Templates by BIGtheme NET
Home / জাতীয় ও আন্তর্জাতিক / স্মার্টকার্ডে নাগরিকদের তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর আহবান

স্মার্টকার্ডে নাগরিকদের তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর আহবান

2016-10-02_bss-06_636411ডেস্ক রিপোর্ট, ০২ অক্টোবরঃ

উন্নতমানের জাতীয় পরিচয়পত্র বা স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্যের অপব্যবহার রোধে নাগরিকদের তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার আহবান জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, ‘যত ধরনের নতুন প্রযুক্তি রয়েছে, গ্রহণ করা হবে। তবে, তার ফায়ারওয়াল থাকতে হবে। তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।’
এ সময় এই স্মার্ট কার্ড নকল করা সহজ হবে না বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে প্রত্যেক নাগরিকের ব্যক্তিগত তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্যও তিনি নির্বাচন কমিশন এবং সংশ্লিষ্ট স্মার্ট কার্ড প্রদানকারি কতৃপর্ক্ষকে সতর্ক থাকার আহবান জানান।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে নির্বাচন কমিশন আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধনী ভাষণে এ আহবান জাানন।
প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদকে স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদানের মাধ্যমে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিব উদ্দীন আহমদ এই স্মার্ট পরিচয়পত্র রাষ্টপতিকে পৌঁছে দেবেন। এরপরই প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে তাঁর স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র তুলে দেন।
এরআগে প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা সকাল সাড়ে ১০টায় অনুষ্ঠানের শুরুতেই মঞ্চে আরোহন করে ১০ আঙ্গুলের ছাপ দেন এবং স্মার্টকার্ড সংগ্রহে চোখের স্ক্যানিং করান।
অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে বিজয়ী বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়দের গতকালের বিজয়ে অভিনন্দিত করেন এবং স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র তুলে দেন।
বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক এবং বিশ্ব ব্যাংকের সহায়তায় পরিচালিত এই স্মার্টকার্ড প্রকল্পের ব্রান্ড অ্যাম্বাসেডর মাশরাফি বিন মর্তুজা, মুশফিকুর রহিম, বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান, ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল, বোলিং সেনসেশন মুস্তাফিজুর রহমান, সাব্বির রহমান, তাসকিন আহমেদ, সৌম্য সরকার, নাসির হোসেইন, ইমরুল কায়েস এবং তাজুল ইসলামরা একে একে প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে তাদের স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র গ্রহণ করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই উন্নত কার্ডই সব রকম সেবা দেবে। ঘরে বসেই এখন অনেক কিছু করা সম্ভব হবে। যার সহায়ক হবে এই স্মার্টকার্ড।
তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন বাস্তব, আমাদের আরেকটি নির্বাচনী অঙ্গীকার পূরণের মাধ্যমে এই কার্ড প্রদানের ফলে আবারও তা প্রমাণিত হলো। আমরা সবাইকে এই কার্ড দিতে পারছি। এটি জাতি হিসেবে আমাদের আরও উন্নত করবে।
তিনি বলেন, অনেক প্রযুক্তি আছে, সেসব প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে এই কার্ডের ডাটার নিরাপত্তা জোরদার করতে হবে। কেউ যেন ডাটা ব্যবহার করে কোনো অপরাধ ঘটাতে না পারেন, সতর্ক থাকতে হবে এটি নিয়ে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন প্রধান নিবাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিব উদ্দীন আহমদ এবং বিশ্ব ব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর কিমিয়াও ফ্যান। অনুষ্ঠানে ‘আইডেন্টিফিকেশন সিষ্টেম ফর এনহ্যান্সিং আক্সেস টু সার্ভিস’শীর্ষক এই প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল সুলতানুজ্জামান মো.সালেহ উদ্দীন প্রকল্প সম্পর্কে সকলকে অবহিত করেন। নিবাচন কমিশনের সচিব সিরাজুল ইসলাম অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন।
নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, এই কার্ড প্রদানের জন্য দেশের ১০ কোটি নাগরিকের তথ্য নিয়ে একটি ডাটাবেজ তৈরি করা হয়েছে। এর আওতায় ২০১৭ সালের মধ্যে ৯ কোটি নাগরিককে স্মার্ট জাতয়ি পরিচয়পত্র প্রদান করা হবে এবং এর মাধ্যমে বিদ্যমান পেপার লেমিনেটেড জাতীয় পরিচয়পত্র প্রতিস্থাপিত হবে।
সূত্র জানায়, বর্তমান বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তিতে এটি তৈরি হয়েছে। জাতীয় পরিচয়ের ডাটাবেইজ ও স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রত্যয়নকারী কর্তৃপক্ষের সনদপ্রাপ্ত। এটি ট্র্যাভেল কার্ডসহ আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন জাতীয় পরিচয়পত্র হিসাবে বিবেচিত হবে। স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র নাগরিকদের শ্রেণী, বয়স, অবস্থা-অবস্থান ও পেশা ভিত্তিক রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক বিশেষ সুবিধা প্রাপ্তি নিশ্চিত করবে।
এর মাধ্যমে সেবা প্রদানকারী সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানসমূহ অনলাইন ও অফলাইন উভয় পদ্ধতিতে নাগরিকদের পরিচিতি সঠিকভাবে যাচাই করতে পারবে। ডাটাবেইজে অভিগম্যতা লাভের মাধ্যমে অনলাইনে এবং অফলাইনে চিপ/এমআরজেড/বারকোড/ফিঙ্গার প্রিন্ট স্ক্যানারের মাধ্যমে সহজেই স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্যাদি যাচাই করা সম্ভব।
ইতোমধ্যে সমঝোতা স্বারক সাক্ষরের মাধ্যমে ৬৪টি প্রতিষ্ঠান এর সেবা গ্রহণ শুরু করেছে বলেও অনুষ্ঠানে জানানো হয়।
আগামীকাল ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোারেশনের ১৯ নম্বর ওয়ার্ড এবং উত্তরের ১নং ওয়ার্ডসহ কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ির জনগণ ও ছিটমহলের অধিবাসীদের মধ্যে প্রথম দিনে এই কার্ড বিতরণ করা হবে বলেও জানানো হয়।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.