Templates by BIGtheme NET
Home / সম্পাদকীয় ও উপ সম্পাদকীয় / ৩১ মে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস”প্রতিদিনই হোক তামাকমুক্ত দিন’’

৩১ মে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস”প্রতিদিনই হোক তামাকমুক্ত দিন’’

উপম্পাদকীয়

রফিক-উল-আলম

প্রতিবছরের মতো এ বছরও আজ উদযাপন হতে যাচ্ছে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস। এ বছরের বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবসের প্রতিপাদ্য হচ্ছে “Geer and tobacco with an emphasis on marketing to women”. বাংলায়  পুরুষ-মহিলা বিশেষ করে মহিলাদের ওপর তামাকজাতদ্রব্য বাজারজাতকরণের প্রভাব। বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে নির্ধারণ করা হয়েছে ’’প্রতিদিনই হোক তামাকমুক্ত দিন’’সারা দেশব্যাপী দিবসটি পালনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকার প্রশাসনের মাধ্যমে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

আমরা সবাই জানি যে, তামাক মৃত্যু ঘটায়, তামাক শরীরের জন্য ক্ষতিকর। তা সত্বেও তামাকের ব্যবহার কিন্তু থেমে নেই। তবে যে কেউ ¯^xKvi করবেন যে, বিভিন্নভাবে তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম এগিয়ে চলেছে এবং তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন পাস হবার পর বিভিন্নভাবে এর কার্যক্রম এগিয়ে চলেছে। অনেক নতুন নতুন বেসরকারী সংগঠনও এ কাজে এগিয়ে এসেছে।

এদেশের মানুষের শিক্ষা হার  শোচনীয়। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ২০০২ তথ্যমতে, এদেশে শিক্ষার  হার ৫৪.৮ শতাংশ (৬০.৩ শতাংশ পুরুষ এবং ৪৮.৯ শতাংশ নারী) ইউনেস্কোর গ্লোবাল মনিটরিং রিপোর্ট ২০০৪ অনুযায়ী শিক্ষার হার ৪১ শতাংশের মধ্যে  পুরুষ ৫০.৩ শতাংশ এবং নারী ৩১.৪ শতাংশ। সমপ্রতি এইচডিআরসি প্রকাশিত এক তথ্যে দেখা যায়, ১৫ বছর ও তদুর্ধ্ব বয়সী নারী পুরুষ নির্বিশেষে তামাক ব্যবহারের হার ৩৭ শতাংশ এবং তামাকজনিত কারণে সমাজের ব্যয় বার্ষিক ৯৩৭০ কোটি টাকা। তামাক ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করা গেলে যে পরিমাণ অর্থ সাশ্রয় হবে তা দ্বারা ১ কোটি মানুষের পুষ্টিহীনতা দূর করা সম্ভব।

পৃথিবীতে  তামাক এক মৃত্যুজম হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। তামাক উৎপাদনকারী তথা ব্যবহারকারী দেশ হিসেবে বাংলাদেশ এর সকল ক্ষতিকর প্রভাবে ব্যপকভাবে প্রভাবান্বিত হচ্ছে। বাংলাদেশে প্রতিবছর ৪৯ হাজার হেক্টর জমিতে তামাক চাষ হয় এবং ৯৮ হাজার মেট্রিক টন তামাক উৎপাদিত হয়। বছরে ৫২২৪ মেট্রিক টন তামাক   আমদানি করা হয় এবং ৯৬৩১ মেট্রিক টন তামাক রপ্তানী করা হয়। বছরে ২৫০০ কোটি  শলাকা সিগারেট উৎপাদিত হয়। ১৫ বছরের বেশি বয়স্ক জনগোষ্ঠির মধ্যে ৩৬.৮% (৩ কোটি ২৩ লক্ষ ) কোন না কোন ভাবে তামাক ব্যবহার করছেন। ৪৮.৬% পুরুষ (২ কোটি ১৮ লক্ষ  ) ও ২৫.৪% মহিলা (১ কোটি ৫ লক্ষ  ) কোন না কোন ভাবে তামাক ব্যবহার করছেন, ৪১% পুরুষ (১ কোটি ৮৪ লক্ষ  ) ও ১.৮% মহিলা (৭ লক্ষ ৪৯ হাজার ) ধূমপান করছেন। ১৪.৮% পুরুষ (৬৬ লক্ষ ৩৮ হাজার  ) ও ২৪.৪% মহিলা (১ কোটি ১ লক্ষ ) চর্বনযোগ্য ধোঁয়াহীন তামাক ব্যবহার করছেন। তামাক ব্যবহারের প্রত্যক্ষ ফল হিসেবে বাংলাদেশে প্রতিবছর ৩০ বৎসর এর বেশি বয়স্ক জনগোষ্ঠির মধ্যে ৫৭০০০ জন মৃত্যুবরণ করেন এবং ৩৮২০০০ জন পঙ্গুত্ব বরণ করেন। তামাকে উপস্থিত মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর উপাদান সমূহের কয়েকটি নিম্নে তুলে ধরা হল।

