Templates by BIGtheme NET
Home / মুক্ত মত / আত্মহত্যার আত্ম কথা ও মেহেরপুরের যুব সমাজ অন্ধকারে যাত্রায় উজ্জ্বল কান্ডারী

আত্মহত্যার আত্ম কথা ও মেহেরপুরের যুব সমাজ অন্ধকারে যাত্রায় উজ্জ্বল কান্ডারী

 এম, এ, মুহিত:

আত্মহত্যা হল সইচ্ছায় নিজের জীবনকে একটি বিশেষ মাধ্যমে মৃত্যুর হাতে তুলে দেওয়া। সব ধর্মের শাস্ত্রে বলে আত্মহত্যা একটা মহাপাপ। যে আত্মহত্যা করে তখন সে নিজেও জানে না যে এটা একটা মহাপাপ।কারণ  আত্মহত্যা একটা মানুষিক রোগ। মানুষ যখন স্বাভাবিক জীবন থেকে বেরিয়ে যায় তখন তার মনে বাসা বাঁধে বিভিন্ন ধরনের মানুষিক রোগ। পৃথিবীতে বছরে প্রায় ১০ লক্ষ মানুষ আত্মহত্যা করে। মানুষ যখন স্বাভাবিক জীবন যাপন করে তখন তার ভিতরে জেগে উঠে অনন্ত তৃষা । সে পৃথিবীতে কিছু রেখে যেতে চাই। কারো না কারো অস্তিত্বকে আঁকড়ে ধরে রাখতে চায়। একটা গুল্ম লতা পৃথিবীতে বেঁচে থাকার জন্য একটা পাথর খন্ডকে আঁকড়ে ধরে রাখে। তাই কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বলেছেন-

’মরিতে চাহিনা আমি সুন্দর ভূবনে

মানবের মাঝে আমি বাঁচিবারে চাই।’

মানুষ সারা জীবন মানুষের মাঝে বেঁচে থাকতে চাই। তারপরও মানুষ পৃথিবীর মায়া ছেড়ে সেচ্ছায় মৃত্যু বরণ করছে। সৃষ্ঠির স্বার্থকতা ধবংশের মাঝে। এই প্রথিবীর মায়া ছেড়ে সকল মানুষ এক সময় একে একে চলে যাবে। এই জটিল জগত সংসারে মানুষ তার মৌলিক ও গৌন চাহিদা মেটাতে না পারার কারণে মনের ভিতরে বিসাদের ছায়া পড়ছে। এর ফলে পরিবারে সুষ্টি হচ্ছে হানা হানি ঝগড়া বিবাদ। পরিবার ও সমাজ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে মানবতাবোধ। মানবতা শেষ হওয়ার কারণে মানুষের জীবন থেকে হারিয়ে যাচ্ছে নিরাপত্তা, আশা ও ভরসা।

পারিবারিক ও সামাজিক বিভিন্ন সমস্যার কারেণ মানুষকে ঘিরে ফেলছে বিষন্নতা। বিষন্নতা মানুষের চিন্তা শক্তিকে দূর্বল করে দেই। ফলে এক সময় সে হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। তখন সে যেটা ভাবে মনে করে সেটা সঠিক। বিষন্নতা আত্নহত্যার একটা বড় কারণ। পৃথিবীতে বিষন্নতার কারণে বছরে অনেক যুবক-যুবতি আত্মহত্যা পথ বেছে নেই।

আত্মহত্যার আর একটি মূল কারণ হল আঘাত। আঘাত মানুষের সকল ইন্দ্রীয়কে উত্তেজিত করে তোলে। তখন সে আর ভাল কিছু ভাবতে পারে না। কারো আঘাত সহ্য করার ক্ষমতা থাকে আবার কারো থাকে না। যখন আঘাত সহ্য করার ক্ষমতা ধিরে ধিরে কমে যায় তখন মানুষ আত্মহত্যার পথে হাটতে থাকে।

অমানবিক শারীরিক নির্যাতনের কারণে মানুষের নিরাপত্তা, আশা ও ভরসা সব কিছু ধবংশ করে দেই। যৌতুক প্রথা হল আত্মহত্যার আর একটি বড় কারণ। বেশির ভাগ গ্রাম অঞ্চলে দেখা যায় যৌতুক না দেওয়ার কারণে স্বামী তার স্ত্রীকে অমানবিক শারীরিক নির্যাতন করে থাকে। এর ফলে স্ত্রী বাবার কুলে স্বামীর কুলে কোন আশা ভরসা না পেয়ে আত্মহত্যার করে থাকে। গ্রাম অঞ্চলে আত্মহত্যার সংখ্যাটা একটু বেশি।

বাংলাদেশে যৌন নির্যাতন ও যৌন হয়রানি প্রতিনিয়ত বেড়ে চলেছে। শিশু থেকে শুরু করে কিশোরী, যুবতী  মহিলা, যৌন হেনস্থার হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না। বিভিন্ন অফিস আদালতে মেয়েরা যৌন হয়রানি শিকার হতে শোনা যায়। অনেক সময় যৌন নির্যাতন ও যৌন হয়রানির ঘটনা বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশ হয়ে যায়। ঘটনা গুলো যখন সমাজের সামনে চলে আসে তখন মেয়েরা সমাজের গ্লানি থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য আত্মহত্যা করে থাকে।

বাংলাদেশের যুব সমাজ আজ মাদকে আসক্ত। মাদক হল এমন একটা জিনিস যা বিষধর সাপের বিষাক্ত ছোবলের মতো একজন মাদকাসক্ত ব্যক্তিকে ধীরে ধীরে নিঃশেষ করে দেই। মাদকাসক্ত ব্যক্তি যখন ঠিকমত মাদক নিতে পারে না। তখন তার শারীরিক ও মানুষিক বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেই। মাদকাসক্ত ব্যক্তি যখন মাদক নেওয়ার জন্য অর্থ না পায় তখন সে এক পর্যায়ে চুরি করতে থাকে। যখন চুরি করে কিছু না পায় তখন মাদকাসক্ত ব্যক্তি নিজের শরীরকে ক্ষত করতে থাকে। এক পর্যায়ে সে আত্মহত্যার বিভিন্ন পথ খুঁজতে থাকে।

বাংলাদেশে বেকার সমস্যা দিন দিন বেড়ে চলেছে। অনেক চেষ্ঠা করেও একজন বেকার যুবক যখন কোন চাকরী না পায়। তখন তাকে বিষন্নতায় ও হতাসা গ্রাস করে ফেলে। ভাবতে থাকে পড়ালেখা করে কি হল? তারপর আবার অর্থ কষ্ট। পরিবার ও সমাজের বিভিন্ন মানুষিক চাপে হারিয়ে ফেলে পৃথিবীর মায়া। কোন আশার আালো না পেয়ে এক সময় তার আত্মহত্যার জায়গাটা সঠিক বলে মনে হয়।

সম্পর্ক এমন একটা জায়গা যেন দুটো মেরুর একটা সুন্দর সেতু বন্ধন। এই মনুষ্য জগতে প্রতিনিয়ত চলতে থাকে সম্পর্কের বিচ্ছেদ। বৈবাহিক জীবনে স্বামী-স্ত্রীর বিচ্ছেদ, পরিবারের আপনজনদের সাথে সম্পর্ক বিচ্ছেদ, প্রেমিক প্রেমিকার সাথে সম্পর্ক বিচ্ছেদ। পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক বিচ্ছেদ। এই সম্পর্ক বিচ্ছেদ বর্তমান সমাজের একটা বড় ব্যাধি হয়ে দাড়িয়েছে। সমাজে বেশির ভাগ দেখা যায় অল্প বয়সের প্রেমিক-প্রেমিকাদের সম্পর্ক বিচ্ছেদের কারণে আত্মহত্যা হারটা একটু বেশি বেড়ে গেছে।

সুস্থ্যতা সুখের মূল। সুস্থ্য শরীরে যদি কোন মরন ব্যাধি বাসা বাঁধে তখন মানুষের জীবন থেকে সুখ ও শান্তি নামক শব্দটা চির তরে উঠে যায়। যদি কোন মানুষের শরীরে দীর্ঘস্থায়ী কোন ব্যাথা বা রোগ প্রতি মুহুর্তে শরীরকে বিষিয়ে তোলে তখন যন্ত্রনা সহ্য না করতে পারার কারণে কিছু মানুষ আত্মহত্যার পথ বেছে নেই।

