Templates by BIGtheme NET
Home / মিডিয়া / সাংবাদিক সৈকত রুশদী’র জন্মদিন আজ ।। মেহেরপুর নিউজ পরিবারের শুভেচ্ছা

সাংবাদিক সৈকত রুশদী’র জন্মদিন আজ ।। মেহেরপুর নিউজ পরিবারের শুভেচ্ছা

10421171_1102164956464777_5178385417676364218_nমেহেরপুর নিউজ, ০৫ নভেম্বর:
কানাডা প্রবাসী আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন রাজনীতি ও গণমাধ্যম বিশ্লেষক, বেতার ও টেলিভিশন ভাষ্যকার, সাংবাদিক, লেখক ও কবি সৈকত রুশদী আজ ৫৭ বছরে পা দিলেন।জন্মদিনের এ শুভক্ষনে মেহেরপুর নিউজ পরিবারের পক্ষ থেকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

১৯৮০-এর দশকে লন্ডনে বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিস-র সদর দফতরে ব্রডকাস্টার হিসেবে কাজের পর ১৯৯০ দশকে তিনি বাংলাদেশে, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া ও ব্রিটেনের দূতাবাসে উর্ধ্বতন গণমাধ্যম ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক হিসাবে কাজ করেন।এক যুগ ধরে টরন্টোয় বসবাসকারী এই সাংবাদিক বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণমাধ্যম বিশ্লেষক (media intelligence) প্রতিষ্ঠান সিশন (Cision)-এর কানাডার সদর দফতরে মূল্যায়ন সম্পাদক ও বিশ্লেষক হিসেবে কর্মরত আছেন।

১৯৫৯ সালের ৫ নভেম্বর বাংলাদেশের পশ্চিম সীমান্তবর্তী শহর মেহেরপুরের এক হাসপাতালে তাঁর জন্ম।ব্যবসায়ী আ. ক. ম. মনিরুল হ্ক ও রোকেয়া বেগমের একমাত্র পুত্র সৈকত রুশদী নদীয়া-কুষ্টিয়া জেলার প্রখ্যাত চিকিৎসক ডাক্তার জাফর আলীর পৌত্র।তাঁর লেখাপড়ার শুরু মেহেরপুর বিএমপ্রাথমিকবিদ্যালয়ে।পরবর্তীতে তিনি ঢাকার ইন্টারমিডিয়েট টেকনিক্যালকলেজ (বর্তমানে বিজ্ঞান কলেজ), আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষালাভ করেন।

তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজ বিজ্ঞানে সম্মান সহস্নাতক (বি.এস.এস.) ও স্নাতকোত্তর (এম.এস.এস.) ডিগ্রী লাভকরেন।ছাত্র থাকাকালেই সাপ্তাহিক ‘কিশোর বাংলা’সহ একাধিক পত্রিকায় তাঁর ছড়া ও কবিতা লেখার শুরু।

১৯৭৮সালে সেসময়ের সর্বাধিক প্রচারিত সাপ্তাহিক‘বিচিত্রা’য় ক্রীড়াবিষয়কনিবন্ধপ্রকাশের মধ্যদিয়ে তাঁরসাংবাদিকতায় পদার্পণ।পরবর্তীতে তিনি সাপ্তাহিক‘মতামত’ও‘দৈনিকদেশ’ পত্রিকায় স্টাফরিপোর্টার এবং বাংলাদেশটেলিভিশনওবাংলাদেশবেতারেভাষ্যকার হিসাবে কাজ করেন।লন্ডনে বিবিসি’র বাংলাবিভাগে ব্রডকাস্টার হিসাবে কাজ করেন ১৯৮৩থেকে১৯৮৫এবং১৯৮৬সালে।ঢাকায় ফিরে স্টাফ রিপোর্টার হিসাবে কাজ করেন দৈনিকখবর ও ইংরেজি দৈনিক দ্য বাংলাদেশ টাইমস-এ।এসময়ে ভারতেরসাপ্তাহিক ‘দেশ’ সহ একাধিক দৈনিক ও সাপ্তাহিক পত্রিকায় তাঁর রচিত নিবন্ধ, গল্পও কবিতা প্রকাশিতহয়।

