Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / সেরা কর্মকর্তা হলেন যারা

সেরা কর্মকর্তা হলেন যারা

পুলিশ সুপার আনিছুর রহমান: ২০তম বিসিএস পরীক্ষা দিয়ে বাংলাদেশ পুলিশের চাকুরী জীবন শুরু করেন। প্রশিক্ষন শেষ করে ২০০১ সালে খুলনা মেট্রো পলিটন এলাকায় সহাকরী পুলিশ সুপার পদে যোগদান করেন। তিনি ময়মনসিং ও গায়বান্ধা জেলার সহকারী পুলিশ সুপার এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসাবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। আনিছুর রহমান ২ বার জাতি সংঘ মিশন পূর্ব তিমুর এবং বেলারুশে দায়িত্ব পালন করার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। এছাড়াও এআইজি হিসাবে পুলিশ হেড কোয়াটারে চাকুরি করার পর ২০১৭ সালের ১৭ আগষ্ট পুলিশ সুপার হিসাবে পদন্নতি লাভ করে মেহেরপুরে আসেন। ২ সন্তানের জনক আনিছুর রহমান মেহেরপুরে যোগদান করার পর মাদক ও সন্ত্রাস নির্মূল করা সহ বৃক্ষ রোপন কাজে আগ্রনী ভূমিকা পালন করেন। মেহেরপুর জেলায় ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছেন। তিনি মেহেরপুর জেলাকে মাদক নিয়ন্ত্রর্ণ জেলা হিসাবে ঘোষনা করার অপক্ষোয় রয়েছেন। সরকারিভাবে স্বীকৃতি পাওয়ায় আনন্দিত। তিনি বলেন মানুষের সেবা করার মতো মহৎ কাজ আর হতে পারেনা।

এলজিইডি নির্বাহী প্রকৌশলী আজিম উদ্দীন সর্দার: ১৯৯৭ সালে উপজেলা প্রকৌশলী হিসাবে পঞ্চগড় জেলায় চাকুরী জীবন শুরু করেন। তিনি দেশের বেশ কয়েকটি জেলায় সুনামের সাথে চাকুরি করার পর ২০১৫ সালের ১৫ সেপ্টে¤^র মেহেরপুর এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী হিসাবে মেহেরপুরে যোগদান করেন। মেহেরপুর জেলায় কর্মরত অবস্থায় মেহেরপুর জেলার বিভিন্ন গ্রামের সড়ক ব্রীজ নির্মাণ করার কাজে অগ্রণী ভূমিকা পালন করার পাশাপাশি বৃক্ষ রোপনের ক্ষেত্রেও রেখেছেন বিশেষ অবদান। ২ কন্যা সন্তানের জনক আজিম উদ্দীন সর্দার পুরষ্কার লাভে ভীষণ খুশি। তিনি সকলের দোয়া কামনা করেছেন।

 

 

ইউএনও নাহিদা আখতার: মুজিবনগর উপজেলার প্রথম মহিলা নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করছেন। ২৩ তম বিসিএস এর মাধ্যমে নাহিদা ২০১০ সালে সহকারী কমিশনার হিসাবে কুষ্টিয়াতে কর্মজীবন শুরু করেন। পরে বেশ কয়েকটি জেলায় জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন পদে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করার পর প্রায় ১ বছর পূর্বে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসাবে মুজিবনগরে যোগদান করেন। ১ পুত্র, ১ কন্যা সন্তানের জননী নাহিদা আখতার মুজিবনগরে যোগদানের পর থেকে অনিয়ম, দূর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হন, পাশাপাশি বৃক্ষ রোপন সহ সরকারের উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড পরিচালনার ক্ষেত্রে অগ্রনী ভূমিকা পালন করেন। সরকারিভাবে স্বীকৃতি স্বরূপ ক্রেষ্ট পাওয়ায় তিনি আনন্দিত। আগামী দিনে কাজের গতি আরো বাড়াবে বলে তিনি মত পোষন করেন। নাহিদা আখতার সকলের কাছে দোয়া কামনা করেছেন।

এসি ল্যান্ড দেলোয়ার হোসেন: এক ঝাঁক তরুন সহকারী কমিশনারের সাথে জেলা প্রশাসনে সহকারী কমিশনার হিসাবে মেহেরপুর থেকে চাকুরী জীবন শুরু করেছিলেন দেলোয়ার হোসেন। ২০১৪ সালে ৩৩তম বিসিএস এর সদস্য তিনি। কর্মজীবন মেহেরপুর শুরু তাই মেহেরপুরের প্রতি আলাদা একটা দরদ চলে এসেছে। মৎ, কর্মঠ ও দায়িত্ববান হিসাবে বেশ পরিচিত লাভ করেছিলেন দেলোয়ার হোসেন। পরে তিনি গাংনী উপজেলায় সহকারী কমিশনার হিসাবে বদলী হন। মেহেরপুরের তার কাজের ধারাবাহিকতা গাংনীতেও অক্ষুন্ন রেখে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। গাংনীতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা সহ সহকারী দায়িত্ব পালনে নিষ্ঠাবান হওয়ায় তাকে এই স্বীকৃতি প্রদান করা হয়। দেলোয়ার হোসেন সকলের কাছে দোয়া কামনা করেছেন। জাকিরুল ইসলাম মেহেরপুরে একটি বাড়ি একটি খামার প্রজেক্টকে গতিশীল করার গুরু দায়িত্ব পালনকারি।

বিআরডিবি’র উপ-পরিচালক জাকিরুল ইসলাম: ২০১৭ সালের ১৭ ডিসেম্বর মেহেরপুরে দায়িত্ব পালন শুরু করেন। ২০০৬ সালে খুলনায় কয়রা উপজেলায় আইডিও হিসাবে চাকরুী জীবন শুরু করেন। এর পর মেহেরপুর এসে তিনি সহকারী কর্মকান্ড গুরুত্ব সহকারে তার দায়িত্ব পালন করায় জাকিরুল ইসলাম কে সরকারি স্বীকৃতি স্বরূপ এই সম্মান দেওয়া হয়। স্বাভাবিক ভাবেই তিনি খুশি। আর এই খুশিকে ধরে রাখতে তিনি মেহেরপুর জেলাবাসীর কাছে দোয়া প্রার্থণা করেছেন। তিনি ২ ক্যনা সন্তানের জনক।

 

 

 

মুজিবুর রহমান: মেহেরপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের টিএলসিএ হিসাবে দীর্ঘদিন যাবৎ সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ১৯৯০ সালের গোড়ার দিকে চাকুরী জীবন শুরু করেন। এর পরে থেকে যক্ষা নিরোধ সহ বিভিন্ন বিশেষ অবদান রাখায় তাকে এই পদক দেওয়া হয়। ৩ পুত্র ১ কন্যা সন্তানের জনক মুজিবুর রহমান নতুন নতুন আবিষ্ককারের প্রতি রয়েছে দারুন আগ্রহ। অত্যান্ত সদালপি হিসাবে পরিচিত মুজিবুর রহমান সকলের কাছে দোয়া প্রার্থণা করেছেন।

 

 

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.