অর্থনৈতিক মুক্তি ছাড়া কোন কিছুই সম্ভব না। অর্থ হল পরিবারের চালিকা শক্তি। বেশির ভাগ পুরুষের হাতে টাকা না থাকলে সে মানুষিক ভাবে খুব ভেঙ্গে পড়ে। অভাব তার চিন্তা শক্তিকে র্দুবল করে দেই। এক সময় মানুষিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে। বাংলাদেশে যখন সেয়ার বাজারে ধস নেমেছিল তখন বাংলাদেশে অনেক মানুষ সব টাকা হারিয়ে পথে বসে ছিল। অনেকে ঋণ করে সেয়ার বাজারে খাটিয়ে ছিল। ঋণ পরিশোধ না করতে পারার কারণে কিছু মানুষ আত্মহত্যা করেছে। রানাপ্লাজার অনেক শ্রমিক পঙ্গু অবস্থায় দিনযাপন করছে। তাদের ভিতরে কয়েক জন অর্থ কষ্ট ও অক্ষমতা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য আত্মহত্যার করেছে। বিভিন্ন পত্রিকায় এই হৃদয়বিদারক ঘটনা গুলো প্রকাশিত হয়।

বেশির ভাগ প্রেমিক-প্রেমিকারা ফোনে বেশি কথা বলে। এক সময় ফোন সেক্সও করে। অনেক সময় প্রেমিক তার প্রেমিকার ফোন সেক্সের কথা গুলো রেকোর্ডিং করে রাখে। যখন তাদের সম্পর্ক বিচ্ছেদ হয়ে যায় তখন প্রেমিক ফোন সেক্স অডিও অনলাইনে বিভিন্ন ফোন সেক্স সাইডে ছেড়ে দেই। এক সময় যখন ফোন সেক্সের বিষয়টা সবার সামনে চলে আসে তখন মেয়েরা আত্নহত্যার পথ বেছে নেই।

ফেসবুকে বিশেষ করে মেয়েরা বেশি প্রতারিত হচ্ছে। এক দল কুচক্রী সুন্দরী মেয়েদের ছবি ফেসবুক থেকে নিয়ে সুন্দর করে পর্নস্টারদের মত এডিট করে ২০-৩০ ডলারে পর্ন সাইডে বিক্রি করে দেই। যারা পর্নগ্রাফি দেখে এক সময় হঠাৎ করে তাদের সামনে তার পরিচিত মেয়েটির পর্নগ্রাফি চোখের সামনে ভেসে আসে। এক সময় বিষয়টা জানাজানি হয়ে গেলে বেশির ভাগ মেয়েরা লজ্জায় আত্নহত্যার পথ বেছে নেই। এর কারণে বাংলাদেশে বছরে ১০ জন মেয়ে আত্মহত্যা করে থাকে।

বর্তমানে বাংলাদেশে ১৫০০-২০০০ মানুষ লিভ টুগেদার করে। ঢাকাতে এর সংখ্যা বেশি। ঢাকাতে বেশির ভাগ লিভ টুগেদার করে বিভিন্ন জেলা থেকে আগত ছাত্র-ছাত্রীরা। তারা স্বামী-স্ত্রীর পরিচয় দিয়ে ঢাকাতে ঘর ভাড়া করে বসবাস শুরু করে। তারা এক সাথে পড়ালেখা করে আবার ঘর সংসারও করে। যখন মেয়েটা এক সময় বাচ্চা ধারণ করে ফেলে তখন থেকে শুরু হয়ে যায় তাদের ভিতরে অশান্তি। এটা নিয়ে প্রতিনিয়ত চলতে থাকে ঝগড়া। এক সময় মেয়েটা সমাজের ভয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নেই। আবার কিছু মেয়ে ছেলেদের হাতে খুন হয়ে যায়।

