Templates by BIGtheme NET
Home / অন্যান্য / স্বাধীনতার সূতিকাগারে মন্ত্রীর দাবি মেহেরপুরবাসীর

স্বাধীনতার সূতিকাগারে মন্ত্রীর দাবি মেহেরপুরবাসীর

শাকিল রেজা, মেহেরপুরঃ

স্বাধীনতার সূতিকাগার মেহেরপুরের মুজিবনগর। ১৯৭১ সালে এই মেহেরপুরের মুজিবনগর থেকে স্বাধীনতার ঘোষনাপত্র পাঠ করা হয়। যে মেহেরপুর থেকে প্রথম সরকারের গঠন হয়েছেলো সেই পূন্যভূমিতে স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও কেউ মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে পারেননি।
আজ থেকে ৪৮ বছর আগে মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে এক অনাড়ম্বর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছিল স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকারের শপথ গ্রহণ। সেদিন শপথ অনুষ্ঠানে পাঠ করা হয় স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র।আর সেই থেকে বৈধনাথতলার নাম দেওয়া হয় মুজিবনগর।বাংলাদেশের সব থেকে ছোট জেলা মেহেরপুর। যেখানে মাত্র দুইটি আসন।তবে সারা বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলার ভিতর মুজিবনগরের কারনে মেহেরপুর জেলা অন্যতম।
আর বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে মন্ত্রী হয়েছে,কিন্তু এমন একটি ঐতিহাসিক মুজিবনগরের মেহেরপুর থেকে এখনো প্রর্যন্ত কেউ মন্ত্রী হননি। আগামী সোমবার বঙ্গভবনে নতুন মন্ত্রীসভা শপথ নেবে।মেহেরপুর বাসী তাকিয়ে আছে তাদের বঞ্চনার ইতিহাস কি প্রলম্বিত হবে না-কি ৪৮ বছর পর কেউ শপথ নেবে মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে।এই জেলা থেকে অত্যান্ত ১জনকে মন্ত্রী হিসাবে দেখতে সকল মেহেরপুরবাসীর প্রানের দাবী।

এ বিষয়ে মতামত জানতে চাইলে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কামরুল হাসান চাদু জানান, মুজিবনগর একটি ঐতিহাসিক জায়গা। মুজিবনগরকে স্বাধীনতার সৃতিকাগার হিসাবে বলা যায়।মুক্তিযুদ্ধের সকল সৃতি এই মুজিবনগরের সাথে জরিত। আর এই মুক্তিযুদ্ধের সৃতিকে ধরে রাখতে, মেহেরপুরের রাজনিতি ও সামাজিক উন্নয়ন আরো সামনের দিকে নিয়ে যেতে মেহেরপুরের একজন মন্ত্রীর প্রয়োজন।

ইউপি চেয়ারমান আয়ুব হোসেন জানান,একমাত্র প্রধান মন্ত্রী বাদে মুজিবনগরে যে সকল মন্ত্রীই আসে তারা শুধু মেহেরপুরবাসীকে প্রতিশ্রুতিই দিয়ে যায়। কিন্তু এখান থেকে চলে যাওয়ার পর আর মুজিবনগরের কথা কারও মনে থাকে না।তাই সর্বক্ষানিক মুজিবনগরের কথা মাথায় রাখতে, সকল উন্নয়নের কথা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কান প্রর্যন্ত পৌছানোর জন্য মেহেরপুরে অবশ্যই একজন মন্ত্রীর প্রয়োজন।

সাধারন জনগনের ভিতর নূর ইসলাম জানান,মেহেরপুর ছোট একটি জেলা। এ জেলা শিক্ষার দিক থেকে এখনো পিছিয়ে আছে। অধিকাংশ ফ্যামিলি কৃষি কাজের উপর নির্ভরশীল হওয়ায় সন্তানদের লেখাপড়া করানো সম্ভব হয় না।
মেহেরপুর থেকে যদি কেউ মন্ত্রী হয় তাহলে শিক্ষার মান আরও উন্নতি হবে।

কলেজ শিক্ষার্থী শাহীন ইসলাম বলেন, মেহেরপুরে বেকারত্বের সংখ্যা বেশি।আর এই বেকারত্ব নিরসন ঘটানোর জন্য কোন ধরনের কর্মসংস্থানের ব্যাবস্থা নেই। মেহেরপুর থেকে যদি কেউ মন্ত্রী হয় তাহলে আমাদের মত বেকারদের কর্মসংস্থানের ব্যাবস্থা করে বেকারত্ব নিরসন হবে বলে আমি মনে করি।

মুজিবনগর অনন্যা পার্কের মালিক হাসানুজ্জামান লাল্টু জানান,একাত্তরের যুদ্ধের পর এই মুজিবনগর থেকে বাংলাদেশের প্রথম সরকার গঠিত হয়।মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনায় হচ্ছে মেহেরপুরের মুজিবনগর। অত্যান্ত মুজিবনগরকে সম্মান জানিয়ে এই জেলা থেকে একজন মন্ত্রী হওয়াটা খুব গুরুত্বপূর্ন।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির সদস্য এমএএস ইমন জানান,মেহেরপুরের একজন মন্ত্রী হলে মেহেরপুরের সম্মান অনেক বেড়ে যাবে। তাছাড়া একজন এমপির দ্বারা মেহেরপুরের সকল উন্নয়ন করা সম্ভব না। আর যেহুতু , এখান থেকে প্রথম সরকার গঠন করা হয় সেহেতু সারা বাংলাদেশের ভিতর মুজিবনগর একটি ঐতিহাসিক জনপ্রিয় স্থান। তাই এই মুজিবনগরের দিকে গুরুত্ব দিতে, সব সময় উন্নয়নের চিন্তা মাথায় রাখতে অবশ্যই মেহেরপুরে একজন মন্ত্রীর প্রয়োজন বলে আমি মনে করি।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.