Templates by BIGtheme NET
Home / অতিথী কলাম / ২৩শে অক্টোবর ৫ রোভারের মৃত্যুবার্ষিকীর স্মৃতি চারণ

২৩শে অক্টোবর ৫ রোভারের মৃত্যুবার্ষিকীর স্মৃতি চারণ

ফারুক হোসেন:
আমাদের মনের মাঝে অনেক দিনের একটি কাঙ্খিত স্বপ্ন লুকিয়ে ছিল আর তা হচ্ছে সিলেটে অনুষ্ঠিত ৯ম এশিয়া প্যাসিফিক/৭ম বাংলাদেশ রোভার মুটে সক্রিয় ভাবে অংশগ্রহণ করব এবং সিলেটের চা বাগানে অনেক মজা করব। সেই মোতাবেক মুট কর্তৃপক্ষের সরবারহকৃত পরিপত্র অনুযায়ী বিভিন্ন চ্যালেঞ্জের প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। সিলেটের লাক্কাতুরা চা বাগানে রোভারদের সেই মিলনক্ষেত্রের ক্ষণটুকু কখন আসবে সকলের প্রতিক্ষার যেন শেষ নেই। আবশেষে সেই কাঙ্খিত সময় এসে গেল ।

১৯৯৭ সালের ২০ শে অক্টোবর, মেহেরপুর জেলা রোভার কর্তৃক মেহেরপুর সরকারী কলেজ চত্বরে এক মনোরম পরিবেশে মুটে অংশগ্রহণকারী চারটি দলের (মেহেরপুর সরকারী কলেজ রোভার দল, মুজিবনগর সরকারী কলেজ রোভার দল, মেহের”ল্লা মুক্ত রোভার দল, মুন্সি জমির উদ্দিন মুক্ত রোভার দল) বিদায় সম্ভাষন দেওয়া হল।

১৯৯৭ সালের ২২ শে অক্টোবর রাত্রি ৮:৩০ মিনিটে মেহেরপুর জেলার চারটি রোভার দলের মোট ৩৬ জন (প্রত্যেক দলে ৮ জন র্ভোার সদস্য এবং ১ জন রোভার নেতা) সদস্যকে নিয়ে আমাদের রিজার্ভ করা মিনিবাসটি মেহেরপুর সরকারী কলেজ থেকে সিলেটের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুর” করে। গাড়ি চলতে চলতে আমরা একসময় আরিচা ফেরিঘাটে পৌছায়। রাত্রিতে আমরা কেউ ঘুমিয়েছিলাম না তাই সকলকে ক্লান্ত দেখাািচ্ছল। এরপর আমাদের গাড়ীটি যখন মানিকগঞ্জ থেকে ঢাকা সড়কে তখন আমার এবং সকলের চোখে ছিল ঘুমের জড়তা। আমি ছিলাম মেহেরপুর সরকারী কলেজ রোভার দলের সদস্য। তখন সময় ছিল ২৩ শে অক্টোবর সূর্য পূর্ব আকাশে ওঠার আধ ঘন্টা আগে। আমি ভোরবেলার দিকে ঘুমিয়ে পড়ি তার পর ঘখন আমার ঘুম ভাঙ্গে তখন আমি হাসপাতালের বেডে শুয়ে। প্রথম অবস্থায় আমি কিছুই মনে করতে পারিনি। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বেডে আমি দীর্ঘ ৭৫ দিন অচেতন অবস্থায় (কোমা) ভর্তি হয়ে ছিলাম। তারপর আস্তে আস্তে যখন আমার জ্ঞান ফেরে তখন আমি সদ্য ভূমিষ্ট শিশুর মত। কারণ তখন আমি কথা বলতে, বসতে, দাঁড়াতে, হাঁটতে এমনকি মুখে হাত তুলে খাবার খেতে পারতাম না।

দীর্ঘ তিন মাস ঢাকা মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন থাকার পর আমি বাড়ি আসি। আমার সবথেকে বেশি আঘাত লেগেছিল মাথার বাম পাশের্^ যার ক্ষত এখনও বিদ্যামান। এ ছাড়া শরীরের অন্যান্য অংশে আঘাত তো ছিলই। আমাদের দূর্ঘটনা ঘটেছিল ঢাকার ধামরাই থানার জয়পুরা নামক স্থানে, বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাকের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। আমার সাথে এই দূর্ঘটনাই রোভার মাসুম ভাই, রোভার মনির”ল ভাই, রোভার মাহফুজ, রোভার জাভেদ, রোভার আমিনুল তৎক্ষনাত মূত্যু বরন করে এবং আমি ছিলাম সবথেকে গুর”তর আহত। মহান আল্লাহপাক শহীদ রোভার ভাইদের জান্নাত নসিব কর”ন এই দোয়া করি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় আমাকে দেখতে গিয়েছিলেন বাংলাদেশ সরকারের মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও চীফ স্কাউট মরহুম বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদ ও তৎকালীন সময় বৃটেনে অবস্থানরত মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শোক বার্তা প্রেরণ করেছিলেন। তারপর মহান আল্লাহপাক আমাকে আবার এই নতুন জীবনে সবকিছু নতুন করে দান করেছেন ,আমাকে শক্তি দিয়েছেন, জ্ঞান দিয়েছেন যার ফলে আমি আবার লেখাপড়া করেছি।

বর্তমানে আমি আমার নিজ গ্রামে অবস্থিত আনন্দবাস সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছি এবং ২০১৮ সালে আমি মেহেরপুর জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছি। এই সবকিছুই মহান আল্লাহপাকের অশেষ রহমত।

লেখক: সহকারী শিক্ষক, আনন্দবাস সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মুজিবনগর, মেহেরপুর।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.