Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / ৯৬ নম্বরের উত্তর লিখেছে স্বপ্ন জয়ের অভিযাত্রী পাপিয়া

৯৬ নম্বরের উত্তর লিখেছে স্বপ্ন জয়ের অভিযাত্রী পাপিয়া

মেহেরপুর নিউজ,০২ ফেব্রুয়ারি:
পনের মার্কের প্রশ্ন কমন পড়েনি। এর মধ্যে লিখিত প্রশ্নের দশ মার্ক আর বাকিটা নৈর্ব্যক্তিকের পাঁচ মার্ক। তারপরও নিজের মত করে লিখিত ছয় মার্ক আর অবজেকটিভের পাঁচ মার্কের উত্তর লিখেছি। লিখিত ও অবজেকটিভ মিলিয়ে ৯৬ মার্কের উত্তর লিখতে পেরেছি।
গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে মেহেরপুর সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে বাংলা প্রথম পত্র পরীক্ষা শেষ করে কালের কন্ঠ’র প্রতিবেদকের কাছে এ অনুভুতি প্রকাশ করে পা দিয়ে লিখে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়া ববিতা আক্তার পাপিয়া।
গতকাল প্রথম দিন ছিল বাংলা প্রথম পত্র পরীক্ষা। ওই পত্রে ১০০ নম্বরের প্রশ্ন ছিল। এর মধ্যে লিখিত ৭০ নম্বর আর নৈর্ব্যক্তিক (অবজেকটিভ) এর নম্বর ছিল ৩০।
কত নম্বর পাবে এ প্রশ্নের জবাবে পাপিয়া বলে, এটা কি আগে থেকে বলা যায়। লিখলাম তো এখন দেখা যাক কি হয়? লজ্জাভাব নিয়ে পাপিয়ার সহজ সরল উত্তর।
সকাল ১০টার দিকে বাংলা প্রথম পত্র পরীক্ষা শুরু হয়। প্রতিবন্ধী হিসেবে তাকে কক্ষের মেঝেতে আলাদা করে সিটের ব্যবস্থা করে দেওয়া হলেও সে সকলের সাথে নিজ সিটে বসে পরীক্ষা দিয়েছে। পরীক্ষা দিতে সে সিট বেঞ্চকে ব্যবহার করেছে। সেখানেই পাপিয়া ¯^াচ্ছন্দ্য বোধ করছে বলে কেন্দ্র সচিব অজিত কুমার রায় জানান।
এদিকে,পরীক্ষা শুরু হওয়ার পরপরই ওই পাপিয়ার কক্ষসহ কেন্দ্র পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক (ডিসি) পরিমল সিংহ, সহকারী কমিশনার মোহাম্মদ নুর এ আলম, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল খয়ের। এসময় কেন্দ্র সচিব অজিত কুমার রায়, হল সুপার তাহাজ উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।
পাপিয়ার কক্ষ পরিদর্শন শেষে জেলা প্রশাসক জানান, শত প্রতিকুলতা থাকা সত্তেও ইচ্ছা শক্তির কারণে পাপিয়া এসএসসি পরীক্ষা পর্যন্ত আসতে পেরেছে। আমরা জানতে পেরেছি তার পরিবারের আর্থিক অবস্থা শোচনীয়। তার লেখাপড়া চালিয়ে যেতে প্রশাসনের পক্ষ সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
মেহেরপুর সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ওই কেন্দ্রের কেন্দ্র সচিব অজিত কুমার রায়  বলেন, ঝাউবাড়িয়া ম্যাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে পরীক্ষা দিতে আসা ববিতা আক্তার পাপিয়ার ছিট বসেছে ১১৭ নম্বর কক্ষে। সে হাত হাতে শক্তি না পাওয়াই পা দিয়ে লিখে। প্রতিবন্ধী হিসেবে বোর্ডের নীতিমালা অনুযায়ী তাকে সকল সুযোগ সুবিধা দেওয়া হবে।
অজিত কুমার রায় বলেন, পরীক্ষার আগে তার সাথে কথা বলেছি। তার আত্মবিশ্বাস এবং আগ্রহ দেখে আমি অভিভুত। তাকে দেখে তার মত যারা প্রতিবন্ধী লেখাপড়া না করে অন্য কিছু অবল¤^ন খুঁজে বেড়ায় পাপিয়াকে দেখে তারা লেখাপড়ায় উৎসাহিত হবে।
মেহেরপুর সদর উপজেলার ঝাউবাড়িয়া নওদাপাড়ার পিয়ারুল ইসলামের ছোট মেয়ে ববিতা আক্তার পাপিয়া। ওই গ্রামের (ঝাউবাড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়) মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষা অংশ নিয়েছে পাপিয়া। জন্মের পর থেকে সে দুই হাতে কোন শক্তি পায়না। পা দিয়ে লিখেই সে একের পর এক শ্রেণী উত্তির্ণ হয়েছে। ২০১৪ সালে পা দিয়ে লিখে জেএসসি পরীক্ষায় ভাল ফল নিয়ে পাশ করেছে পাপিয়া। শিক্ষকতা পেশাকে স্বপ্ন নিয়ে সে লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছে। পাপিয়া কে নিয়ে ২ ফেব্রুয়ারি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful