Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী শ্রদ্ধেয় ব্যাক্তি; উনাকে নিয়ে কুটুক্তি করেছি এটা মিথ্যা—-মতু।। মেহেরপুর পৌর মার্কেট নির্মানে প্রশাসনের বাধা ।। পৌর কর্তৃপক্ষের সাংবাদিক সম্মেলন

স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী শ্রদ্ধেয় ব্যাক্তি; উনাকে নিয়ে কুটুক্তি করেছি এটা মিথ্যা—-মতু।। মেহেরপুর পৌর মার্কেট নির্মানে প্রশাসনের বাধা ।। পৌর কর্তৃপক্ষের সাংবাদিক সম্মেলন

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,০১ ফেব্রয়ারী:
মেহেরপুর জেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপের কারণে মেহেরপুর শহরে নির্মিতব্য খুলনা বিভাগের মধ্যে সর্ব বৃহৎ শপিংমল (পৌর মার্কেট) নির্মানের কাজ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। মেহেরপুর শহরের পুরাতন হাসপাতাল ভবন ভেঙ্গে এই মার্কেটটি নির্মানের কাজ শুরুর কথা ছিল। সম্পত্তিটির সিএ, এসএ ও আরএস রেকর্ড এবং আদালতের একতরফা রায় অনুযায়ী এই সম্পত্তিটির মালিক পৌরসভা। মন্ত্রালয়ের নির্দেশে মেহেরপুর জেলা প্রশাসক এই হাসপাতাল সম্পত্তির উপর থাকা পুরাতন ও পরিত্যাক্ত ভবন গুলি ভাঙ্গার জন্য পৌরসভার সিদ্ধান্ত যথাপোযুক্ত বলে পত্র দিয়েছেন। তা সত্বেও বর্তমান জেলা প্রশাসক বেনজামিন হেমব্রমের নির্দেশে ম্যাজিষ্ট্রেট অবিদিয় মাডি ও পুলিশ ওই মার্কেট নির্মানের প্রস্তুতি থমকে দিয়েছেন।
সোমবার দুপুরে মেহেরপুর পৌরসভার কালাচাঁদ মেমোরিয়াল হলে পৌর মেয়র আলহাজ মোতাচ্ছিম বিল্লাহ মতু সাংবাদিক সম্মেলনে ওই কথাগুলো বলেন। সাংবাদিক সম্মেলনে পৌরসভার প্রধান প্রকৌশলী হারুন আর রশিদ সহ মেহেরপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি ও বিটিভি প্রতিনিধি আলামিন হোসেন, প্রথম আলো’র সাংবাদিক তুহিন আরন্য, মহসিন আলী (মাথাভাঙ্গা), মেহের আমজাদ (বাংলাদেশ বার্তা ও স্পন্দন),  তোজাম্মেল আযম (যুগান্তর), গোলাম মোস্তফা (যায়যায় দিন), ওয়াজেদুল হক (নয়া দিগন্ত), ফারুক হোসেন (সমকাল) সহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। পৌর মেয়র মতু আরও বলেন, মার্কেট নির্মান নিয়ে আওয়ামী লীগের একাংশ ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের উদ্দেশ্যে নানা ষড়যন্ত্রে মেতেছে। আওয়ামী লীগের একাংশসহ যুবলীগ ও ছাত্রলীগ পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে শহরে মিছিল ও পথসভা করেছে। তারা যে কোন মূল্যে মার্কেট নির্মানে বাঁধা দেবার ঘোষনা দিয়েছে।
যুবলীগ নেতৃবৃন্দের অভিযোগ : ভবন ভাঙ্গার সময় মেহেরপুর পৌরমেয়র মেহেরপুর জেলা যুবলীগের এবং মেহেরপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম রসুলের উপস্থিতিতে স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী ও যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি জাহাঙ্গীর কবীর নানকের বিরুদ্ধে কুটুক্তি করেছেন। তাছাড়া পুরাতন হাসপাতাল ভেঙ্গে সেখানে মাকের্টের বদলে শিশু ও ডায়বেটিস হাসপাতাল নির্মান করতে চান তারা। এই কারণে বুকের রক্ত দেবে। তবু সেখানে মার্কেট নির্মান করতে দেবেন না বলে তারা ঘোষনা দেন।
