Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / সরকারি আইন উপেক্ষা ।।টিনের চিমনীর ইটভাটা বন্ধের দাবী মেহেরপুরে গড়ে উঠা অবৈধ ইটভাটা পরিবেশের বিপর্যয় ঘটাচ্ছে

সরকারি আইন উপেক্ষা ।।টিনের চিমনীর ইটভাটা বন্ধের দাবী মেহেরপুরে গড়ে উঠা অবৈধ ইটভাটা পরিবেশের বিপর্যয় ঘটাচ্ছে

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,২৬ ফেব্রুয়ারি:
মেহেরপুরের ৩ টি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে প্রতি বছর সরকারি আইন উপেক্ষা করে নতুন নতুন অবৈধ ইটভাটা গড়ে উঠছে। আর এ সকল অবৈধ ইটভাটায় কয়লায় বদলে প্রতিদিন গড়ে ২৫ হাজার মন জ্বালানী কাঠ পোড়ানো হচ্ছে। ইটভাটার কালো ধোঁয়ায় এলাকার পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। ছড়াচ্ছে বিভিন্ন রোগবালাই। এতে এক দিকে যেমন পরিবেশ নষ্ট  হচ্ছে, তেমনি নষ্ট হচ্ছে আবাদী জমি, উজাড় হচ্ছে গাছ পালা, ভারসাম্য হারাচ্ছে প্রকৃতি।  
জানা যায়, চলতি বছরে জেলায় মোট ৯১ টি ইট ভাটা গড়ে উঠেছে। তার মধ্যে অবৈধ টিনের চিমনির ইট ভাটা হচ্ছে ৪২ টি। যার মধ্যে গাংনী উপজেলায় ২২টি, মুজিবনগর উপজেলায় ৮টি এবং সদর উপজেলায় রয়েছে ১২ টি। প্রভাবশালী রাজনীতিকরা প্রশাসনের অনুমতি না নিয়ে ক্ষমতার জোরে এসব ইটভাটা তৈরী করছেন। ইট ভাটায় চিমনী তৈরীতে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে মেহেরপুর জেলার অধিকাংশ ইটভাটা মালিক টিনের ব্যারেল-ড্রামের চিমনী ব্যবহার করছে। ইতোমধ্যে পুলিশ প্রশাসন অবৈধ ইটভাটার তালিকা তৈরী করে অভিযান পরিচালনার জন্য জেলা প্রশাসনের নিকট অনুমতি চেয়েছে। প্রশাসন একবার অভিযান চালিয়ে প্রায় পৌনে ২ লাখ টাকা জরিমানা আদায় করেছে। তবে অজ্ঞাত কারণে অভিযান থমকে রয়েছে। এদিকে ইট পোড়ানো নিয়ন্ত্রণ আইন অনুযায়ী আবাদি জমিতে কোন ইটভাটা তৈরী করা যাবে না ও ১২০ ফুট চিমনি ব্যবহার করতে হবে। এছাড়াও কাঠ পোড়ানো যাবেনা। কোন ইট ভাটায় তার অনুমতির শর্তানুযায়ী কয়লা ব্যবহার করা হয় না। অধিকাংশ ইটভাটায় কয়লার বদলে কাঠ ব্যবহার করা হচ্ছে। বিশেষ করে ফলজ ও বনজ বৃক্ষ ছাড়াও বাঁশের মোথা ব্যবহারের ফলে বাঁশঝাড় উজাড় হচ্ছে। প্রশাসনের লোকজন জরিমানা আদায় করলেও ইটভাটায় কাঠ পোড়ানো বন্ধ হচ্ছে না।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.