Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / হেইয়ো রে হেইয়ো , আরও জোরে হেইয়ো…

হেইয়ো রে হেইয়ো , আরও জোরে হেইয়ো…

2222ইয়াদুল মোমিন,০১ ডিসেম্বর:
হেইয়ো রে হেইয়ো, জোরে মার হেইয়ো, আরও জোরে হেইয়ো … হেইয়ো, হেইয়ো। এ শ্লোগান আর বিভিন্ন শারীরিক অঙ্গ ভঙ্গির মাধ্যমে নৌকার মাঝখানে দাড়িয়ে দলনেতা তার সাথিদের মধ্যে উত্তাপ ছড়াচ্ছেন আরো জোরে বৈঠা মারার জন্য। যারা যত জোরে বেঠা মারতে পারবে তাদের নৌকা তত জোরে ছুটবে। এভাবেই নদীর দুধারে দুটি নৌকা একসাথে পাল্লা দিয়ে ছুটে যাচ্ছে তার কাক্সিখত নিশানা ছুঁতে। বৈঠার ঝুপঝাপ আর পানির ছলাত ছলাত শব্দ নদীর দুতীরে করে তুলেছিল মায়াবি উন্মাদনা। সেই উন্মাদনায় প্রখর রোদ উপেক্ষা করেও শত শত উৎসুক নারী পুরুষ আবাল বৃদ্ধ বনিতাকেও উপভোগ করতে দেখা গেল নৌকা বাইচ।
গতকাল বৃহস্পতিবার দিন ব্যাপী মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার বিশ্বনাথপুর থেকে শিবপুর পর্যন্ত এক কিলোমিটার দৈর্ঘ্য এলাকাজুড়ে ভৈরব নদীতে এ নৌকা বাইচ প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়।
15285074_1853727111580782_9161833719830596153_nবিশ্বনাথপুর কাঁচামাল ব্যাবসায়ী সমিতির আয়োজনে এ নৌকাবাইচ প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্বনাথপুর কাঁচামাল ব্যাবসায়ী সমিতির সভাপতি আব্দুস সালামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিবেশক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও জেলা যুবলীগের আহবায়ক মাহফুজুর রহমান রিটন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোনাখালী ইউপি চেয়ারম্যান মফিজুর রহমান, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শহিদুল ইসলাম পেরেশান, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কামরুল হাসান চাঁদু।
প্রতিযোগীতায় জেলার বিভিন্ন অঞ্চলের ১৪টি দল অংশ নেয়। প্রতিটি দলে দলনেতাসহ ১৫ জন সদস্য ছিলেন। একটি দলের সদস্যরা একই রঙের গেঞ্জি পরে প্রতিযোগীতায় নেমেছে। প্রতিযোগীতার সময় দলনেতাসহ ১২ জন অংশ করে অংশ নেয়ার সুযোগ পান। ১৪টি দলকে ‘এ’ এবং ‘বি’ দুটি দলে ভাগ করা হয়। প্রথম পর্বে ৭টি দল বিজয়ী হয়। এভাবে চারটি পর্ব শেষে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে বিশ্বনাথপুরের বুলু বিশ্বাসের দল চ্যাম্পিয়ন এবং শিবপুরের সানারুলের দল রানার্স আপ এবং গৌরিনগরের জামারুলের দল ৩য় স্খান নির্বাচিত হয়। চ্যাম্পিয়ন দলের জন্য পুরস্কার হিসেবে দেওয়া হয় একটি গাড়ল এবং রানার্স আপ দলকে পুরস্কার হিসেবে দেয়া হয় একটি ছাগল। পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে মুজিবনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী কামাল হোসেন উপস্থিত ছিলেন।
5555নৌকা বাইচ প্রতিযোগীতার খবর পেয়ে বিভিন্ন গ্রামের শত শত উৎসুক নারী পুরুষ নদীর দুই পারে নৌকা বাইচ প্রতিযোগীতা উপভোগ করেন। প্রতিযোগীতা ঘিরে নদীর দুই ধারের মানুষের চাহিদা পুরনে সেখানে বিভিন্ন প্রকার পসরা সাজিয়ে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা দোকান সাজিয়েছেন। এমনকি দুপুরে খাবারের জন্য অস্থায়ী হোটেলও বসানো হয় সেখানে।
জেলা শহর থেকে নৌকাবাইচ দেখতে যাওয়া মকিদুর রহমান জানান, নৌকাবাইচ গ্রামীন ঐতিহ্যবাহী খেলা। গ্রামবাংলা এখনো এ খেলার অনেক চাহিদা রয়েছে। নদী নালা খাল বিলি না থাকার কারণে ঐতিহ্যবাহী এ খেলাটি হারিয়ে যেতে বসেছিল। ভৈরব নদ খননের কারনে এ বছর মাঝে মধ্যে এ খেলার খবর পাওয়া যাচ্ছে।
প্রতিযোগীতায় অংশ নেয়া ষাটোর্ধ মজিবর রহমান জানান, ছোটবেলা থেকেই এ খেলায় অংশ নিই। প্রায় ২০ বছর যাবৎ নদীতে কোনো পানি না থাকায় এ খেলা এ এলাকায় হয়নি। তিনি বলেন, জিততে পারি বা না পারি খেলতেই মজা লাগে। এবছর আরো তিন যায়গায় এ খেলা হয়েছে সেখানেও খেলেছি। খেললে মন শান্তি পায় আনন্দ পায়।
বিশ্বনাথপুর কাঁচামাল ব্যাবসায়ী সমিতির সভাপতি আব্দুস সালাম তার বক্তব্যে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভৈরব নদী পুনখনন করে দেয়ায় গ্রামীন বাংলার এই ঐতিহ্যবাহী নৌকাবাইচ খেলার আয়োজন করা সম্ভব হয়েছে। তা না হলে কালের গর্ভে এ খেলাটিও একদিন হারিয়ে যেত।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাহফুজুর রহমান রিটন বলেন, কর্মময় জীবনের ব্যস্ততায় মানুষের মনে আনন্দের খোড়াক যোগাতে এ ধরনের গ্রামীন ঐতিহ্যবাহী খেলার বিকল্প নাই। বহুদিন পরে এ ধরনের খেলায় নিজেকে সম্পৃক্ত করতে পেরেও আনন্দিত লাগছে। বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ এ খেলাটি উপভোগ করছে দেখে খুব ভালো লাগছে। এ ধরনের ঐহিত্যবাহী খেলার আয়োজন করায় আয়োজনকারীদের ধন্যাবাদ জানান তিনি।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.