Templates by BIGtheme NET
Home / অতিথী কলাম / সিউল শান্তি সম্মেলন: আমরা

সিউল শান্তি সম্মেলন: আমরা

_MG_772812032482_947136038685404_786926183_nমো: জাকির হোসেন:
সিউল ! দক্ষিন কোরিয়ার রাজধানী। বিশ্ব ভ্রাতৃত্বের মিলন মেলা । বিশ্বের শান্তিপ্রিয় মানুষগুলো একই সারিতে, কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে, হাতে হাত রেখে সমস্বরে আওয়াজ তুললেন ”আমরা শান্তি চাই” । ”এসো সকলে মিলে শান্তির পৃথিবী গড়ি”।
সুহৃদ পাঠক, এতক্ষনে হয়তো উপলব্ধি করতে পারছেন আমি কি বলতে চাইছি। বিশ্ব শান্তি সম্মেলনের কথা। সারা বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠার কথা। ধর্মীয় সম্প্রীতির মাধ্যমে পৃথিবীকে একটি শান্তিময় আবাসভূমি হিসেবে গড়ে তোলার কথা । যুদ্ধ নয় – শান্তি। এ প্রতিপাদ্যে ১৮ – ১৯ সেপ্টেম্বর অনষ্ঠিত হলো বিশ্ব শান্তি সম্মেলন।
সিউল অলিম্পিক গেটে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে খোলা আকাশের নীচে হাজার হাজার শান্তিপ্রিয় মানুষ। নেই কোন সামিয়ানা, নেই কোন সেড কিংবা প্রখর রোদ থেকে বাঁচার বিকল্প ভাবনা । কামনা শুধু একটিই ”হে সৃষ্টিকর্তা আমাদের শক্তি দাও, আমরা যেন বিশ্ব মানবতার সেবাই নিজেকে নিয়োজিত করতে পারি। হঠাৎ ফিরে পেলাম সম্বিত। ভাবলাম বাংলাদেশে যা অসম্ভব এখানে সেটি অসম্ভব বলে কিছুই নাই। ভাবা যাই প্রায় ১৫টি দেশের সাবেক সরকার প্রধানসহ সাবেক মন্ত্রী কিংবা প্রায় অর্ধশতাধিক দেশের বিশ্ব বরেন্য নেতৃবৃন্দ খোলা আকাশের নীচে দাঁড়িয়ে রইল। করতালি দিয়ে অনুষ্ঠানকে প্রানবন্ত করে তুলল। প্রাণভরে উপভোগ করল শান্তির নির্মল বানীগুলো। এমনি এক মহা মহিমান্বিত অনুষ্ঠানে যোগদানের সুযোগ করে দেয়ার জন্য নিজের অজান্তেই হৃদয়ে স্পন্দিত হলো -হে 12042175_947136105352064_769255730_nআল্লাহ তোমার প্রতি হাজারো শুকর গোজার করি । ফিরে গেলাম সংগঠনের চেয়ারম্যান মান হী লী’র বক্তব্যে। তিনি আহবান করছেন সকল মানুষকে শান্তির পথে কাজ করতে, তিনি আবেগময়ী কন্ঠে ঘোষনা করছেন শান্তি প্রতিষ্ঠার ফর্মূলা। তাঁর পরপরই বক্তব্য নিয়ে এলেন আরো এক মহিয়সী নারী । আইপিওয়াউজি এর সভানেত্রী নাম হী কিম। যেমন তার রূপ তেমনি তার সুরেলা কন্ঠ আর সেইসাথে সমধূর বানী। শেষ হলো উদ্বোধনি অনুষ্ঠান।
মধ্যাহ্ন ভোজনের পর সিউল জি. এস ইনিষ্টিটিউশনে শুরু হলো দ্বিতীয় অধিবেশন সেখানে বিশ্ব নেতৃবৃন্দ তুলে ধরেন তাদের ভাবনাগুলো । একে একে ক্রোয়েশিয়া থেকে শুরু করে নেপালের সাবেক প্রধানমন্ত্রী। সকলের কন্ঠেই উচ্চারিত হলো বিশ্ব মানবতার কথা। বিশ্ব ভ্রতৃত্বের কথা।
শেষদিনটি ছিল আরো আকর্ষনীয় এবং কার্যকারী বটে । সেখানে আলোচিত হলো নতুন একটি আন্তর্জাতিক 12042244_944052445660430_689780416_nআইন প্রণয়নের প্রয়োজনীয়তা। ভালো লাগল, যখন এমনি একটি সেশনে আলোচনায় অংশ নিলেন বাংলাদেশের কৃতি সন্তান ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক জনাব আসিফ নজরুল। আরো ভালো লাগল অনেক প্রখ্যাত আইনবীদ জনাব নজরুল এর বক্তব্য সমর্থন করে তাদের মতামত দিলেন। গর্বে মন ভরে গেল।
অনুষ্ঠান শেষে আমাদের অত্যাধুনিক গাড়ি ছুটে চলল পাহাড়ি এলাকার উদ্দেশ্যে। যেখানে মান হী লী হৃদয়ের মাধুরী দিয়ে গড়ে তুলেছেন পীচ প্যালেস। সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলো। সূর্যাস্তের পরপরই শুরু হলো রাতের খাবার গ্রহনের পর্ব। এরপর সেই কাংখিত মুহুর্ত। হাজার হাজার আতশবাজী আর তারই ভিতরে মান হী লী এবং নাম হী কিমের’র মুখচ্ছবি। প্রকৃতি যেন মিলে মিশে একাকার হয়ে গেল। আকাশের চাঁদ কৃত্রিম তারাগুলোকে আলিঙ্গন করে ছড়িয়ে দিল তার স্নিগ্ধ আলোকরাশি। কতক্ষন স্থায়ী ছিল সে অনুষ্ঠান জানিনা তবে মনে হলো মধুময় ক্ষনগলো দ্রুত শেষ হয়ে যাই। তার রেশ থাকে অনেকদিন, অনেক বছর। ভাবনার শেষে পৌছে গেলাম নভোটেল – সেই অতি অপরুপ হোটেল ।
লেখক : মোঃ জাকির হোসেন, পীস এ্যাম্বাসেডর, আই পি ওয়াই জি

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.