নিকোটিনঃ তীব্র আসক্তি জন্মদানকারী রাসায়নিক। কীটনাশক তৈরিতে এই বিষ ব্যবহৃত হয়।

কার্বন মনোক্সাইড এই বিষাক্ত গ্যাসটি হৃদরোগের জন্য দায়ী। গাড়ী থেকে নির্গত জ্বালানী পোড়া ধোঁয়ায়ও এই গ্যাস পাওয়া যায়।

বেনজোপাইরিনঃ প্রাণীদেহে ক্যান্সার উৎপন্নকারী রাসায়নিক, রাস্তা তৈরিতে ব্যবহৃত আলকাতরায়ও এই রাসায়নিক পাওয়া যায়।

হাইড্রোজেন সায়ানাইডঃ মৃত্যু দণ্ড প্রদানের জন্য গ্যাস †P¤^v‡i এই বিষাক্ত গ্যাস ব্যবহৃত হয়।

ফরমালডিহাইড প্রাণীদেহে ক্যান্সার উৎপন্নকারী রাসায়নিক । গবেষণাগারে মৃতদেহ সংরক্ষণে এই রাসায়নিকটি ব্যবহৃত হয়।

পেলোনিয়াম ২১০ঃ ক্যান্সার উৎপন্নকারী তেজস্ক্রিয় পদার্থ। তামাক ব্যবহারের ফলে সাধারণত নিম্নলিখিত রোগগুলো হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। হৃদরোগ/হার্ট এ্যাটাক, মস্তিস্কে স্ট্রোক/ পক্ষাঘাত (প্যারালাইসিস), ফুসফুসের ক্যান্সার, ফুসফুসের যক্ষ্ণা, দীর্ঘস্থায়ী কাশি/ হাঁপানি, মুখের ক্যান্সার ইত্যাদি।        এ বিষাক্ত উপাদানগুলো তামাকে থাকা সত্বেও জনগণ তামাক সেবন থেকে বিরত নেই। অনেকেই জানেন না যে, তামাকে এসব ক্ষতিকর উপাদানগুলো রয়েছে। বর্তমানে পুরুষের পাশাপাশি মহিলারা বিভিন্ন উপায়ে তামাক সেবন করছেন। সেই লক্ষ্যে wek¦¯^v¯’¨ সংস্থা প্রতিবারের মত এ বছরে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস ২০১০ এর প্রতিপাদ্য হিসেবে ‘জেন্ডার ও তামাক;মহিলাদের কাছে বিপননে সতর্ক হউন’বা Ócyi“l-মহিলা বিশেষ করে মহিলাদের ওপর তামাকজাত দ্রব্য বাজারজাত করণের প্রভাবÓ এটি জনসমক্ষে তুলে ধরেছে।

বর্তমান সময়ে তামাক কোম্পানি গুলোর মূল লক্ষ্য হচ্ছে মহিলারা। সত্য বলে প্রতীয়মান কিন্তু ভ্রান্তিপূর্ণ যুক্তি m¤^wjZ বিজ্ঞাপন দিয়ে তামাক কোম্পানি গুলো মহিলাদেরকে আকৃষ্ট করছে। উন্নত দেশগুলোতে মহিলাদের দিয়ে তারা সিগারেটের বিজ্ঞাপন প্রচার করছে। বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে বোঝাচ্ছে যে, জীবনীশক্তি ফিরে পাওয়া যায়। এমনকি শরীরকে স্লিম করা যায়। এইভাবে অসত্য বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে মহিলারা তামাকের দিকে ঝুঁকে যাচ্ছে।

