Templates by BIGtheme NET
Home / অন্যান্য / ১৭ই এপ্রিলের মতোই ২৭ ফেব্রুয়ারিও মেহেরপুরবাসীর ঐতিহাসিক অর্জন – – – – – মন্ত্রী পরিষদ সচিব

১৭ই এপ্রিলের মতোই ২৭ ফেব্রুয়ারিও মেহেরপুরবাসীর ঐতিহাসিক অর্জন – – – – – মন্ত্রী পরিষদ সচিব

anigifইয়াদুল মোমিন:  
১৭ এপ্রিলের মতোই ২৭ ফেব্রুয়ারিও মেহেরপুরবাসীর জন্য একটি ঐহিতাসিক অর্জন। জেলার সাতলক্ষ মানুষ জেলা প্রশাসনের আন্দোলনে পরোক্ষ এবং প্রত্যক্ষভাবে সহযোগীতা করেছেন তাই এই জেলাকে বাল্যবিবাহ মুক্ত জেলা হিসেবে ঘোষনা করা সম্ভব হলো।
শনিবার দুপুরে মেহেরপুর ষ্টেডিয়াম মাঠে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে মেহেরপুর জেলাকে বাল্যবিবাহ মুক্ত ঘোষনা উপলক্ষে গণসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী পরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম এ কথা বলেন।
মন্ত্রি পরিষদ সচিব বলেন, জেলাকে বাল্যবিবাহ মুক্ত ঘোষনা করা হিমায়ল পর্বতে আরোহন করার মত বিষয়। হিমালয়ে আরোহন করা যেমন কঠিন সেখানে টিকে থাকাও তার থেকে বেশি কঠিন। ঠিক তেমনি বাল্যবিবাহ মুক্ত জেলা হিসেবে ধরে রাখতে হলে এখন থেকে আরো বেশি কার্যকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