সম্পত্তির ইতিহাস : পৌরসভার দলিল ও মূল্যবান কাগজপত্র অনুসন্ধানে দেখা গেছে, বিতর্কিত এই সম্পত্তির উপর বৃট্রিশ আমলের গোড়ার দিক থেকে একটি দাতব্য চিকিৎসালয় ছিল। ১৯৫৫ সালে নদীয়ার ডিএম এই দাতব্য চিকিৎসালয়টি পরিদর্শনে এসে ৩শ টাকা অনুদান দেন। তখন থেকেই সম্পত্তিটি পৌরসভার অনুকুলে চলে যায়। ১৯৫৬ সালে পূর্ব পাকিস্তানের স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে পৌরসভার একটি চুক্তিপত্র সম্পন্ন হয়। এত দিন সেই চুক্তিপত্র অনুযায়ী সেখানে অবস্থিত দাতব্য চিকিৎসালয়টি সরকারি হাসপাতালে রূপ নেয়। ১৯৯৭ সালে হাসপাতালটি মেহেরপুর শহরের ওয়াপদা সড়কের পাশে নির্মিত নতুন ভবনে স্থানান্তরিত হলে পৌরসভা জায়গার দখল নিয়ে নেয়। তারপরও তৎকালীন স্বাস্থ্য সচিবের পরামর্শ মত পৌর কর্তৃপক্ষ হাসপাতাল ভবনের সমস্ত কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দিয়ে মেহেরপুর সহকারী জজ আদালতে মালিকানা মামলা করে। এ সম্পত্তির প্রশ্নে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের বক্তব্য জানতে চেয়ে একাধিকবার পত্র দেয়া হলেও কোন উত্তর মেলেনি। এক পর্যায়ে ২০০২ সালে আদালত মেহেরপুর পৌরসভার দলিলপত্র পর্যালোচনা করে সম্পত্তিটি পৌরসভার উল্লেখ করে এক তরফা আদেশ দেন। এই আদেশের পর মেহেরপুর পুলিশ বিভাগ হাসপাতালের কয়েকটি কক্ষ জুড়ে পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপনের জন্য পৌরসভার সাথে চুক্তি পত্র করেন। সেই চুক্তি পত্র অনুযায়ী মাসিক ভাড়া দিয়ে সেখানে পুলিশ ফাঁড়ি ছিল। এর কিছু ঘরে পৌর কর্মচারীরা বসবাস করত। পৌর কর্তৃপক্ষ নিজস্ব আয় বৃদ্ধির লক্ষে সেখানে বৃহৎ শপিংমল তৈরীর পরিকল্পনা নেয়। পরিকল্পনা অনুযায়ী তৈরী নক্সা অনুমোদন পায়। সেক্ষেত্রে ভবন ভাঙ্গার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। পৌর কর্তৃপক্ষ ড্যামেজ বিল্ডিং মর্মে গনপূর্ত বিভাগ থেকে সাটিফিকেট নেয়। এরপর ভবন ভাঙ্গার অনুমতি চেয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়কে চিঠি দেয়। মন্ত্রনালয় মেহেরপুর জেলা প্রশাসকের মতামত চেয়ে পত্র দেয়। জেলা প্রশাসক ভবনটি ভাঙ্গার প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে মন্ত্রনালয়কে পত্র দিলে মন্ত্রনালয় ৩০ নভেম্বর/১০ উক্ত ভবন ভাঙ্গার অনুমতি পত্র দেয়। শুরু হয় মার্কেট নির্মানের লক্ষে টেন্ডার প্রক্রিয়া। স্থানীয় আওয়ামীলীগের একাংশ মার্কেট নির্মানের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে মন্ত্রনালয়কে প্রভাবিত করলে গত ২ডিসেম্বর/১০ মন্ত্রনালয় ভবন ভাঙ্গার অনুমতি বাতিল করে। পৌরসভা মন্ত্রালয়ের এই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করে। হাইকোর্ট মন্ত্রনালয়ের আদেশ স্থগিত করে। এরপর পৌরসভা ৩০ ডিসেম্বর/২০১০ মার্কেট নির্মানের কার্যাদেশ দেয়। সেই অনুযায়ী ভবন ভেঙ্গে মার্কেট নির্মান করতে গেলে এই বিপত্তি ঘটে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful