Templates by BIGtheme NET
Home / সম্পাদকীয় ও উপ সম্পাদকীয় / আন্তর্জাতিক পরিবেশ দিবস,পরিবেশ সুরক্ষায় আমাদের করণীয়

আন্তর্জাতিক পরিবেশ দিবস,পরিবেশ সুরক্ষায় আমাদের করণীয়

উপসম্পাদকীয়

রফিক-উল-আলম

আজ ৫জুন ২০১০ আন্তর্জাতিক পরিবেশ দিবস। বিশ্বের অন্যান্য দেশের পাশাপাশি আমাদের দেশেও দিবসটি আজ সরকারী ও বেসরকারী ভাবে পালিত হচ্ছে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য বিষয় হলো ”Many Species, One Planet, One Future” যার বাংলা রুপ দেয়া হয়েছে ”জীব বৈচিত্র পূর্ণ একটি পৃথিবী আমাদের স্বপ্ন| উদ্দেশ্য হলো পরিবেশ সংরক্ষণ ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার ব্যাপারে জনগণকে সচেতন করে তোলা।

একজন আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন বিজ্ঞানী ও পরিবেশবিদ বিশ্বের উষ্ণতা বৃদ্ধি প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বলেছেন ”গত তিন চার দশকে বাংলাদেশ সম্বন্দ্ধ এর চেয়ে বড় দুঃসংবাদ আমি পাইনি। এই সংবাদে সবার হাত পা ঠান্ডা হয় রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ার উপক্রম।  বুশ ব্লেয়ারের আগ্রাসনে আফগানিস্তান ও ইরাকে অসহায় মানুষের মত অথবা হানদার ইথিওপীয় হানাদারদের সামনে মোগাদিসুর নিরপরাধ মানুষের মত, জলবায়ু পরিবর্তনজনিত মহাসংকটের মুখোমুখি বাংলাদেশের মানুষের জন্য মনে হয় দুটো পথ খোলা। হয় বাংলাদেশ ছেড়ে যেদিকে পারে পালিয়ে যাওয়া নয়তো বাংলাদেশে অবস্থান করে ধুকে ধুকে অন্তিম অবসানের দিন গোনা”।

শত শত বছর ধরে মানুষ নিজেদের সুখ সুবিধার জন্য প্রকৃতির এত বেশী ক্ষতি করেছে যে প্রকৃতি এখন প্রতিশোধ নিতে উদ্দত হয়েছে। আর সমপ্রতি আমরাও প্রকৃতি ও পরিবেশ নিয়ে মাথা ঘামাতে শুরু করেছি। আমরা ভাবি বা অনেকেই জানিনা প্রকৃতি কিভাবে আবার প্রতিশোধ নেয়। আসলে আমরা জানিনা পৃথিবীতে প্রকৃতির ভারসাম্য নষ্ট হয়ে গেলে প্রাণের অস্তিত্ব থাকবে না। বিষয়টি কত জটিল তা একটি ছোট্ট উদাহরণ দিলে বোঝা যাবে। বিশ্বের জনসংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে  এতে খাওয়া দাওয়ার সমস্যা দেখা দিচ্ছে বটে কিন্তু এর চেয়ে বড় সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে কারণ জনসংখ্যা যতই বাড়ছে ততই বন কেটে, নদী জলাশয় মাটি ভরাট করে বসতি স্থাপন ও আবাদি জমির সৃষ্টি করা হচ্ছে। শুধু বসতি স্থাপন বা আবাদি জমি সৃষ্টিই হচ্ছেনা স্থাপন করা হচ্ছে ইট ভাঁটা। সর্ব ক্ষেত্রেই উজাড় হচ্ছে সবুজ বন । সাথে সাথে বনভূমি ধ্বংস করে ভুমি দস্যুরা চালাচ্ছে অবৈধ দখল প্রক্রিয়া। কিন্তু জীবের জন্য তথা আমাদের জন্য খুব বেশী দরকার বন। কারণ সবুজ গাছ বাতাস থেকে কার্বনডাই অক্সাইড গ্রহণ করে ও অক্সিজেন দেয়। বন কমে গেলে বায়ু মন্ডলে কার্বণডাই অক্সাইড বেড়ে যায় এবং পৃথিবীতে ঘিরে এর আবরণ পুরু করে তোলে। ফলে সূর্য কিরণে উত্তপ্ত ভূপৃষ্ঠের তাপ মহাশূণ্যে ছড়িয়ে পড়তে পারেনা। ভূপৃষ্ঠের গড় তাপমাত্রা ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে  একে বলা যায় গ্লোবাল ওয়ার্মিং এবং এই প্রক্রিয়া হলো গ্রীণ হাউজ প্রফেস্ট। ভূপৃষ্ঠে গড় তাপমাত্রা যদি ৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড হেরফের হয় তাহলে পৃথিবীতে প্রানের অস্তিত্ব বিলুপ্ত হতে পারে। তাই দেখা যাচ্ছে শুধু বন ধ্বংশের কারণে পরিবেশে যে ভারসাম্যহীনতা সৃষ্টি হয় তা শেষ পর্যন্ত মানুষসহ সব প্রাণীর জীবন মরণ সমস্যা হয়ে দাঁড়াতে পারে। উত্তপ্ত হচ্ছে পৃথিবী, গলছে বরফ, বাড়ছে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা। জলবায়ুর পরিবর্তনে ব্যাহত হচ্ছে ইকোসিস্টেম। জন জীবনে নেমে আসছে বিপর্যয়। এর জন্য দায়ী করা হচ্ছে গ্লোবাল ওয়ার্মিংকে। গ্লোবাল ওয়ার্মিং বা ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রা পৃথিবীর জন্য মারাত্মক হুমকি।

পরিবেশ বিশেষজ্ঞদের মতে আগামী এক দশকের মধ্যে বাংলাদেশে ভৌগলিক পরিবর্তন দেখা দেবে। মার্কিন বিশেষজ্ঞ ড. জান এডামন ইতোপূর্বে জানিয়েছিলেন ২০০২ সাল থেকে ২০০৮ সালের মধ্যবর্তী সময়ে বাংলাদেশে প্রচন্ড খরার সৃষ্টি হবে। যা আমরা ইতিমধ্যে প্রত্যক্ষ করেছি। বিশ্বমন্ডলীর আবহাওয়া বিভিন্ন স্থানে খরা ও তুষারপাত নিয়ন্ত্রণ করে। তাই অস্থির আবহাওয়া সম্পর্কে খুব নিশ্চিত করে কিছু বলা সম্ভব নয়। পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখতে ২৫ভাগ বনাঞ্চচলের প্রয়োজন হলেও বাংলাদেশে বঞ্চাচলের গড় হার ১২ ভাগের উপরে নয়। আবহাওয়াবিদদের ধারনা এ অবস্থা আবহাওয়ার ওপর প্রভাব ফেলছে। পৃথিবীর দুটি ভিন্ন তাপমন্ডল ক্রান্তিস্থলের উষ্ণমন্ডলে বাংলাদেশের অবস্থান। সমুদ্রসান্নিধ্য ও মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে এদেশের আবহাওয়া নাতিশীতোষ্ণ মৌসুমী বায়ু প্রবাহের প্রকৃতি অনুযায়ী গ্রীষ্মকালে দক্ষিণ-পশ্চিম দিক থেকে বায়ু প্রবাহিত হয়। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, দেশে উপর্যুপরি খরা ও বন্যার কারণ হলো বাংলাদেশের আবহাওয়া ব্যাপকভাবে পরিবর্তিত হচ্ছে। বিশেষ করে দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের জেলাগুলি এ ক্ষতিকর প্রভাবের শিকার হবে। হারাবে প্রকৃতির বৈচিত্রতা।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্যমতে, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলোর ওপর দিয়ে প্রবাহিত ২৫টি নদ-নদী নাব্যতা হারিয়ে মৃতপ্রায় অবস্থায় পৌঁচেছে। এসব নদ নদী  কোন কোনটার অস্তিত্ব মানচিত্রে আছে, বাস্তবে নেই। এ অঞ্চলের ওপর দিয়ে প্রবাহমান একমাত্র জীবিত নদী শুষ্ক মৌসুমে প্রায় শুকিয়ে যাচ্ছে। নদীর বুক জুড়ে চলছে চাষাবাদ আবার কোথাও কোথাও পুকুর কেটে চলছে মাছ চাষ। এখানেও জীব বৈচিত্র হারিয়েছে তার প্রাণ।

পরিবর্তিত এ জলবায়ুর প্রভাব এখন ধীরে ধীরে আমাদের বাড়ীর আঙিনায় এসে ঠেকেছে। ফসিলজাত জ্বালানীর মাত্রাতিরিক্ত ব্যাবহারের ফলে কার্বনডাই অক্সাইড এর মাত্রাতিরিক্ত উপাদান এবং রিসাইকেল করার লাগসই ও সস্তা প্রযুক্তি উদ্ভাবন না হওয়া,কার্বনডাই অক্সাইডের প্রভাবে ভূপৃষ্ঠের তাপমাত্রা বৃদ্ধি এবং এর ফলে উত্তর মেরুর বরফ গলে গিয়ে সমুদ্রের পানির উচ্চতা বেড়ে যাওয়ায় সমুদ্র উপক্থলবর্তী বনাঞ্চল, প্রাণিকুল ও জনবসতি নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়া, নভোমন্ডলের ওজন স্তরে বিশাল ফাটল সৃষ্টি হয়ে ক্ষতিকর অতিবেগুনি রশ্মি ও অবলোহিত রশ্মি ভূপৃষ্ঠে চলে আসা ইত্যাদি ঘটনা জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে জড়িত। ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রার কারণে আর্কটিক ও অ্যান্টার্কটিকার বরফ গলে গিয়ে সমুদ্রের পানির উচ্চতা বেড়ে চলেছে প্রতিবছর। আর এর প্রভাবে বঙ্গোপসাগর সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভ বন খেয়ে চলেছে। তৎকালিন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন ১৯৯৭ সালের ২৬ জুন ধরিত্রী সম্মেলন+৫ এ তাঁর ভাষনে বলেন, In Asia, 17 percent of Bangladesh land on which six million people live, will be lost অর্থাৎ ৬০ লক্ষ মানুষের আবাস বাংলাদেশের ১৭ ভাগ ভূখন্ড পানির নীচে তলিয়ে যাবে। সেখানে বিল ক্লিনটন স্করেন, আমরা এই যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বের মাত্র ৪ ভাগ জনসংখ্যা হয়েও ২০ ভাগ গ্রীণহাউস গ্যাসের মত দূষিত হাওয়া সৃষ্টি করেছি। ২০০১ সালের বিশ্ব ব্যাংকের রিপোর্ট অনুযায়ী বঙ্গোপসাগরের উচ্চতা প্রতি বছর প্রায় ৩ (তিন) মিটার বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে দেশের দক্ষিণাঞ্চল তথা সুন্দর বনের রয়েল বেঙ্গল টাইগার, ম্যানগ্রোভ বন ও শতাধিক প্রজাতির পাখি ও অন্যান্য প্রানি হুমকির মুখে পড়েছে। এছাড়া ১৫ থেকে ২০ ভাগ ভূমি সমুদ্রে তলিয়ে যাবে। এভাবে সমুদ্র পৃষ্ঠ স্ফীত হলে সমুদ্র উপক্থলের অসংখ্য মানুষই শুধু নয়, ধান উৎপাদনও ৩০ শতাংশ কমে যাবে। বিজ্ঞানীরা সম্ভাব্য সমুদ্রতল বৃদ্ধি ৩০ সেন্টিমিটার থেকে ১.৫ মিটার হতে পারে বলে অভিমত পোষন করেন। সমুদ্রের উচ্চতা ১ মিটার বৃৃদ্ধি পেলে উপক্থলীয় অঞ্চলের ৬৫.০৮ লক্ষ একর জমি জলমগ্ন হবে। যা দেশের মোট জমির ১৫.৮ ভাগ। অর্থাৎ সারা দেশের ১৩.৭৪ ভাগ আবাদি জমি, ২৮.২৯ ভাগ বনভূমি সম্পূর্ণ ধ্বংস হবে।

উত্তপ্ত হচ্ছে পৃথিবী, গলছে বরফ, বাড়ছে সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা। এসব বিপর্যয় থেকে রক্ষা পেতে হলে নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে হবে। আর প্রচুর বনায়ন করতে হবে। বনায়নের কোন বিকল্প নেই। গাছ নিয়ে ভারতের Forest Research Institute একটি হিসাব দিয়েছে এরকম ভাবে যে যদি একটি গাছ ৫০ বছর বেঁচে থাকে তাহলে সে দিয়ে যায়—-

১। বায়ু দূষণ থেকে পরিবেশকে ১০ লক্ষ টাকা;

২। জীবন রক্ষাকারী অক্সিজেন দেয় ৫ লক্ষ টাকা;

৩। বৃষ্টির অনুক্থল পরিবেশ সৃষ্টি করে বাঁচায় ৫ লক্ষ টাকা;

৪। মাটির ক্ষয় রোধ ও উর্বরতা শক্তি বাড়িয়ে বাঁচায় ৫ লক্ষ টাকা;

৫। গাছে বাস করা প্রাণির খাদ্য ও আশ্রয় দিয়ে বাঁচায় ৫ লক্ষ টাকা;

৬। আসবাব পত্র ও জ্বালানী কাঠ সহ ফল সরবরাহ করে ৫ লক্ষ টাকা ও

৭। বিভিন্ন জীবজন্তুর খাদ্য জোগান দিয়ে বাঁচায় ৪০ হাজার টাকা।

একটু ভাবলেই আমরা বুঝতে পারি গাছ কি নিচ্ছে আর কি দিচ্ছে। গাছের ত্যাগ থেকে শিক্ষা না নিয়ে যদি উল্টা আমরা পৃথিবীকে বৃক্ষ শূণ্য ও সবুজ শূণ্য করার উৎসবে মেতে উঠি তাহলে কি অধিকার থাকে মানুষের সুন্দরের ধারক হওয়ার?

প্রতিনিয়ত বাড়ছে বৈশ্বিক তাপমাত্রা। এই কারণে দ্রুত গলে যাচ্ছে হিমালয়ের বরফ। মারাত্মক বিপর্যয়ের মধ্যে পড়তে যাচ্ছে পূর্ব এশিয়ার সমুদ্র উপক্থলীয় বিশেষ করে বাংলাদেশের  মত উন্নয়নশীল দেশ গুলো। জাতিসংঘের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে গ্লোবাল ওয়ার্মিং অব্যাহত থাকলে এ শতাব্দীতে জীব জগতের বেশির ভাগ প্রজাতির জন্য চরম দুর্ভোগ সৃষ্টি হবে। গ্রীণ হাউজ গ্যাসের কারণে জলবায়ুর ব্যাপক পরিবর্তন ঘটবে। বৃষ্টির ধরণ পাল্টে যাবে, ঝড়, খরা, বন্যায় নাকাল হবে প্রাণীক্থল, দেখা দেবে খাদ্যাভাব। বিশ্বে তাপমাত্রা ১৯৮০-৯৯ এর চেয়ে ২১০০  সালের মধ্যে ১.১ থেকে ৬.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়তে পারে। তাপমাত্রা  ১.৫ থেকে ২.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়লে প্রাণী ও উদ্ভিদদের প্রজাতি গুলোর মধ্যে ৩০ শতাংশ হুমকির মুখে পড়বে। তাপমাত্রা বৃদ্ধির ফলে মেরু অঞ্চলের বরফ গলে যাবে ফলে সমুদ্র পৃষ্ঠে উচ্চতা বেড়ে যাবে।

বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধির প্রভাবে সারা বিশ্বের সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ছে এ কথা উল্লেখ করে পরিবেশ বিশেষজ্ঞ এবং আইইউসিএনের কান্ট্রি রিপ্রেজেনটেটিভ অধ্যাপক ড. আইনুন নিশাত বলেন এর ফলে বাংলাদেশ সহ দক্ষিণ ও পূর্ব এশিয়ার সমুদ্র উপক্থলীয় বেশ কিছু দেশ মারাত্মক হুমকিরমুখে পড়বে। বিশেষ করে বাংলাদেশের উপকুলের বিশাল এলাকায় লবনাক্ত হয়ে যাবে এবং পরিবেশের উপর মারাত্মক বিপর্যয় বয়ে আনবে।

বৈশ্বিক উষ্ণতা বেড়ে যাওয়ার কারণে দক্ষিন-পশ্চিম অঞ্চলের পরিবেশের উপর বিরুপ প্রভাব পড়ছে। এ অঞ্চলের নদী গুলো শুকিয়ে  যাওয়ায় শুষ্ক মৌসুমে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিম্নমুখি হয়ে সেচ ও খাবার পানির  তীব্র সংকট দেখা দেয়। আবার বর্ষা মৌসুমে অল্প পানিতে এসব এলাকায় বন্যা দেখা দিয়ে চরম বিপর্যয় ঘটায়। পরিবেশ, গাছপালা ও জীববৈচিত্রের ওপর পড়ছে বিরুপ প্রভাব। ব্যাহত হচ্ছে বিভিন্ন ফসলের গড় উৎপাদন। এ অঞ্চলের দেশি মাছ প্রায় বিলুপ্তির পথে।  ইতোমধ্যে নদী অববাহিকায় শহরায়নের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ব্যর্থ হচ্ছে।

শেষ কথা হচ্ছে বিশ্বের পরিবেশের ভারসাম্য  রক্ষা না করে আমরা নষ্টই করছি। কিন্তু মোকাবিলা করার আমাদের কোন প্রস্তুতি নেই বললেই চলে। আপাতত  আমরা সাধারণ মানুষ একটি কাজ অন্তত করতে পারি তা হলো গাছ লাগিয়ে সৃষ্টি করতে পারি সবুজ প্রকৃতি। যাতে আমরা ও প্রাণিকুল পৃথিবী থেকে একেবারে শেষ না হয়ে যায় বা ধুকে ধুকে অবসান না হয়। ”জীববৈচিত্র পূর্ণ একটি পৃথিবী আমাদের স্বপ্ন যেন বাস্তবে রুপ নেয় এবং আমাদের অনাগত প্রজন্মরা যেন সেই নিরাপদ পৃথিবীর বাসিন্দা হতে পারে।

লেখক: সাংবাদিক, কলামিষ্ট

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.