Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / ১৭ এপ্রিল মুজিবনগরে আসছেন জাতির জনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।। উদ্বোধন করবেন ‘মুজিবনগর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিকেন্দ্র’

১৭ এপ্রিল মুজিবনগরে আসছেন জাতির জনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।। উদ্বোধন করবেন ‘মুজিবনগর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিকেন্দ্র’

নিউজ ডেস্ক
জাতির জনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসে মুজিবনগর আম্রকাননে আসছেন বলে অনেকটা নিশ্চিত হওয়া গেছে। বঙ্গবনদ্ধু কন্যার নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ সরকার রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসার পর প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার এটি প্রথম মেহেরপুর সফর। তাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে বাংলাদেশের অস্থায়ী রাজধানী সীমাত্ম জেলা ও রাজনৈতিক ঐতিহ্যমন্ডিত মেহেরপুরের অবহেলিত মানুষের প্রত্যাশাটা এবার অনেক বেশী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিকেন্দ্রর উদ্বোধন করবেন বলে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে।
বাংলাদেশ সৃষ্টির এই ঐতিহাসিক স্থানকে স্মরণীয় করে রাখতে আওয়ামী লীগ সরকার গত মেয়াদের শুরুতেই এ প্রকল্পটি গ্রহণ করেছিল। ৫০ একর জমির ওপর ‘মুজিবনগর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিকেন্দ্র’ নির্মাণে ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছিল ৪৫ কোটি ২৫ লাখ টাকা।
১৯৯৮ সালের জুলাই মাসে শুরু হওয়া এই প্রকল্পটি ২০০৬ সালের জুন মাসে সমাপ্ত হওয়ার কথা থাকলেও বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের অনাগ্রহের কারণে প্রকল্পটির অগ্রগতি হয়নি। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় এসেই এ প্রকল্পের অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করার জন্য সম্পৃক্তদের নির্দেশ দেয়।
মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, ঐতিহাসিক ঘটনাপ্রবাহের স্মৃতি, মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও চেতনাসমৃদ্ধ তথ্য ও নিদর্শন দেশবাসী বিশেষ করে নতুন ও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এবং বিদেশীদের কাছে মূর্ত করে তোলাই হচ্ছে এ প্রকল্পের উর্দ্যেশ্য। স্মৃতিকেন্দ্রে একটি মানচিত্র নির্মাণ করে তা ১১টি সেক্টরে ভাগ করে মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক ঘটনাচিত্র, যুদ্ধচিত্র ফুটিয়ে তোলা, একটি জাদুঘর, মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কিত গ্রন্থসমৃদ্ধ গ্রন্থাগার, সেমিনার কক্ষ, মিলনায়তন, স্মৃতিকেন্দ্রের অফিস নির্মাণ, গ্রন্থভান্ডার ও বিক্রয়কেন্দ্র এ প্রকল্পের অত্মর্ভুক্ত।
বর্তমানে প্রকল্পের সব কাজ প্রায় শেষের দিকে। তাই উদ্বোধনে তেমন একটা বাধা নেয় বললে চলে।মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় জানিয়েছে তারা আগামী এপ্রিল মাসের ১৭ তারিখে গৌরবদীপ্ত মুজিবনগর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিকেন্দ্র উদ্বোধনে আশাবাদী। এ জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে লিখিত আবেদন জানানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি পাওয়ার পর উদ্বোধনের তারিখ আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.