Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / ঈদ আনন্দ ।। পর্যটকের পদভারে মুখরিত মুজিবনগর

ঈদ আনন্দ ।। পর্যটকের পদভারে মুখরিত মুজিবনগর

বিশেষ প্রতিবেদন

11703359_10204288350039978_4129708391276625882_nমেহেরপুর নিউজ,১৯ জুলাই:
দর্শনার্থীদের পদভারে মুখরিত হয়ে উঠেছে দেশের স্বাধীনতার সুতিকাগার ঐতিহাসিক মুজিবনগর। ঈদের ছুটিতে বেড়াতে যাওয়া মানুষগুলো ভীড় জমাচ্ছেন বাঙালীর গর্বের সেই আম্রকাননে। ঐতিহাসিক সেই স্থানের সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে ঈদ উৎসবকে আরো নিবিড়ভাবে উপভোগ করেছেন তারা।
কুস্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার খাইরুল ইসলাম ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে স্বপরিবারে বেড়াতে এসেছেন মুজিবনগরে। তিনি মেহেরপুর নিউজকে বলেন,মুজিবনগর শুধু বাংলাদেশের নয়,এটি এখন বিশ্বের একটি ঐতিহাসিক স্থান। এই স্থানটিকে একনজর দেখতে প্রতিদিন দেশ-বিদেশ থেকে লোক ছুটে আসে এখানে। তাই এবারের ঈদে পরিবারের সকলকে নিয়ে ছুটে এসেছি মুজিবনগরে।
অন্যদিকে পর্যটকদের নিরাপত্তা রক্ষার লক্ষে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী রয়েছে প্রস্তুত। প্রস্তুত রয়েছে মুজিবনগরের নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত আনসার ব্যাটালিয়ন সদস্যরা। এদিকে পর্যটকদের ভীড় দেখে 11201821_10204288351880024_4707131512695064527_nআম্রকাননের প্রধান ফটকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী নানা ধরনের মালামাল নিয়ে পসরা সাজিয়ে বসেছে। এখানে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ব্যবসায়ীরা এসে বসিয়েছে বিভিন্ন পণ্যের পসরা ।

কুষ্টিয়ার থেকে আসা ক্ষুদে ব্যবসায়ী আবুল হোসেন মেহেরপুর নিউজকে বলেন,প্রতিবছর ছোটদের খেলনা বিক্রি করতে মুজিবনগরে আসি। এবছরও এসেছি। এবার বেঁচা বিক্রি অন্যান্য বছরের তুলনায় বেশ ভাল। কারণ এবছর ভ্রমনপিপাসুদের ভীড় অনেক বেশী।
চুয়াডাঙ্গা থেকে মুজিবনগরে বেড়াতে আসা এক দম্পতি মেহেরপুর নিউজকে বলেন,মনের টানে মুজিবনগরকে দেখতে ও পরিবারের সদস্যদের সাথে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে এখানে এসেছি। মুজিবনগর আম্রকাননে যেন লাখো মানুষের ঢল নেমেছে। অনেক আনন্দ করছি। তিনি বলেন,নিরাপত্তা ব্যবস্থা লোকসমাগমের তুলনায় অনেক কম। ভবিষ্যতে স্থানীয় প্রশাসন এ ব্যাপারে নজর দিলে লোক সমাগম আরোও বাড়বে।

11742738_10204288351800022_6607395459554462758_nউল্লেখ্য,১৯৭১ সালের ১৭ই এপ্রিল মেহেরপুর জেলার মুজিবনগরের.. এই আম্রকাননে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম বাংলাদেশ সরকার গঠিত হয়। বৈদ্যনাথতলা গ্রামের এই আম্রকাননকে ঘিরে গড়ে উঠেছে স্মৃতি সৌধ, স্মৃতি কমপ্লেক্স, ছয় স্তর বিশিষ্ট গোলাপ বাগান এবং বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক স্মৃতি মানচিত্র। মুজিবনগরের নৈসর্গিক সৌন্দর্য উপভোগ আর মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানতে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পর্যটকরা ছুটে আসছেন এখানে।
এই স্থানের প্রধান আকর্ষণ বাংলাদেশের মানচিত্র এবং আম বাগান। এখানে নির্মিত সবুজ বুকের উপর উঠে এসেছে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক বাংলাদেশের স্মৃতি মানচিত্র। মানচিত্রের বুকে মুক্তিযুদ্ধের ১১ টি সেক্টরকে পৃথক করে দেখানো হয়েছে মুক্তিযুদ্ধে পাক সেনাদের হাতে উলে­খযোগ্য ধংসযজ্ঞ। তার মধ্যে তুলে ধরা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে দেশের বেনাপোল, বনগাঁও, বিরল, নেত্রকোনা সহ বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে ভারতের উদ্দেশ্যে শরনার্থী গমন, হার্ডিঞ্জ ব্রীজ ধ্বংস, আসম আব্দুর রবের পতাকা উত্তোলন, শাহজাহান সিরাজের ইশতেহার পাঠ, শালদাহ নদীতে পাকবাহিনীর সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের সন্মুখ যুদ্ধ, কাদেরীয়া বাহিনীর জাহাজ দখল ও যুদ্ধ, পাক বাহিনীর সাথে কামালপুর, কুষ্টিয়া ও মীরপুরের সন্মুখ যুদ্ধ, শুভপুর ব্রীজের দুপাড়ের মুখোমুখি যুদ্ধ, চালনা ও চট্টগ্রাম বন্দর ধ্বংস, পাহাড়তলী ও রাজশাহীতে পাক বাহিনীর হত্যাযজ্ঞ, জাতীয় শহীদ মিনার ধ্বংস, জাতীয় প্রেস ক্লাবে হামলা, সচিবালয়ে আক্রমন, রাজারবাগ পুলিশ লাইন ও জগন্নাথ হলের ধ্বংসযজ্ঞ, তৎকালীন ইপিআর পিলখানায় আক্রমন, রায়ের বাজার বধ্যভূমি, বুদ্ধিজীবি হত্যার বিভিন্ন চিত্র। এছাড়া মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের মধ্যে আছে তৎকালীন সেনাপ্রধান, উপপ্রধান, বীর উত্তম, বীর বিক্রম, জাতীয় চার নেতা, তারামন বিবি ও সেতারা বেগমের মূর্তমান ছবি সহ ব্রঞ্চের তৈরী ২৯ টি অবক্ষ ভাস্কর, জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ ৩০ নেতার তৈলচিত্র রয়েছে। যা কিছু দেখলে বুঝা যাবে মুক্তিযুদ্ধে পাক বাহিনীর বর্বরতা, মুক্তিযোদ্ধাদের সাহসী অবদান ও জীবনবাজি এবং মুক্তিযুদ্ধে তৎকালীন নেতাদের দেশপ্রেম। কিন্তু আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন না হওয়ায় নির্মানের ৫ বছর পরও এই ঐতিহাসিক মূহুর্তগুলির মূর্তমান নিদর্শন গুলি সর্বসাধারণের জন্য আজও খুলে দেয়া হয়নি।
মানচিত্রের বাইরে রয়েছে বড় ম্যুরালে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষন, ২৫ মার্চের কালো রাত্রির হত্যাযজ্ঞ, পাক বাহিনীর হাতে নারী নির্যাতন ও সম্ভ্রমহানী, মুক্তিযোদ্ধাদের বাড়িতে অগ্নি সংযোগ, ৭১ এর ১৭ এপ্রিল এই মুজিব নগরে দেশের প্রথম সরকারের শপথ ও সালাম গ্রহন, মেহেরপুরের স্থানীয় ১২ আনসার সদস্য কর্তৃক প্রথম সরকার প্রধান সৈয়দ নজরুল ইসলাম সহ সরকার প্রধানদের গার্ড অব অনার প্রদান, সিলেটের তেলিয়াপাড়ায় ১১ জন সেক্টর কমান্ডারদের গোপন বৈঠক, মুক্তিযুদ্ধে সেক্টর কমান্ডারদের সেক্টর বন্টন সভা ছাড়াও অরোরা নিয়াজী ও একে খন্দকারের উপস্থিতিতে পাক বাহিনীর আত্বসর্মপনের চিত্র নির্মিত ভাস্কর্য্যে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। যেগুলি (লাইফ সাইজের) মানুষ সমান আকৃতির। এখানে আধুনিক সাউন্ড সিস্টেম সম্বলিত একটি ডিজিটাল অডিটোরিয়ামের নির্মান কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে এসে থেমে আছে। মানচিত্রের চর্তুদিক কাঁচ দিয়ে ঘেরা, দুরবিক্ষন যন্ত্র বসানো, আলোকসজ্জা, ইলেক্ট্রিক ও ইলেটনিক্স প্রযুক্তি সরঞ্জাম কাজ, সাধারণ পর্যটকদের থাকার জন্য হোটেল, নিরাপত্তামূলক ব্যাবস্থা, পর্যাপ্ত পানি সুবিধা, পথচারীদের জন্য ছাউনি, প্রশাসনিক ভবন কার্যক্রম কাজ বাকী আছে।
এখানে বাগানের আকর্ষণ হলো বাগানের যেখান থেকেই দেখা যাকনা কেন আম গাছের সারী দেখা যাবে। শতবর্ষী এই বাগানে আম গাছ ছিল সাড়ে ১২’শ। কর্তৃপক্ষের অবহেলায় মরে গেছে শতাধিক গাছ। যা অদ্যবদী অপসারন করা হয়নি এবং নতুন করে কোনো গাছও লাগানো হয়নি।
দর্শনার্থীরা জানান, মরা গাছগুলো অপসারনের মাধ্যমে নতুন গাছ লাগালে বাগানের সৌন্দর্য্য আরো বৃদ্ধি পাবে এবং পর্যটকদের আরো আকর্ষণ করবে। তবে এখানে শিশুদের কোন বিনোদনের ব্যবস্থা না থাকায় তারা মজা পাচ্ছেনা।
মুজিবনগরকে আধুনিক পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হলে নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস জানার সুযোগ সৃষ্টি হবে। পাশাপাশি জেলার অর্থনৈতিক উন্নয়নেও বড় ভূমিকা রাখতে পারে বলে মনে করেএলাকাবাসি।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.