দি গ্লোবাল এ্যাডাল্ট টোব্যাকো সারভে (গ্যাটস) এর ২০০৯ এর রিপোর্ট অনুযায়ী বাংলাদেশে তামাকের তথ্য চিত্রে ৪৩.৩% যুবক ও যুবতি (৪১.৩ মিলিয়ন ) ধূমপান ও ধোাঁয়াহীন তামাক ব্যবহার করছে। ৪৪.৭% পুরুষ, ১.৫% মহিলা এবং ২৩.০% অন্যান্য (২১.৯ মিলিয়ন) শুধু ধূমপান করছে। ধোঁয়াহীন তামাক ব্যবহার করছে ২৬.৪%পুরুষ, ২৭.৯% মহিলা এবং ২৭.২% অন্যান্য (২৫.৯ মিলিয়ন)। দৈনিক তামাক সেবনকারী ৪০.৭% পুরুষ, ১.৩% মহিলা এবং ২০.৯% অন্যান্য। চলতিহারে বিড়ি সেবনকারী ২১.৪% পুরুষ, ১.১% মহিলা এবং ১১.২% অন্যান্য। দৈনিক বিড়ি পান করছে ২০.৩% পুরুষ, ১.০% মহিলা এবং ১০.৬% অন্যান্য। ৬৩.০% শ্রমজীবি মানুষ পরোক্ষভাবে ধূমপানের শিকার হচ্ছেন।

তামাকের কারণে পুরুষ ও মহিলাদের নানাবিধ ¯^v¯’¨ সমস্যা দেখা দিচ্ছে। তার মধ্যে খাদ্য নালীতে ক্যান্সার, জরায়ু ক্যন্সার, অন্যান্য ক্যান্সার, হার্টের রোগ, স্ট্রোক, হুপিং কাশি এবং মহিলাদের গর্ভের বাচ্চা নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এছাড়া মানুষের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও আশংকাজনক ভাবে কমিয়ে ফেলে।

উপরের তথ্যগুলো বিশ্লেষণ করলে সহজেই অনুমান করা যায় তামাক ব্যবহার আমাদের মানুষের ¯^v¯’¨, অর্থনীতি ও পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর। Rb¯^v‡¯’¨i উন্নয়নের লক্ষ্যে আমাদের তামাক নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। তামাক নিয়ন্ত্রণের জন্য বাংলাদেশ সরকার কতিপয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এ সকল কার্যক্রমের মধ্যে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০০৫ অন্যতম।

তামাক ব্যবহার হ্রাস একটি জটিল প্রক্রিয়া। তামাক কোম্পানির মতো ¯^v_©v‡š^lx ব্যবসায়িক গোষ্ঠীকে নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি, ধূমপায়ীদের অভ্যাসের পরিবর্তন এবং অধূমপায়ীদের রক্ষা করার একটি কঠিন ও সময় সাপেক্ষ কাজ। এ কাজের জন্য একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করার পাশাপাশি ক্রমাগতভাবে তামাক নিয়ন্ত্রণের কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

কিছু নীতি বিষয়ক কাজ অছে, যার মাধ্যমে তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম গতিশীল করা হয়। যেমন তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের ধূমপানমুক্ত স্থানের উদ্দেশ্য হচ্ছে পরোক্ষ ধূমপানের ক্ষতি হতে অধূমপায়ীকে রক্ষা এবং ধূমপায়ীকে যতবেশী সময় ধূমপান হতে বিরত রাখা যায়। বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ সংক্রান্ত ধারা উদ্দেশ্য হচ্ছে নতুন তরুনদের ধূমপান উদ্বুদ্ধকরণ হতে বিরত রাখা এবং বিদ্যমান ধূমপায়ীদের সাথে কোম্পানির উদ্বুদ্ধকরণ কার্যক্রমে যোগাযোগ বিঘ্নিত করা। মোড়কে ছবিসহ সতর্কবানীর উদ্দেশ্য হচ্ছে ধূমপায়ীদের তামাকের ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে সরাসরি সচেতনতা করা। সর্বোপরি তামাকজাত দ্রব্যের উপর কর বৃদ্ধির উপর উদ্দেশ্য হচ্ছে দাম বৃদ্ধির মাধ্যমে ধূমপায়ীদের ধূমপান ত্যাগে সহযোগিতা করা।

তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়নঃ

ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০০৫ বিষয়ে আলোচনার শুরুতে এ আইনের বাসত্মবায়ন হচ্ছে না বলে কেহ কেহ অভিমত ব্যক্ত করেন। কিন্তু Global Adult Tobacco Survey এবং ITC Bangladesh National Report on Evaluation of Tobacco Control Policies in Bangladesh 2009 বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়নে অগ্রগতি হয়েছে। মানুষের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি, পাবলিক প্লেস ও পরিবহনে ধূমপান হ্রাস পেয়েছে, দেশের অনেক প্রতিষ্ঠানে ধূমপানমুক্ত সাইনসহ স্থান সংরক্ষিত হচ্ছে। প্রিণ্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ায় বিজ্ঞাপন বন্ধ হয়েছে, সিগারেটের প্যাকেটে লিখিত বানী প্রচার হচ্ছে, যা নিঃসন্দেহে আইন প্রণয়নের ফলাফল। এ অর্জন সরকার, তামাক নিয়ন্ত্রণ সংগঠন ও গণমাধ্যমের সম্মিল্লিত প্রয়াস

তবু বলা যেতে পারে আইনের অগ্রগতি প্রত্যাশিত মাত্রায় নয় এখনো আইন অনুসারে সকল পাবলিক প্লেস ও পরিবহন ধূমপানমুক্ত নয়। এসকল স্থানে ধূমপানমুক্ত সাইন স্থাপনও সম্ভব হয়নি। তামাক কোম্পানিগুলো আইন লঙ্ঘন করে পরোক্ষ বিজ্ঞাপন প্রচার করছে, কিছু কোম্পানি প্যাকেটের গায়ে আইন অনুসারে সতর্কবাণী প্রচার করছে না, তামাক চাষের বিকল্প ফসলের সুবিধা নিশ্চিত করা যায়নি, তামাক ব্যবহার ও শিল্প  স্থাপনে নিরুৎসাহিত করতে নীতিমালা বা কোন ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা সম্ভব হয়নি।

তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন ঃ

তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন এখন সময়ের দাবি। আইনের সীমাবদ্ধতার কারণেও অনেক ক্ষেত্রে আইনটি সুফল জনগনের নিকট তুলে দেওয়া যাচ্ছে না। আশার কথা হচ্ছে সরকার তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনটি উন্নয়নের লক্ষ্যে একটি কমিটি গঠন করেছে। উক্ত কমিটির বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মতামতের উপর ভিত্তি করে ইতিমধ্যে মন্ত্রণালয়ের নিকট একটি খসড়া প্রস্তাবনা পেশ করেছে। উক্ত খসড়া প্রস্তাবনার বিষয়ে পুনরায় সকলের নিকট মতামত আহবান করা হয়েছে আমরা আশা করি সরকার এফসিটিসি-র আলোকে আগামী Conference of the Party (COP) -র সভার পূর্বে আইনটি সংশোধন করবে।

তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন উন্নয়ন বিষয়ে বিভিন্ন আলোচনা প্রেক্ষিতে তামাক নিয়ন্ত্রণ কর্মীরা পাবলিক প্লেস ও পরিবহনে ধূমপানের স্থান সংক্রান্ত বিধান বাতিল করা; সকল তামাকজাত দ্রব্যকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা; প্রত্যক্ষ, পরোক্ষ তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ, তামাকজাত দ্রব্যের মোড়কে ৫০% শতাংশ জুড়ে ক্ষতিকর দিক তুলে ধরে সচিত্র ¯^v¯’¨ সতর্কবানী প্রদান; সামাজিক দায়বদ্ধতার নামে তামাক কোম্পানির নামে লগো ব্যবহার করে প্রমোশনার কার্যক্রম নিষিদ্ধ; তামাকজাত দ্রব্যের মোড়ক বা কৌটার অনুরূপ বা সাদৃশ্যে অন্য কোন প্রকার দ্রব্যের ব্যবহার নিষিদ্ধ করা; তামাক কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে যে কোন নাগরিককে মামলা করার অধিকার প্রদান; আইনভঙ্গের প্রেক্ষিতে তামাক কোম্পানিগুলোর জরিমানা ও শাস্তির পরিমান বৃদ্ধি; তামাকের বিকল্প চাষ ও কর বৃদ্ধির জন্য নীতিমালা প্রণয়ন, তামাক কোম্পানিগুলো হতে ¯^v¯’¨ কর (Health Tax) নামে কর আদায়, কর্তৃত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিধি বৃদ্ধি এবং ধূমপানমুক্ত স্থান তৈরির করতে ব্যর্থ হলে সংশি­ষ্ট কর্তৃপক্ষের শাসিত্মর ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়গুলো আইনেরযুক্ত করার সুপারিশ করেন।

তামাকজাত দ্রব্যের উপর কর বৃদ্ধিঃ

দেশীয় ও আন্তর্জাতিক গবেষণায় দেখা যায় তামাক ব্যবহার হ্রাসে তামাকজাত দ্রব্যের উপর কর বৃদ্ধি একটি কার্যকর উপায়। তামাক নিয়ন্ত্রণ চুক্তি এফসিটিসি অনুসারে তামাকজাত দ্রব্যের উপর বৃদ্ধির লক্ষ্যে সরকার পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন। অথচ বিগত কয়েক বছরে তামাকজাত দ্রব্যের উপর মুদ্রাস্ফীতি অনুসারে কর বৃদ্ধির কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। বরং অন্যান্য নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের তুলনায় তামাকজাত দ্রব্যের মূল্য হ্রাস পেয়েছেসসত্মায় তামাকজাত দ্রব্য প্রাপ্তির প্রেক্ষিতে তামাক ব্যবহার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছেবিগত বছরে সরকার তামাকজাত দ্রব্যের উপর কর বৃদ্ধি পদক্ষেপ গ্রহণ করলেও কোম্পানিগুলোর ভ্রান্ত প্রচারণার কারণে তামাকজাত দ্রব্যের উপর কর বৃদ্ধি করা সম্ভব হয়নি

তামাক কোম্পানিগুলো কর বৃদ্ধি হলে রাজস্ব এবং কর্মসংস্থান হ্রাস পাবে বলে কর বৃদ্ধির বিরোধীতা করে থাকে। গবেষণায় দেখা যায়, কর বৃদ্ধি হলে তামাক ব্যবহার হ্রাস পেলেও দাম বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধি পাবে। বিশ্ব ব্যাংকের এক গবেষণায় দেখা যায়, বাংলাদেশ তামাক নিয়ন্ত্রণ হলে ১৮.৭% চাকুরি বৃদ্ধি পাবে।

তামাকজাত দ্রব্যের উপর কর বৃদ্ধির মাধ্যমে আদায়কৃত অতিরিক্ত রাজস্ব সরকার প্রয়োজনে দরিদ্র লোকদের বিকল্প কর্মসংস্থানের জন্য ব্যয় করতে পারেতামাককের উপর কর বৃদ্ধির ফলে সরকার তিনভাবে লাভবান হবে, প্রথমত রাজস্ব বৃদ্ধি পাবে, দ্বিতীয়ত Rb¯^v¯’¨ উন্নয়ন হবে, তৃতীয় তামাক হতে ivR‡¯^i আদায়কৃত রাজস্ব তামাক শ্রমিকদের বিকল্প কর্মসংস্থানে ব্যয় করা সম্ভব হবে

প্রায়শই কোম্পানিগুলো অনেক টাকা রাজস্ব দেয়া বলে নিজেদের জাহির করতে চায়। আমাদের একটি কথা স্মরণ রাখা প্রয়োজন কোম্পানিগুলো মূলত সংগৃহীত ভ্যাট রাজস্ব খাতে জমা দেয়, ভ্যাট পুরোটা জনগনের টাকা। মাত্র ১৫% ভ্যাটের টাকা রাজস্ব খাতে দিয়ে, সরকারের উপর রোগ ও অসুস্থ্যতার বোঝা চাপিয়ে কি পরিমান অর্থ লাভ হিসেবে নিয়ে যাচ্ছে তা সহজেই অনুমেয়। আমরা আশা করি Rb¯^v¯’¨, পরিবেশ ও ¯^v¯’¨ সম্মত কর্মসংস্থান ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের কথা মাথায় রেখে এ বাজেটে সরকার সকল ধরনের তামাকজাত দ্রব্যের উপর কর বৃদ্ধির পদক্ষেপ গ্রহণ করবে

জাতীয়, জেলা ও উপজেলা ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) টাস্কফোর্সঃ

তামাক আইন বাস্তবায়নসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সরকার জাতীয়, জেলা ও উপজেলা ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) টাস্কফোর্স গঠণ করেছে। প্রশাসন, মিডিয়া ও তামাক বিরোধী সংগঠনের প্রতিনিধিদের নিয়ে গঠিত এ কমিটি তামাক নিয়ন্ত্রণে একটি শক্তি কেন্দ্র।  কিন্তু নানা সীমাবদ্ধতার কারণে জাতীয়, জেলা ও উপজেলা ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) টাস্কফোর্স-র সভায় নিয়মিত অনুষ্ঠিত হচ্ছে না এবং কার্যক্রমও গ্রহণ করা সম্ভব হচ্ছে না।

তথাপিও দেশের অনেক স্থানের টাস্কফোর্স তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাসত্মবায়নে অনেক অনুকরণীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। তামাক নিয়ন্ত্রণ টাস্কফোর্সকে প্রশিক্ষন, উপকরণসহ নানা সুবিধা মনিটরিং-র মাধ্যমে নিশ্চিত করার সম্ভব হলে স্থানীয় পর্যায়ে তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম আরো গতিশীল হবে।

তামাক নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক দক্ষতা বৃদ্ধি ও সচেতনতা

তামাক নিয়ন্ত্রণের বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠনের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্য বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগ দক্ষতা বৃদ্ধির পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। তামাক বিরোধী সংগঠন, †¯^”Qv‡mex সংগঠন, এনজিও, সিবিও, সিভিল সোসাইটি ও গনমাধ্যমের কর্মীদের তামাক নিয়ন্ত্রণ বিষয়ে দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিভিন্ন সংগঠন কাজ করছে। বিগত বছরে সরকারীভাবে বিশ্ব ¯^v¯’¨ সংস্থা ও দি ইউনিয়নের সহযোগিতায় তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাসত্মবায়নের সাথে জড়িত সরকারী কর্মকর্তাদের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কর্মশালা আয়োজন করা হয়। তবে এ ধরনের কর্মশালা আরো বৃদ্ধি করা প্রয়োজন বলে বিভিন্ন কর্মশালা ও সেমিনারে অভিমত ব্যক্ত করা হয়

তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন পালণ ও তামাকজাত দ্রব্যের ক্ষতিকর দিক বিষয়ে সরকারীভাবেও সচেতনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়। তবে সরকারের সহযোগি ‡¯^”Qv‡mex তামাক নিয়ন্ত্রণ সংগঠনগুলো এক্ষেত্রে সক্রিয়ভাবে তামাক বিরোধী সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এর মধ্যে বিলবোর্ড, সাইনবোর্ড, পোষ্টার, স্টিকার, লিফলেট, ভ্রাম্যমান গানের দল, পথ নাটক, বিভিন্ন ক্যাম্পেইন অন্যতম। তবে জনসংখ্যার অনুপাতে এ সকল কার্যক্রম খুবই অপ্রতুল। সরকারকে এক্ষেত্রে সক্রিয়ভাবে এগিয়ে আসা প্রয়োজনতামাক নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক দক্ষতা বৃদ্ধি ও সচেতনতা ক্ষেত্রে সরকারী ও †¯^”Qv‡mex তামাক নিয়ন্ত্রণ সংগঠনগুলো মাঝে আরো বেশি mgš^q সাধন জরুরি

বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবসে তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম গতিশীল করতে সুপারিশ:

  1. তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়নের মনিটরিং জোরদার, মোবাইল কোর্ট পরিচালনা, ধূমপানমুক্ত সাইন স্থাপন;
  2. টাস্কফোর্স সদস্যদের কার্যালয় ও অধিনস্ত প্রতিষ্ঠান ধূমপান মুক্ত করণ,
  3. এফসিটিসি-র আলোকে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধনের দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ, স্থানীয় পর্যায়ে জনমত সৃষ্টি করা;
  4. বিড়ি-সিগারেটসহ সকল তামাকজাত দ্রব্যের উপর উচ্চহারে কর বৃদ্ধি করা। কর বৃদ্ধির অর্থে দরিদ্র বিড়ি শ্রমিকদের কর্মসংস্থানের এবং তামাকজনিত রোগের চিকিৎসায় ব্যয় করা;
  5. পরিবেশ, অর্থ, ¯^v¯’¨ রক্ষায় তামাক চাষ নিয়ন্ত্রণে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ;
  6. আইন বাস্তবায়নের সাথে সম্পৃক্ত প্রশাসনের কর্মকর্তাদের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে পদক্ষেপ গ্রহণ;
  7. তামাক বিরোধী সচেতনতামূলক কার্যক্রম বৃদ্ধির লক্ষ্যে সরকারীভাবে উদ্যোগ গ্রহণ;
  8. সরকারীভাবে নিয়মিত গণমাধ্যমকে তামাক নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক কার্যক্রম বিষয় তথ্য প্রদানের প্রক্রিয়া তৈরি;
  9. জেলা ও উপজেলা তামাক নিয়ন্ত্রণ টাস্কফোর্স-র প্রশিক্ষন, উপকরণসহ নানা সুবিধা ও মনিটরিং নিশ্চিত করা;
  10. সরকার, স্থানীয় সরকার, দেশীয় দাতা গোষ্ঠীগুলোর সহযোগিতায় স্থানীয় পর্যায়ে তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম পরিচালনার সুযোগ সৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ;

সবশেষেঃ তামাক নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশের অর্জন অনেকখানি। কিন্তু তামাক কোম্পানিগুলো প্রতিনিয়ত দেশের এই অর্জনকে বাধাগ্রস্ত করতে অব্যাহত প্রয়াশ চালাচ্ছে। তামাক নিয়ন্ত্রণ ও তামাক বিরোধী সংগঠনগুলো বিষয়ে নৈতিবাচক প্রচারণা তাদের এ সকল কার্যক্রমের অন্যতম হাতিয়ার। কোম্পানিগুলো ব্যবসার ¯^v‡_© নানাভাবেই দেশের তামাক বিরোধী কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্ত করতে চাচ্ছে।

তামাক কোম্পানির তাদের মুনাফার উদ্দেশ্যে মানুষকে রোগ ও মৃত্যুর দিকে ঢেলে দিচ্ছে, অপর দিকে তামাক নিয়ন্ত্রণ কর্মীদের উদ্দেশ্য মানুষের ¯^v¯’¨‡K রক্ষা করা। মানুষের ¯^v¯’¨ অপেক্ষা অর্থ কখনোই মুখ্য হতে পারে না। সরকার, প্রশাসন, তামাক নিয়ন্ত্রণ সংগঠন, গণমাধ্যমকর্মীদের পারস্পরিক সহযোগিতা ও পদক্ষেপ কোম্পানির অশুভ উদ্দেশ্য প্রতিহত করে জনগনের ¯^v¯’¨‡K রক্ষা করবে এ আমাদের বিশ্বাসসাথে সাথে আশা করবো বাংলাদেশে প্রতিদিনই হোক তামাক মুক্ত দিন

লেখকঃ উপদেষ্টা, বাংলাদেশ তামাক বিরোধী জোট, মেহেরপুর।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful