিন আলবেগডোর্জির স্বাগত ভাষণের মধ্য দিয়ে সম্মেলন শুরু হবে। তবে বাংলাদেশ শুক্রবার সকালে জাপানের সাথে কাউন্টারিজম বিষয়ে বৈঠক করবে। প্রধানমন্ত্রী আগামী শনিবার দেশে ফিরে আসবেন বলে ধারণা করা যাচ্ছে।
সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম ও পররাষ্ট্র সচিব মো. শহিদুল হক উপস্থিত ছিলেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.