Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / সমস্যার সাগরে হাবুডুবু খাচ্ছে মেহেরপুরের তেরঘরিয়া আশ্রায়ন রেজি:বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

সমস্যার সাগরে হাবুডুবু খাচ্ছে মেহেরপুরের তেরঘরিয়া আশ্রায়ন রেজি:বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

মো:আবু আক্তার,মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,১৮ জুলাই:
প্রতিষ্ঠার ৯ বছর পার হলেও কোন উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি মেহেরপুরের তেরঘরিয়া আশ্রায়ন রেজি:বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টির। বাঁশের বেড়া আর টিনের ছাউনী বুকে লালন করে দাড়িয়ে রয়েছে বিদ্যালয়টি।  পর্যাপ্ত ক্লাশ রুম না থাকায় প্রচন্ড গরমে গাছতলায় চলছে পাঠ্যদান। স্কলের ছেলেমেয়েদের জন্য নেই কোন স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা এবং খাবার পানির ব্যবস্থা।
স্কুলের ছাত্র রাসেল জানান, তেরঘরিয়া আশ্রায়ন রেজি:বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্কুল বিল্ডিং নেই ,স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা নেই,টিউবয়েলের ব্যবস্থা না থাকা সহ নানা সমস্যা রয়েছে। সবচেয়ে বেশি অসুবিধা হচ্ছে ঝড় বৃষ্টি হলে ক্লাশের ভিতরে পানি পড়ায় আমরা ক্লাশ করতে পারিনা। অন্যত্র চলে যায়।
মেহেরপুরের তৎকালিন জেলা প্রশাসক আবুল কাশেমের উদ্যেগে ২০০২ সালে স্কুলটি প্রতিষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়টি চলতি ২০১১ সালে স্থায়ীভাবে সরকারি রেজিষ্ট্রেশন ভূক্ত হয়েছে। কিন্তু প্রতিষ্ঠার ৯ বছর পার হলেও বিদ্যালয়টির কোন উন্নয়ন হয়নি। ১’শ ৬৫ জন ছাত্রছাত্রীর পাঠদানের জন্য রয়েছে প্রধান শিক্ষক সহ মাত্র ৪ জন শিক্ষক ।
বৃষ্টির পানিতে ছেলেমেয়েরা ভিঁজে যায় এবং ছেলেমেয়েদের পাঠ্যবই ভিঁজে যায়। বিদ্যালয়টি ক্লাশ নেওয়ার একেবারে অনপোযোগী হওয়ায় বাধ্য গাছের নিচে ক্লাশ নেয়া হচ্ছে। এসব নানাবিধ কারনে বিদ্যালয়টির ভবন নির্মান অতিব জরুরী হয়ে দেখা দিয়েছে।
স্কুল শিক্ষিকা শিরিনা খাতুন বলেন,ক্লাশ রুম না থাকা এবং প্রচন্ড গরমের ছেলেমেয়েরা কষ্ট পায় এজন্য গাছের নিচে ক্লাশ নেওয়া হয়। স্কুল ঘরের ওপরে টিনের ছাউনী এবং ক্লাশ রমে ফ্যান না থাকায় গরমে ছেলেমেয়েরা ভীষন কষ্ট পায়।
প্রধান শিক্ষক কাওসার আলী বলেন,২০০২ সালে তৎকালিন জেলা আবুল কাশেমের উদ্যেগে স্কুলটি প্রতিষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয় ২০১১ সালে সরকারি রেজিষ্ট্রেশন ভূক্ত হয়েছে। কিন্তু প্রতিষ্ঠার ৯ বছর পার হলেও বিদ্যালয়টির কোন উন্নয়ন হয়নি। বাঁশের বেড়া আর টিনের ছাউনী বুকে লালন করে দাড়িয়ে রয়েছে। বিদ্যালয়টির ভবন নির্মান করা একান্ত প্রয়োজন। কারন স্কুলের যে অবস্থা সেটা ঝড়ের সাথে মোকাবেলা করা অনপোযোগী। বৃষ্টির পানিতে ছেলেমেয়েরা ভিঁজে যায় এবং ছেলেমেয়েদের পাঠ্যবই ভিঁজে যায়। বিদ্যালয়টি আসলে ক্লাশ নেওয়ার অনপোযোগী হওয়ায় বাধ্য গাছের নিচে ক্লাশ নেয়া হচ্ছে। এসব নানাবিধ কারনে বিদ্যালয়টির ভবন নির্মান অতিব জরুরী হয়ে দেখা দিয়েছে।
স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি জেহের আলী জানান,তেরঘরিয়া আশ্রায়ন প্রকল্পের বাসিন্দা হিসেবে এখানকার শিক্ষার হার শতভাগ চাই। আশ্রায়ন প্রকল্পের সকলের চেষ্টায় ৯ বছর ধরে বাঁশের বেড়া আর টিনের ছাউনী দিয়ে একটি ঘর দাড় করিয়ে কোন রকমের কচিকাচাদের জন্য প্রাথমিক স্কুল চালিয়ে যাচ্ছি। এসব ছেলেমেয়েদের লেখা পড়ার জন্য ২০০০ সাল থেকে অদ্যবধি কোন সহায়তা আসেনি। যে কারনে তারা অকালে ঝড়ে পড়ছে। আমাদের দাবী তেরঘরিয়া আশ্রায়নে একটি পূর্ণাঙ্গ প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হউক।
স্কুল ছাত্রী তাবাসুম বলেন,স্কুল বিল্ডিং না থাকায় আমাদের পড়াশুনায় অনেক কষ্ট হয়। ঝড় বৃষ্টি হলে স্কুলে পড়াশুনা করতে পারিনা। বড় হয়ে পড়াশুনা করে চাকুরী করবো এই আশা আমাদের সকলের আছে। অসুবিধা হচ্ছে স্কুলে প্রস্রাব পায়খানা করার কোন জায়গা নেই।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: জেসের আলী বলেন,তেরঘরিয়া রেজিষ্ট্যাড প্রাথমিক বিদ্যালয়টি এবছর স্থায়ীভাবে রেজিষ্ট্রেশন পেয়েছে। স্থায়ী রেজিষ্ট্রেশন পাওয়ার পর বিধি মোতাবেক এমপিও ভুক্তির জন্য স্কুলের শিক্ষকদের আবেদন করতে হবে। আবেদন করলে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের পক্ষ থেকে বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করা হবে এবং সংশ্লিষ্ট দপ্তরে রিপোর্ট পাঠানো হবে। বিদ্যালয়টির এখনও স্থায়ী ভবন হয়নি। স্থায়ী ভবন নির্মানের জন্য অগ্রাধিকার ভিত্তিতে একটি প্রকল্প আকারে অচিরেয় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে প্রস্তাবনা পাঠানো হবে। এটা ঠিক বিদ্যালয়টি যাতে দ্রুত এমপিও ভূক্ত করা যায় তার জন্য সব ধরনের চেষ্টা চালানো হবে।
বর্তমান সরকারের কাছে তেরঘরিয়া আশ্রায়নবাসীর দাবী, স্কুলটি এমপিও ভুক্তি করা সহ অবকাঠামোগত উন্নয়ন করার।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful