Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / স্বতন্ত্র এমপি মকবুল হোসেন আওয়ামীলীগে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্তে স্থানীয় আওয়ামীলীগে চাপা ক্ষোভ

স্বতন্ত্র এমপি মকবুল হোসেন আওয়ামীলীগে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্তে স্থানীয় আওয়ামীলীগে চাপা ক্ষোভ

মেহেরপুর নিউজ, ০৫ মে:
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আ.লীগের মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী হিসেবে নির্বাচন করে (স্বতন্ত্র) সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মকবুল হোসেন। দলীয় প্রার্থী এম এ খালেককে তিনি ১০ হাজার ভোটে পরাজিত করেন। আজ (শুক্রবার) তিনিসহ ১৪জন স্বতন্ত্র এমপি আওয়ামীলীগে যোগদান করবেন বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।
মকবুল হোসেন আওয়ামীলীগে যোগদান করবেন এমন খবর মেহেরপুরের গাংনী এলাকায় পৌছালে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। কারণ হিসেবে তারা জানিয়েছেন, মকবুল হোসেন ক্ষমতা পেয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের নানাভাবে হয়রানি করেছেন। বিএনপি জামায়াতের লোকজনের সাথে আঁতাত করে নিজ¯^ একটি বলয় সৃষ্টি করেছেন। যার ফলে আগামী নির্বাচনে এর একটি নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে বলে তারা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।
জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেকের নির্বাচিত এলাকা মেহেরপুর-২ (গাংনী) এলাকা। তিনি গত দুবার আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়েছিলেন। তিনি বলেন, মকবুল হোসেন আওয়ামীলীগে ফিরে আসলে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হবেই। আগে যারা তাঁর লোকজন ছিল তারা আগেই আওয়ামীলীগের যোগ দিয়েছেন। কিছু ভিন্ন দলের লোক তার সাথে রয়েছেন। কিছু জামায়াত পরিবারের লোকজনকে নিয়ে তিনি বলয় তৈরি করেছেন।’আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের বিভিন্নভাবে মামলা দিয়ে হয়রানি করেছেন তাদের মধ্যেই তো ক্ষোভ রয়েছে।
তিনি বলেন, যে ১৪ জন ¯^তন্ত্র দল যোগ দেবেন, তাদের সাথে মকবুল হোসেনের কোন মিল নাই। কারণ তাদের অধিকাংশই না বুঝে একবার ভুল করেছেন। আর মকবুল হোসেন এ দিয়ে তিন তিন বার দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে অবস্থান নিয়েছেন। তিনি আরো বলেন, দলীয় সিদ্ধান্তে তিনি যোগ দিয়ে যদি দলীয় কর্মকান্ডের সাথে কাজ করে চলেন তাহলে সমস্যা নাই। আর যদি একই ধারায় কাজ করে যান তাহলে তো সমস্যার সৃষ্টি হবেই।
আগামী নির্বাচন নিয়ে এম এ খালেক বলেন, যেহেতু দল করি দলীয় প্রতীক নিয়ে যে থাকবেন তার পক্ষেই কাজ করতে হবে। যদি উনি কাউকে মনে রাখার মত আঘাত দিয়ে থাকেন তার প্রতিদান দিতেই হবে। মকবুল হোসেন জনবিচ্ছিন্ন উল্লেখ করে তিনি বলেন, এমন একজন লোককে দলীয় মনোনয়ন দিলে একটা ক্ষোভ তৈরি হবেই।
গাংনী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সহিদুজ্জমান খোকন বলেন, মকবুল হোসেন যদি আওয়ামীলীগে যোগদান করেন স্থানীয় আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে খারাপ অবস্থান তৈরি হবে। তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে ভোটে জেতার পর আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের জঙ্গি হিসেবে ব্যবহার করেছেন। ফলে দলের আসল নেতাকর্মীরা নিস্ক্রিয় হয়ে যাবে। তবে পরবর্তী জাতীয় নির্বাচনে তিনি যদি দলীয় মনোনয়ন পেয়ে থাকেন তবে নির্যাতনের কারণে আওয়ামীলীগের লোকজন তাকে ভোট দেবেন না। কারণ আওয়ামীলীগের লোকজনকে তিনি যেভাবে নির্যাতন করেছেন সে কথা মনে রেখে নেতাকর্মীরা তাকে ভোট দেবেন না। তারপরও দল যদি মনোনয়ন দেয় আমরা দায়িত্বেও যায়গা থেকে তার পক্ষে ভোট করতে হবে, তবে মন থেকে কাজটা করা হবে না। আর তিনি কখন দলীয় ভোটে নির্বাচিত হননি। বিএনপি জামাতের ভোটেই তিন নির্বাচিত হয়ে আসছেন।
গাংনী পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি সানেয়ার হোসেন বাবলু জানান, তিনি যদি আওয়ামীলীগে যোগদান করেন স্থানীয় রাজনীতিতে অবশ্যই নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হবে। কারণ তিনি কখনো আওয়ামীলীগ করেননি। কারণ মনোনয়ন পেলে আওয়ামীলীগ করেন, আর না পেলে ব্যাক্তিগত লীগ করেন।
তবে মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মকবুল হোসেন বলেন, অগ্রিম কিছ্ইু বলা যাবেনা। স্থানীয় রাজনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়ার কোন সুযোগ নাই। দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে কাজ করবেন কিনা এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,তা সময় বলে দিবে।
প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আ.লীগ প্রাথী এম এ খালেক পেয়েছিলেন ৩৬৪৮৯, স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী) মকবুল হোসেন ৪৬৭৭০ ভোট।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.