মেহেরপুর বাসীকে উদ্দেশ্যে করে তিনি বলেন, আপনারা আগে যেভাবে জেলা প্রশাসনকে সহযোগীতা করেছেন সেভাবেই আপনাদের সহযোগীতা অব্যাহত রাখলে মেহেরপুর জেলা বাল্যবিবাহ মুক্ত থাকবে।
শফিউল আলম বলেন, বাল্যবিবাহ ছাড়াও সমাজে আরো কিছু ব্যাধি আছে তার মধ্যে অন্যতম হলো মাদক। মাদকসেবীদের সংখ্যা আমাদের সমাজে বাড়ছে। যাকে দুর করতে হলে আপনাদের আর একটি যুদ্ধে অবতির্ণ হতে হবে।
DSC_0312জেলা প্রশাসক মো: শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে গণসমাবেশে বিশেষ অতিথি  হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মেহেরপুর-২ আসনের (গাংনী) সংসদ সদস্য মকবুল হোসেন, সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য বেগম সেলিনা আখতার বানু, মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের (সমন্বয় ও সংস্কার বিষয়ক) ভারপ্রাপ্ত সচিব এন এম জিয়াউল আলম, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার আব্দুস সামাদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক আব্দুল হালিম, সেভ দ্য চিলড্রেনের কান্ট্রি ডিরেক্টর টিম হুয়াইট, মেহেরপুর পুলিশ সুপার হামিদুল আলম, জেলা পরিষদের প্রশাসক অ্যাড. মিয়াজান আলী, মেহেরপুর পৌর মেয়র মোতাচ্ছিম বিল্লাহ মতু।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য মকবুল হোসেন বলেন, ১৯৭১ এর ১৭ এপ্রিল মেহেরপুরের মুজিবনগরে প্রথম সরকার গঠিত হয়েছিল। আজ সেই মেহেরপুর জেলাকে বাল্যবিবাহ মুক্ত ঘোষনার মধ্য দিয়ে আমাদের নতুন চ্যালেঞ্জ তৈরি হলো। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে জেলাকে বাল্যবিবাহ মুক্ত রাখতে হবে।
মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের সমন্বয় ও সংস্কার বিষয়ক ভারপ্রাপ্ত সচিব আব্দুল হালিম বলেন, মেহেরপুর জেলা বাল্যবিবাহ মুক্ত জেলা ঘোষনা করা হলো। দেশের অন্যন্যা জেলাগুলো মেহেরপুরকে অনুকরণ করবে। তিনি বলেন এটাকে রক্ষা করতে হলে জেলা প্রশাসনকে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে।
6বিভাগীয় কমিশনার আব্দুস সামাদ বলেন, ইতিহাস ও ঐহিত্যগতভাবে মেহেরপুর একটি ঐতিহাসিক জেলা। বাংলার স্বাধীনতার সূর্য যেখানে অস্তমিত হয়েছিল সেই পলাশির নিকটস্থ মেহেরপুরের মুজিবনগরেই আবার তা পুন:উদ্ধার হয়েছিল ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল। যেখানে শপথ নিয়েছিল দেশের প্রথম সরকার। তিনি বলেন, খুলনা বিভাগের মধ্যে মেহেরপুরকে প্রথম বাল্যবিবাহ মুক্ত জেলা ঘোষনা করা হলো।
স্বাগত বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মো: শফিকুল ইসলাম বলেন, তিনি মেহেরপুরে আসার পরে বাল্যবিবাহের প্রবণতা দেখে হতাশ হন। তিনি বলেন, অল্প বয়সে ছেলে মেয়েদের বিয়ে হওয়ায় তাদের সন্তান হচ্ছে অপুষ্ট ও মেধাহীন। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম মেধাহীন হয়ে উঠছে। বিষয়টি নিয়ে গত ৬ মাস ধরে জেলা প্রশাসনের সকল কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী, চিকিৎসক, কাজী , ইমাম, সাংবাদিকসহ সর্বস্তরের মানুষ অকুষ্ঠভাবে সহযোগীতা করার ফলে জেলাকে বাল্যবিবাহ মুক্ত করা সম্ভব হয়েছে।এটাকে ধরে রাখতে আপনাদের সকলের সহযোগীতা অব্যাহত রাখবেন এ আশা করি।
গণসমাবেশে সাংস্কৃতিক কর্মী নিশান সাবের ও অাবুল হাসনাত দিপুর যোৗথ সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাড. মারুফ আহমেদ বিজন, মেহেরপুর সরকারী মহিলা কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর আসাফ উদ দৌলা, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ DSC_0268খালেক, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বশির আহমেদ, জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সভাপতি গোলাম রসুল, সাংবাদিক রফিকুল আলম, জেলা মহিলা সংস্থার সভানেত্রী শামিম আরা হীরা, জেলা ইমাম সমিতির সভাপতি আনছার উদ্দিন বেলালী, সাধারণ সম্পাদক হাবিবর রহমান প্রমুখ। এর আগে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র ধর্মগ্রন্থ থেকে পাঠ করা হয়।
অনুষ্ঠান শেষে ‘১৮ বছরের আগে মেয়েদের এবং ২১ বছরের আগে ছেলেদের বিয়ে নয়’ বিষয়ক একটি মনোজ্ঞ ডিসপ্লে প্রদর্শন করা হয়। ডিসপ্লে প্রদর্শন শেষে মন্ত্রি পরিষদ সচিব মেহেরপুর জেলাকে বাল্যবিবাহ মুক্ত ঘোষনা পত্র পাঠ করেন এবং উপস্থিত সর্বস্তরের মানুষকে শপথ পাঠ করান।

গণসমাবেশে শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক, রাজনীতিবিদ, কাজী, ইমাম, সাংবাদিক সহ সর্বস্তরের প্রায় দশ হাজার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।
প্রসঙ্গত, জেলা প্রশাসক শফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে প্রশাসনের সকল কর্মকর্তা গত ৬ মাস ধরে ‘যেখানেই বাল্যবিবাহ সেখানেই প্রতিরোধ’ শ্লোগানে জেলাকে বাল্য বিবাহ মুক্ত জেলা ঘোষনার লক্ষ্যে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন। এরই অংশ হিসেবে বাল্যবিাবাহের ঘটনায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে জেল জরিমনা করেন।  বাল্যবিবাহের ঝুকিমুক্ত পরিবার বাছাই করে তাদের ছেলে মেয়েদের লেখাপড়া চালিয়ে নেয়ার জন্য ছাগল বিতরণ করেন এবং সহজ শর্তে ঋণের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful