Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / হার না মানা বাসিরন।। ৬৩ বছরে পিএসসি পরীক্ষার্থী

হার না মানা বাসিরন।। ৬৩ বছরে পিএসসি পরীক্ষার্থী

6666ইয়াদুল মোমিন/রেজ আন উল বাশার তাপস,১৩ নভেম্বর:
সাদা চুল। ভাজ পড়েছে চেহারায়। চোখে ঠিকমত দেখতেও পান না। এমনই এক বৃদ্ধা বই খাতা নিয়ে গ্রামের মেঠোপথ পাড়ি দিয়ে যাচ্ছেন গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। সাথে দুজন পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী। প্রথম দেখাতেই মনে হতে পারে নাতনিদের স্কুলে পৌছে দিতে তিনি যাচ্ছেন তাদের সাথে। কিন্তু ঘটনাটি তার উল্টো। যাদের সাথে যাচ্ছেন তারা তার সহপাঠি। তিনিও পঞ্চম শ্রেণীর নিয়মিত ছাত্রী। আগামী ২০ নভেম্বর সারাদেশে একযোগে শুরু হতে যাওয়া প্রাথমিক সমাপনি পরীক্ষায় (পিএসসি) অংশ নিতে যাচ্ছেন তিনি।
এই পিএসসি পরীক্ষার্থীর নাম বাসিরন খাতুন। বয়স ৬৩ বছর। মেহেরপুর জেলা শহর থেকে প্রায় ৩৫ কিলোমিটার দুরে গাংনী উপজেলার হোগলবাড়িয়া গ্রামের মাঠপাড়ায় তার বাড়ি। গ্রামে রহিল উদ্দিনের (মৃত) স্ত্রী তিনি । ৩৫ বছর আগে ¯^ামীহারা হয়েছেন। এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। একমাত্র ছেলে মহির উদ্দিনের সাথে থাকেন তিন। ছেলে মেয়েদের সন্তানরাও বড় হয়েছে। তারা এখন বিভিন্ন কলেজে ও বিদ্যালয়ে লেখা পড়া করে। লেখাপড়া প্রচন্ড আগ্রহ থেকে তিনি নতুন করে আবার লেখাপড়া শুরু করেছেন। বাড়ি থেকে প্রতিদিন এক কিলোমিটার মেঠোপথ হেঁটে বিদ্যালয়ে যান তিনি।
হোগলবাড়িয়া পূর্বপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, বাঁশের বেড়া দেয়া ছোট ছোট চারটি কক্ষের একটিতে সহপাঠিদের সাথে লেখাপড়ায় ব্যাস্ত বাসিরন। বাংলা বইটি চোখের খুব কাছে নিয়ে আপন খেয়ালে বইয়ের পাতায় আঙ্গুল দিয়ে পড়ে যাচ্ছেন বাসিরন। পড়ার সময় ঘন ঘন চোখের পলক ফেলছেন। বাসিরণে আগ্রহ দেখে শিক্ষকরাও অধিক গুরত্বের সাথে তাকে খেয়াল রাখেন।
44444স্কুলের টিফিন বিরতীতে সহপাঠীদের সাখে নানারকম খেলাধুলায় অংশ গ্রহণ করেন বাসিরন। কোনো এক্কা দোক্কা, কখন কপাল টোক্কা। সহপাঠিরাও তাকে পেয়ে বেশ আনন্দিত জানালের স্কুলের শিক্ষকরা।
হার না মানা অদম্য আগ্রহী বাসিরন খাতুন জানান, ছোট থেকেই তার লেখাপড়ার প্রতি ঝোঁক ছিল। অল্প বয়সে বিয়ে হওয়ার কারণে সংসার সন্তান নিয়ে লেখাপড়া করা হয়নি তার। সন্তানদের তিনি চেষ্টা করেছিলেন তারা যেন উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়। এর মধ্যেই মারা যায় তার ¯^ামী। ফলে সন্তানরা লেখাপড়াতে বেশী করতে পারেননি। তিনি আরো জানান, এর পর যখন নাতি নাতনিরা লেখাপড়া শুরু করলো তখন তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন এবার লেখাপড়া শুরু করবো। ৬ বছর আগে স্কুলে ভর্তি হওয়ার জন্য বার বার স্কুলে যাওয়া আসা করে কিন্তু তখন মাষ্টাররা তাকে ভর্তি করাননি। পরের বছর যখন আবার কয়েকদিন স্কুলে যায় তার পর আমার আগ্রহ দেখে সে বছর ভর্তি করে আমাকে।
বাসিরন বলে, আমি তো মানুষ সব মানুষে যদি লেখাপড়া করতে পারে তাহলে আমি পারব না কেন। হয়ত আমি একটু কম পারব। কিন্তু পারবতো।
লেখাপড়া শিখে কি করার ইচ্ছা এমন প্রশ্নের জবাবে বাসিরন বলেন, আমি পিএসসি পাশ করার পর গ্রামে গার্লস স্কুলে (মাধ্যমিক বালিকা) ভর্তি হব। নিজের লেখাপড়ার পাশাপাশি গ্রামের গরিব ছেলে মেয়েদের বিনাপয়সায় পড়া শেখাবো। তিনি প্রতিবেশীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমি বাসিরন কি ছিলাম আমি যেদিন অচল হয়ে যাব সেদিন বুঝবে।
প্রধান শিক্ষক হেলাল উদ্দিন বলেন, বাসিরন খাতুন ২০১০ সালে স্কুলে ভর্তি হওয়ার জন্য কয়েকবার এসেছিলেন। বয়স্ক মানুষ মনের বাসনায় ভর্তি হতে এসেছেন। পরে ক্লাস করবে কি না এভেবে সে বছর তাকে ভর্তি করানো হয়নি। পরবর্তিতে যখন সে আবার আসে ২০১১ সালে তাকে ভর্তি করি। ভর্তি করার পর থেকে তার আগ্রহ দেখে অবাক হয়েছি। প্রতিটি দিন সে ঠিকমত স্কুলে আসে। এমনকি বৃষ্টির দিনেও সে অনুপস্থিত হয়নি। গত বছর তার পিএসসি পরীক্ষা দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছিলাম না তাকে পরীক্ষা দেওয়াবো কিনা। এবছর উপজেলার শিক্ষা কর্মকর্তাদের কাছে বাসিরনের আগ্রহের কথা জানালে তারা পরীক্ষা দেয়ার অনুমতি দেন। আমার বিশ্বাস সে পিএসসি পাশ করবে।
ক্লাসের অন্য শিক্ষার্থীদের মত বাসিরনকে প্রতিক্লাসে পড়া ধরতে হয়। না ধরলে সে রাগ করে জানিয়ে সহকারী শিক্ষিকা আনার কলি জানান, বাসিরনের ক্লাস শুরু হয় সাড়ে ১১ টায়। কিন্তু সে স্কুলে চলে আসে ১০টার মধ্যে। তার বিভিণœ সমস্যাগুলো সে তখন বুঝে নেয়ার চেষ্টা করে। কোনো কিছু লিখতে দিয়ে ভুল করলে সেটি কেটে দিলে কষ্ট পায় সে। তখন সে বলে না কেটে সটিকটা বলে দেয়ার জন্য। তখন সে সঠিকটা শুনে আবার লিখে দেয়।
দাদির বয়সী বাসিরনের নিয়মিত স্কুলে আসা দেখে তার সহপাঠিরাও অনুপ্রাণিত হয়। সহপাঠি মৌ জানায়, বাসিরন তার দাদির বয়সী হলেও তাকে বান্ধবীর মত করে দেখতে হয়। লেখাপড়া নিয়ে কোনো সমস্যা মনে হলে একে অপরকে সহযোগীতা করেন। সে আরো বলে, বাসিরনকে স্যাররা পড়া ধরতে দেরি করলে তার মন খারাপ হয়ে যায়। তখন সে আমার পড়া ধরেন । আমি পারছি কিনা বুঝবো কি করে।
সংসারে কেমন বাসিরন প্রশ্নের জবাবে বৌমা জাহানারা বেগম বলেন, আমার আর দুটি সন্তানের মত শ্বাশুড়ীও লেখাপড়া করে। তার আগ্রহের কারণে তাকে যতটুকু সম্ভব সাহায্য করি। সারাদিন সে লেখাপড়া নিয়েই থাকে। মাছে মধ্যে সাংসারিক কাজে সহযোগীতা করে। বৌমাকে নিয়েও খুশি বাসিরন। বাসিরন তাকে বৌমা দেখিয়ে বলে আমার দুটি পরের বাড়িতে গেছে। পরের মেয়ে আমার বাড়িতে এসেছে। তাকে দেখে রাখার দায়িত্ব আমারই।
প্রতিবেশী পারভিন খাতুন বলেন, বাসিরন তাদের মায়ের বয়সি। আমরা লেখাপড়া করতে পারিনি। এই বয়সের বাসিরনের আগ্রহ দেখে আমাদেরও মাঝে মধ্যে লেখাপড়া করতে মন চাই।
বাসিরনের মেয়ের ছেলে জসিম উদ্দিন বলেন, পরিবারের সকলকে অবাক করে দিয়ে নানী এই বয়সে পিএসসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। তার আগ্রহ দেখে আমি বিশ্বাস করি সে পাশ করবে।
প্রতিবেশী কোরবান আলী পেশায় একজন হাউস টিউটর। তিনি জানান, তার ছোট বোনও এবার পিএসসি পরীক্ষা দিবে। বাসিরন অনেক সময় বই খাতা নিয়ে তার বোনের কাছে পড়তে যায়। এসময় কোনো সমস্যা হলে বাসিরন আমার সাথে সমাধান করে নেয়। তিনি আরো বলেন, বাংলা অঙ্ক সহ অন্যান্য বিষয়গুলো ভালো ভাবে আয়ত্ব করতে পারে সে। তবে ইংরেজিতে তার একটু সমস্যা হয়।
মটমুড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সোহেল আহমেদ বলেন, খবর পেয়ে আমি তার বাড়িতে ছুটে গিয়েছে। তার বয়স তার আগ্রহের কাছে হার মেনেছে। বাসিরন সারাদেশের বয়স্ক মানুষদের জন্য উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। তাকে দেখে অনেকেই অনুপ্রাণিত হবে। আমার ইউনিয়ন এলাকায় এ ধরণের বয়সের কেউ লেখাপড়া করতে চাইলে তাকে পরিষদের পক্ষ থেকে সব ধরণের সহযোগীতা করা হবে।
গাংনী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আকবর আলী জানান, শিক্ষার কোনো বয়স নাই। এ বয়সের একজন পিএসসি পরীক্ষা দিবে শুনে আমি আনন্দিত। তাকে দেখে বয়স্ক মানুষ লেখাপড়াই আগ্রহী হবে। সরকারের ভিষন নিরক্ষর মুক্ত বাস্তবায়নে সহজতর হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.