Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / সাংবাদিক সামাদুল ইসলাম বেঁচে থাকবে সবার মাঝে

সাংবাদিক সামাদুল ইসলাম বেঁচে থাকবে সবার মাঝে

মুহাম্মদ রবিউল ইসলাম:

বিশিষ্ট সাংবাদিক ও সাহিত্যিক সামাদুল ইসলাম আমাদের মাঝে আর নেই। তিনি আমাদের ছেড়ে চিরবিদায় নিয়েছেন । তিনি ছিলেন একজন সাহসী ও বলিষ্ট ব্যক্তিত্ব। তার অকাল মৃত্যুতে  আমরা শোকাহত। আমরা মেহেরপুরের সাহিত্য,সাংস্কৃতিক ও সাংবাদিকতার ৰেত্রে তার অবদানকে শ্রদ্ধার স্মরণ করি।

সামাদুল ইসলাম  আমার অত্যনৱ ঘনিষ্টজন ছিলেন । একই এলাকাই বাড়ি, একই সাথে সাহিত্য ও সাংবাদিকতা করার কারণে তার সাথে আমার সম্পর্ক অত্যনৱ গভীর হয়েছিল। ১৯৮৮ সালে তার প্রথম ও শ্রেষ্ঠ কাব্যগ্রন্থ ’আগুনের শিরোচ্ছেদ সবুজ হবো’ প্রকাশিত হয়। এই কাব্যগ্রন্থের প্রকাশনা উৎসবে প্রধান অতিথি ছিলেন  খ্যাতনামা সাংবাদিক ও কলামিষ্ট মরহুম আলহাজ্ব শামস উল হুদা। আলহাজ্ব শামস উল হুদা ছিলেন মর্নিং নিউজ এর সাবেক সম্পাদক ও বাংলাদেশ সরকারের সাবেক প্রিন্সিপাল ইনফরমেশন অফিসার। তিনি দৈনিক জনতার সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি ছিলেন। তাঁর মতো একজন গুণীজনকে নিয়ে যাওয়াতে সামাদুল ইসলাম  মেহেরপুরের সুধীমহলে প্রশংসিত হয়েছিল। এ ব্যাপারে আমার সার্বিক সহযোগিতা ছিল। আলহাজ্ব শামস উল হুদা মেহেরপুরে যাওয়াতে মেহেরপুরবাসীর বেশ উপকার হয়েছিল। মেহেরপুরবাসী আলহাজ্ব শামস উল হুদাকে ব্যাপক  সম্মানও দেখিয়েছিল এবং মেহেরপুর প্রেসক্লাবের পৰ থেকে তাঁকে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছিল। সেখানে মেহেরপুরের জনপ্রিয় দুই নেতা  মোহাঃ সহিউদ্দিন ও মোঃ আহমদ আলী মেহেরপুরবাসীর দাবী উত্থাপন করেছিলেন্‌। আলহাজ্ব শামস উল হুদা স্থানীয় সাংবাদিকদের নিয়ে মুজিবনগর ও আমঝুপী গিয়েছিলেন্‌।  তিনি ঢাকায় ফিরে দৈনিক জনতা, দৈনিক দেশ, সাপ্তাহিক মুক্তিবাণী সহ বিভিন্ন পত্রিকায় সামাদুল ইসলামের গ্রন্থের বর্ণনা ও  মেহেরপুরবাসীর বিভিন্ন দাবী উত্থাপন করে বিসৱরিতভাবে লেখালেখি করেন। তৎকালীন রাষ্ট্রপতি এরশাদ সরাসরি  টেলিফোনে আলহাজ্ব শামস উল হুদাকে এ ব্যাপারে ধন্যবাদ জানান এবং বলেন, আপনার মেহেরপুরের বন্ধুদের বলে দিন  মেহেরপুরের সমস্যাগুলো আমি দেখবো।

সামাদুল ইসলাম একজন বিশিষ্ট  সাহিত্যিক ছিলেন। তার প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪টি। তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ ’আগুনের শিরোচ্ছেদ সবুজ হবো’(১৯৮৮)। এরপর ‘মাত্র এইটুকু(গল্পগ্রন্থ), পালাতক সময়ে (গল্পগ্রন্থ) ও নীল যন্ত্রণা ( গীতিকাব্য) প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া তিনি রচনা করেছেন  সহধর্মিনী (গল্পগ্রন্থ), রম্নবেলের মার বিয়েতে (গল্পগ্রন্থ), বিট্রেয়ার (উপন্যাস), অর্বাচীন এখনও বন্দী(রম্য গল্প), মুক্তিযুদ্ধ ও মেহেরপুর (প্রবন্ধ), ছাদড়ালেই ঠিক হয়ে যাবে (কাব্যগ্রন্থ) ,আমি যখন ফেরারী ছিলাম (গল্পগ্রন্থ)।

সামাদুল ইসলাম  মেহেরপুরের মুক্তিযুদ্ধ সর্ম্পকে একটি গবেষনাধর্মী গ্রন্থ রচনা করছিলেন, তার নাম ‘মেহেরপুরের মুক্তিযোদ্ধাদের জীবন চরিত’। আনিসুজ্জামান মেন্টু ও সামাদুল ইসলাম এই গ্রন্থের লেখক । তিনি ভৈরব সাহিত্য সাংষ্কৃতিক চত্বরের অন্যতম প্রধান ব্যক্তিত্ব ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তিনি ১৮ বছর এই সংগঠনের সাহিত্য সম্পাদক ছিলেন এবং ৭৬টি সাহিত্য পত্রিকা সম্পাদনা করেন। সংগঠনের রজতজয়নৱী উপলৰে সামাদুল ইসলামকে  রজতজয়ন্ত সাহিত্য পদক প্রদান করা হয়। এছাড়া তিনি জাতীয় ও স্থানীয় ভাবে ব্যাপক পুরস্কার ও সম্মান লাভ করেন। তিনি মেহেরপুর সরকারী কলেজ থেকে বিএ ডিগ্রী লাভ করেন। তিনি মেহেরপুর স্টেডিয়ামপাড়ার মৃত ইবাদত আলীর সনৱান ছিলেন।

সামাদুল ইসলাম দৈনিক মানবজমিনের মেহেরপুর জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত ছিলেন। সাংবাদিক হিসেবে সামাদুল ইসলাম অত্যনৱ সাহসী ছিলেন। তিনি গত বুধবার ২৯ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত ১টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিংসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না… রাজেউন)| তার লাশ বৃহস্পতিবার মেহেরপুরে নেয়ার পর দাফনের ব্যবস্থা করা হয়। সামাদুলের মৃত্যুর সংবাদে মেহেরপুরে সাংবাদিকদের ও সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে নেমে এসেছে শোকের ছায়া| সাংবাদিক সামাদুল ইসলামের অকাল মৃত্যুতে মেহেরপুরের সাংবাদিক সমাজ , রাজনৈতিক মহল ও দৈনিক মাথাভাঙ্গা পরিবার শোক প্রকাশ করেছে।

সামাদুল ইসলামকে আমরা চিরকাল স্মরণ করবো। মেহেরপুরবাসীর কর্তব্য তার অপ্রকাশিত  গ্রন্থগুলো প্রকাশ করা এবং এতিম সন্তানদের দেখাশোনা করা। আমরা মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করছি এবং মাহান আলস্নাহতায়ালার কাছে আমাদের প্রত্যাশা  তিনি যেন তাকে মাফ করেন ও বেহেস্তনসিব করেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful