Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / সেবা নিতে গিয়ে প্রেমজ সম্পর্ক।। বিয়ের আশ্বাসে পিতা-মাতা ত্যাগ।। বিয়ে করতে নওগাঁ থেকে গাংনীর যুগিন্দা আগমন ।। প্রেমিকার অস্বীকার ।। প্রেমিকের বিষপান

সেবা নিতে গিয়ে প্রেমজ সম্পর্ক।। বিয়ের আশ্বাসে পিতা-মাতা ত্যাগ।। বিয়ে করতে নওগাঁ থেকে গাংনীর যুগিন্দা আগমন ।। প্রেমিকার অস্বীকার ।। প্রেমিকের বিষপান

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,২৮ মার্চ:
সেবা নিতে গিয়ে সেবিকার প্রেমে হাবুডুবু খেয়ে নিঃস্ব হয়েও প্রেমিকা তাকে বিয়ে করতে অস্বীকার করায় প্রেমিক সুদূর নওগাঁ থেকে মেহেরপুর এসে বিষ পান করে আত্মহত্যা চেষ্ঠা করে হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। সোমবার দুপুরের দিকে মেহেরপুর সদর উপজেলার আমঝুপি নীলকুঠি এলাকায় প্রেমিক পুরুষ মাদ্রাসা শিক্ষক ফেরদৌস আহমেদ চৌধুরী (২৫)।
জানা যায়, মেহেরপুর গাংনী উপজেলার ধানখোলা ইউনিয়নের যুগিন্দা গ্রামের বিজয় মন্ডলের মেয়ে রেবেকা মন্ডল (২০) রাজশাহী ই এম সেন্টারে সেবিকা হিসেবে কর্মরত থাকাকালে নওগাঁ জেলার শিবরামপুর উপজেলার ধামার হাট গ্রামের বেলায়েত হোসেন চৌধুরীর ছেলে জগদল আদিবাসী মাদ্রাসার সহকারি শিক্ষক ফেরদৌস আহমেদ চৌধূরীর ৪ বছর আগে পা ভেঙে গেলে চিকিৎসার জন্য রাজশাহী ই এম সেন্টারে ভর্তি হন। সেখানে চিকিৎসা ও নার্স রেবেকা মন্ডলের সেবা পেয়ে মাদ্রাসা শিক্ষক ফেরদৌস আহমেদ চৌধূরী সুস্থ্য হয়ে উঠেন। ওই সময় থেকে তাদের দু’জনের মন দেয়া-নেয়া শুরু হয়।
ফেরদৌস আহমেদ চৌধূরী জানায়, তিনি সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফেরার পর প্রতিদিন মোবাইল ফোনে তাদের ৩ ঘন্টা করে কথা হত। তিনি ঘর বাধার রেবেকা মন্ডলের পিছনে ৪ বছরে প্রায় ৪ লাখ টাকা খরচও করেছেন। রেবেকার কথামত শিক্ষক ফেরদৌস আহমেদ চৌধূরী তার পিতা-মাতাকে প্রায় ৬ মাস আগে ত্যাগ করলে রেবেকা মন্ডল তাকে বিয়ের আশ্বাস দেয়। বিয়ের জন্য রেবেকা মন্ডল সর্বশেষ তাকে মেহেরপুরে আসতে বলে। তার কথামত শিক্ষক ফেরদৌস আহমেদ চৌধূরী জগদল আদিবাসী মাদ্রাসা থেকে ছুটিও নেন এবং গত রোববার মেহেরপুরের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। তিনি মেহেরপুর পৌঁছে সরাসরি গাংনীর যুগিন্দা গ্রামে পেমিকার বাড়ি পৌছান। তিনি অত্যন্ত আবেগ ও আগ্রহ নিয়ে প্রেমিকা বেবেকা মন্ডলকে বিয়ে করতে আসেন। কিন্তু তার সে আশায় ছাই দিল প্রেমিকা রেবেকা মন্ডল। রেবেকা তাকে বিয়ে করবে না বলে সাফ কথা জানিয়ে দেয় এবং তাকে অপমান করে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। মনের দুঃখ নিয়ে  মাদ্রাসা শিক্ষক ফেরদৌস আহমেদ চৌধূরী ওই রাতে ওই গ্রামের ইউপি সদস্য জাফরের বাড়িতে অবস্থান করে।
সোমবার সকালে তিনি প্রেমিকের এলাকায় আত্মহুতি দেয়ার মানসিকতা নিয়ে ইতিহাস খ্যাত আমঝুপি কুঠি বাড়িতে যান। সেখানে তিনি ২ বোতল বিষ কেনেন। এদিন বেলা ১ টার দিকে তিনি এক বোতল বিষ পান করেন। তিনি অসুস্থ্য হয়ে পড়লে এলাকার লোকজন টের পায়। তাকে দ্রুত মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শেষ খবর পাওয়া পর্যান্ত তার অবস্থা শংকামুক্ত নয় বলে কর্তব্যরত ডাক্তার জানিয়েছেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.