১৯৯২ সালে তিনি ঢাকায় কানাডার দূতাবাসে তথ্য ও রাজনৈতিক কর্মকর্তা হিসেবে যোগদেন।এক বছর পর যোগদেন অস্ট্রেলিয়ার দূতাবাসে। ১৯৯৩ থেকে২০০৩ সাল পর্যন্ত তিনি ব্রিটেনের দূতাবাসে প্রথমে উর্ধ্বতন গণমাধ্যম ও জনবিষয়ক কর্মকর্তা এবং পরে উর্ধ্বতন রাজনৈতিক বিশ্লেষক হিসাবে দক্ষতার সাথে কাজ করেন।২০০৩ সালে চাকুরী ছেড়ে তিনি সপরিবারে অভিবাসী হন কানাডায়।

সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মী সৈকত রুশদী ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের যুগ্মসম্পাদক নির্বাচিতহন ১৯৯১-১৯৯২মেয়াদে। বর্তমানে তিনি জাতীয় প্রেসক্লাবের সহযোগীসদস্য। এছাড়া তিনি বাংলাদেশ পরিবেশ সাংবাদিক ফোরাম ও বাংলাদেশ ক্রীড়া সাংবাদিক সমিতি-রসদস্য, পরিবেশ বিষয়ক প্রতিষ্ঠান হল্টগ্রীন হাউস-এর যুগ্মআহবায়ক এবং লায়ন্সক্লাব ও ঢাকা প্রগতি গ্রেটার-এর পরিচালক হিসাবে অবদান রেখেছেন। তিনি ১৯৮৫ সালে ব্রিটেনের বাংলা সাহিত্য পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক হিসাবে প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলায় অবদান রাখেন। বাংলাদেশে দাবা ফেডারেশন ও ক্রিকেট বোর্ডের গণমাধ্যম বিষয়ক কমিটিতে ও তিনি কাজ করেছেন।টরন্টোতে তিনি ভ্যালী পার্ক স্কুলের পরামর্শক কাউন্সিল-এর নির্বাচিত সদস্য এবং ভ্যালীপার্ক গোগ্রীন ক্রিকেট ফিল্ড প্রকল্পের সদস্য হিসাবে কাজ করেছেন।

তাঁর প্রকাশিত রচনা ও কাজের মধ্যে রয়েছে, উপন্যাস ‘অচিনপাখী’ (২০০৩); সম্পাদিত প্রকাশনা লন্ডনের বাংলাদেশ সেন্টারের জন্য ‘একুশেস্মরণিকা’ (১৯৮৪) ও ‘হল্টগ্রীনহাউস’ (১৯৮৯) এবং কাঠের কাজ বাংলাদেশ সেন্টারের জন্যকেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের রেপ্লিকা।

১৯৭ ১সালের১৭ এপ্রিল মুজিবনগরে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের প্রথম সরকারের শপথ অনুষ্ঠানের দিনটিকে ভিত্তি করে মেহেরপুরে প্রতিবছর১৪থেকে১৭এপ্রিল ‘বাংলারঐতিহ্যমেহেরপুরউৎসব’ নামে একটি সার্বজনীন উৎসব চালু করার প্রস্তাবক তিনি।

সাংবাদিক হিসেবে তিনি ঢাকায় দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা সার্ক-এর উদ্বোধনী শীর্ষসম্মেলন (১৯৮৫) ও কানাডার ভিক্টোরিয়ায় জাতিসংঘের শিশুদের জন্য পরিবেশ বিষয়ক বিশ্বসম্মেলন (২০০২) সহদেশে ও বিদেশে বহুসম্মেলন, অনুষ্ঠান ও ঘটনার খবর পরিবেশন করে খ্যাতি অর্জন করেন। বিভিন্ন সময়ে বিবিসি, ভয়েস অব আমেরিকা, বাংলাদেশে চ্যানেল আই টেলিভিশন, কানাডার এশিয়ান টেলিভিশন নেটওয়ার্ক ও স্যাটেলাইট রেডিও এক্সএমরেডিও তাঁরসাক্ষাতকার গ্রহণ করেছে।

বর্তমানে তিনি একাধিক অনলাইন সংবাদমাধ্যমে কলাম লিখে থাকেন এবং কানাডার এশিয়ান টেলিভিশন নেটওয়ার্ক-এ ভাষ্যকার হিসাবে কাজ করে থাকেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.