বাংলাদেশের মধ্যে মেহেরপুর একটি ছোট্ট জেলা। ইতিহাস ও ঐতিহ্যের দিক থেকে বাংলাদেশের অনেক মানুষ মেহেরপুরকে চেনে। এই ছোট্ট একটি শহরকে যুব সমাজ খুব দ্রুত শিক্ষা, শিল্প ও সংস্কৃতির দিক থেকে প্রসার করতে পারে। কিন্তু মেহেরপুরের যুব সমাজ এথন অন্ধকার পথের যাত্রী। কয়েক মাসের মধ্যে বেশ কয়েক জন অল্প বয়সের যুবক-যুবতি আত্মহত্যা করেছে। আত্মহত্যার কারণ জনতে চাইলে সকলে একই কথা বলে, হৃদয় ঘটিত কারণে আত্মহত্যা করেছে। মেহেরপুরে বছরে প্রায় ৪০-৫০ জন আত্মহত্যা করে থাকে। অল্প বয়সের যুবক-যুবতিরা আত্মহত্যা করা অর্থ হল, শিক্ষক ও অভিভাবকরা তাদেরকে মৌলিক শিক্ষা ও মনস্তাত্ত্বিক ভারে গড়ে তুলতে ব্যর্থ। বয়সন্ধিক্ষণ থেকে একজন কিশোর-কিশোরী বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আকৃষ্ট হয়। সে দেখতে থাকে রঙিন স্বপ্ন। আস্তে আস্তে তার শারীরিক ও মানষিক পরিবর্তন ঘটতে থাকে। আবার কোন যুবকের ঘরে যদি কোন সু্ন্দরী মেয়ের ছবি থাকে তাহলে তার ভিতরে যৌন উত্তেজনা কাজ করে। আর কোন মেয়ের যদি প্রথম মেনিস্ট্রেশন শুরু হয় তাহলে সে লজ্জায় বিষন্নতায় ভোগতে থাকে। সব কিছু ঘটে প্রাকৃতিক নিয়মে। এই গুলো থেকে যুবক-যুবতিরা বিষন্নতায় ভোগে এবং আবেগে অনেক ভুল কিছু করে বসে। এর জন্য শিক্ষক ও অভিভাবকদের সচেতন হতে হবে। এবং তাদের সাথে বন্ধু সুলভ আচরণ করে মনস্তাত্ত্বিক ভাবে তাদেরকে গড়ে তুলতে হবে। ভাল লাগা থেকে ভালোবাসার সৃষ্টি হয়। প্রেম প্রিতি ভালোবাসা থাকবে। এটা মানব সত্তার জন্মগত অধিকার। ছেলে এবং মেয়ে যদি সুষ্ঠ চিন্তা ধারায় মানুষিক ভাবে বেড়ে উঠে একটা আদর্শের জায়গায় দারিয়ে থাকে তাহলে হৃদয় ঘটিত কারণে আত্নহত্যা বেশি হত না।

মেহেরপুরের দিকে এক নজরে তাকালে যুব সমাজ মৌলিক বিষয় গুলো বাদ দিয়ে গৌন বিষয় গুলো বেশি ধারণ করে। এর প্রধান কারণ হল, সুশিক্ষা ও সঠিক নেতৃত্বের অভাব। মেহেরপুরের যুব সমাজ অনেক মেধাবী। যুব সমাজ কোন গোষ্ঠির হাতিয়ার হিসেবে যদি ব্যবহার হয় তাহলে যুব সমাজ তাদের জীবন থেকে হারিয়ে ফেলবে তাদের নিজেদের জীবনের হাতিয়ার। মেহরেপুরে অনেক ভাল ভাল সাংস্কৃতিক সংগঠন আছে। আদর্শ সংগঠন গুলোর যুবকদের তৈরি করার সদিচ্ছা থাকলেও অর্থনৈতিক ও সামাজিক বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার কারণে যুব সমাজদের তৈরি করতে ব্যর্থ হচ্ছে। বর্তমানে মেহেরপুরের কিছু কিছু সাংস্কৃতিক সংগঠন যুবকদের নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। সংগঠনের কার্যক্রম গুলো শুধু ফেসবুক আর পত্র পত্রিকায় আসে ‍কিন্তু যুবকদের কোন উন্নতি হচ্ছে না। সংগঠন গুলোর সঠিক নেতৃত্বের অভাবে মেহেরপুরের যু্ব সমাজ আজ ধ্বংশের পথে। নিজের প্রানের শহরকে উন্নয়ন করতে হলে যুব সমাজকে কাজ করতে হবে রাজনৈতিক ছত্র ছায়ার বাইরে থেকে। কারণ ভেদাভেদ মানুষকে হানাহানি করতে শেখায়।

একজন যুবককে হতে হবে উদ্যমী, সাহসী ও মেধাবী। তারা শুধু সব জায়গায় আত্মবিশ্বাস নিয়ে স্লোগান দেবে- আমরা পারি আমরা পারব। আমরা করব জয় একদিন। আর যৌবনের গান গায়বে। প্রত্যেক সাংস্কৃতিক সংগঠনকে যুবকদের মটিভেট করার জন্য বিভিন্ন বিষয়ের উপর নিয়মিত কর্মশালার ব্যবস্থা করতে হবে। কর্মশালার মধ্যে নন্দন তত্বের জ্ঞান দিতে হবে। চরিত্র গঠনের মাধ্যম গুলো শেখাতে হবে। কি ভাবে একটা সংগঠনকে নেতৃত্ব দিতে হয় তা সবাইকে শেখাতে হবে। ৩ মাস পর পর তাদেরকে সংগঠনের প্রধান দায়িত্ব দিতে হবে। আমার রাজার পাঠ চাই এই তত্ব বাদ দিতে হবে। সংস্কৃতির ভাষায় একটা কথা আছে। ১০ এর ভিতরে ১ হইও না ১১ হও তাহলে তোমার দ্বারা দেশের শ্রেষ্ঠ সেবাটা হবে। একজন যুবকের ১ম শিক্ষা হওয়া উচিৎ শারিরীক চর্চা ও ইন্দ্রীয় চর্চা। স্বাস্থ্যই সম্পদ। শারীরিক শ্রম আর মেধার সমন্যয়ে গড়ে উঠে জাতির সুন্দর ভবিষ্যৎ।

 

মেহেরপুর থেকে দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে খেলয়ার, সঙ্গীত শিল্পী, বাদ্যযন্ত্র শিল্পী, নাট্য শিল্পী, যাত্রা শিল্পী, চিত্র শিল্পী, ও বিজ্ঞানী। ‍কিন্তু মেহেরপুরে দিন দিন বেড়ে চলেছে রাজনৈতিক নেতা। নতুন করে মেহেরপুরে আর তেমন কোন প্রতিভাবান ব্যক্তি তৈরি হচ্ছে না। চোখে পড়ার মত কিছু পাওয়া যাচ্ছে না। এর প্রধান কারণ হল ভার্চুয়াল জগত। বর্তমান যুব সমাজ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে শারীরিক ও মানুষিক ভাবে হয়ে যাচ্ছে অলস। ফেসবুক কি ফেসবুকিং কি ভাবে করতে হয় সেটার সঠিক ব্যবহার এখনো যুবসমাজ শিখতে পারেনি। তাদের কাছে ফেসবুকিং না করলে আধুনিক হওয়া যায় না। চায়না পৃথিবীর মধ্যে প্রযুক্তির দিক থেকে একটা উন্নত রাষ্ট্র। রাষ্ট্রীয় ভাবে চায়নাতে ফেসবুক একদম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। চায়নিজরা কি আধুনিক না? চায়নার যুব সমাজরা তাদের শ্রম ও মেধা খাটিয়ে নিজেদের তৈরি পন্য দ্রব্য সারা বিশ্বের হাতে তুলে দিয়েছে। আর আমরা শ্রম মেধা না খাটিয়ে ভার্চুয়াল জগতে বসে থেকে উন্নয়নের গান গায় আর ডিজিটাল দেশ বলে স্লোগান দিই। আমাদের যুব সমাজ যদি ভার্চুয়াল জগতে বসে থেকে অনলাইন আউট সোর্সসিং করত তাহলে কাজের দক্ষতা বারত আর অর্থনৈতিক মুক্তিও ঘটত। বর্তমান বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হলে যুব সমাজদের এখন আর বসে থাকার সময় নেই। আগামী কাল থেকে শুরু না করে এখন থেকে শুরু করে দিতে হবে। আগামীকাল কখনোই আসবে না। কারণ অলসতা ও আত্মহত্যা দুটোই মানুষিক রোগের মধ্যে অন্তরভুক্ত।

বর্তমানে মেহেরপুরে মেধাবী, দক্ষ ও অভিজ্ঞ বুদ্ধিজীবীরা মুখ থুবড়ে পড়ে আছে। এর প্রধান কারণ হল অমূল্যায়ন, আত্নকেন্দ্রিকতা, অহমিকা ও যুব সমাজের প্রতি ভীতি সৃষ্টি হওয়া। আর যুবকদের অসন্মান জনক আচরণ। মেহেরপুরে সঠিক জায়গায় যোগ্য লোকের খুব অভাব। শিক্ষক, অভিভাবক ও বুদ্ধিজীবীদের অবহেলার কারণে যুব সমাজ আজ অন্ধকারে হারিয়ে যাচ্ছে। যুব সমাজের কান্ডারিরা জেগে না উঠলে মেহেরপুর থেকে হারিয়ে যাবে অনেক কিছু। যু্ব সমাজ ডুবে যাবে অন্ধকারে। আর ভুলে যাবে নিজ জেলার সংস্কৃতি।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.